৫ বছর ধরে বিনা বিচারে বন্দি সাড়ে পাঁচশ'

প্রকাশ: ১৫ নভেম্বর ২০১৭      

ফসিহ উদ্দীন মাহতাব আতাউর রহমান

ঢাকার নিউমার্কেট থানায় একটি হত্যা মামলার আসামি জসিম উদ্দিনসহ চারজন। ২০০৯ সালে করা এ মামলার বিচার কাজ শেষ হয়নি গত আট বছরেও। চার আসামিই এখনও কারাগারে বন্দি রয়েছেন। পুরান ঢাকার লালবাগের বাসিন্দা মো. ফরিদের বিরুদ্ধে ১৯৯৬ সালের এবং লক্ষ্মীপুরের রায়পুরের বাসিন্দা সোহেল রিয়াজ পাপ্পুর বিরুদ্ধে ২০০৫ সালের হত্যা মামলা রয়েছে। এক যুগের বেশি সময় পেরোলেও ওই দুই আসামির বিচার কাজ এগোয়নি। বিনা বিচারে কারাগারে বন্দি আছেন তারাও।

শুধু হত্যা মামলার আসামি জসিম, ফরিদ কিংবা পাপ্পুরা নন, তাদের মতো অন্তত ৫৪২ জন রয়েছে যাদের বিচার ছাড়াই কারাগারে থাকতে হচ্ছে বছরের পর বছর। আদালতের চূড়ান্ত রায়ে তাদের সাজা হবে কি হবে না- এমন আশা-নিরাশার দোলাচলের মধ্যে দেশের বিভিন্ন কারাগারে বিচার ছাড়াই বন্দিজীবন পার করতে হচ্ছে হত্যাসহ বিভিন্ন মামলার এ আসামিদের।

বিনা বিচারে তাদের দীর্ঘদিন বন্দি থাকার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক। তিনি সমকালকে জানান, তারা সব সময়ই বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে আসছেন। বিনা বিচারে একজন মানুষ বন্দি থাকতে পারেন না। এতে মানবাধিকার যেমন লঙ্ঘিত হয়, তেমনি বিচারপ্রার্থী ও আসামিপক্ষ উভয়েই ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হতে পারেন।

কেন বিচার নিষ্পত্তি হচ্ছে না :বিভিন্ন মামলায় এত আসামি বছরের পর বছর ধরে কেন বিনা বিচারে কারাগারে রয়েছেন বা কেন তাদের বিচার হচ্ছে না- এর অনুসন্ধান করতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে নানা নেপথ্য কাহিনী। সংশ্নিষ্ট মামলাগুলোর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী, কারাগারের কর্মকর্তা ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাক্ষীর অভাবে তাদের বিচার শুরু করা যাচ্ছে না। কারও কারও অভিযোগের বিচার শুরু হলেও সাক্ষী পাওয়া যাচ্ছে না। পুরনো এসব মামলার প্রয়োজনীয় অনেক নথিও খুঁজে পাওয়া যায় না। এতে আসামির হাজিরার তারিখই নির্ধারণ হয় না। চার্জশিটে অনেক আসামির নাম বা ঠিকানা ভুল রয়েছে। অনেক সাক্ষীর নামের সঙ্গে ঠিকানার মিল নেই। অনেক আসামির স্বজন বা বাদীপক্ষও মামলায় আগ্রহ দেখান না। এসব কারণে বছরের পর বছর কারাগারে বন্দি রয়েছে এ আসামিরা।

আইনজীবীরা জানান, বিচারহীন অবস্থায় অনেক বিদেশি বন্দিও রয়েছেন। অনেক অভিযুক্ত জঙ্গি রয়েছে। খোঁজ নিয়ে তাদের ঠিকানা ভুয়া পাওয়া যায়। সাক্ষীদের ঠিকানাও ভুয়া পাওয়া যায়। এজন্য বিচার কাজ শুরু করা সম্ভব হয় না। এসব আসামির লোকজন না পাওয়ায় তদন্ত থেকে শুরু করে বিচার কার্যক্রমে যাওয়ার আগে সব পক্ষের একটা অনীহাও থাকে।

অনেক বছর ধরে বিচারহীন অবস্থায় বন্দি আসামিদের মুক্তির জন্য আইনি সহায়তা দিয়ে আসছে জাতীয় আইন সহায়তা ও মানবাধিকার সংগঠন বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট)। সংস্থাটির ঢাকা ইউনিটের কো-অর্ডিনেটর এবং ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট খোন্দকার আবদুল মান্নান সমকালকে বলেন, তাদের অনেকেরই মামলার নথি পাওয়া যায় না। সাক্ষী পাওয়া যায় না। অনেক সময় তাদের হাজিরা তারিখও দেওয়া হয় না। এসব কারণে মামলাগুলোর বিচার শুরু হয়নি। তবে ব্লাস্টের পক্ষ থেকে এ ধরনের মামলা খুঁজে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ঢাকার অন্য একটি আদালতের বিশেষ পিপি ফিরোজুর রহমান (মন্টু) সমকালকে বলেন, এসব বন্দির অনেকে হয়তো ১০ বছর বা আরও বেশি সময় ধরে কারাগারে রয়েছে। তাদের কারও কারও হয়তো সর্বোচ্চ সাজা হবে। আবার এমনও হতে পারে, চূড়ান্ত বিচারে কারও কারও সাজা আরও কম হবে।

মন্ত্রণালয়ে চিঠি চালাচালি :এদিকে পাঁচ বছর বা এর বেশি সময় ধরে কারাবন্দি আসামিদের বিচার কার্যক্রম দ্রুত নিষ্পত্তি করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে আইন মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। গত ১৯ অক্টোবর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ থেকে এ চিঠি পাঠানো হয়। একই দিন এ বন্দিদের বিরুদ্ধে যেসব জেলায় মামলা রয়েছে এবং তারা যেসব জেলার কারাগারে রয়েছে, সেসব জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং পুলিশ সুপারকেও চিঠি দেওয়া হয়েছে। পিপি বা স্পেশাল পিপির মাধ্যমে এসব অনিষ্পন্ন মামলার বিচারকাজ দ্রুত নিষ্পত্তি করতে বলা হয়েছে। এ-সংক্রান্ত অগ্রগতি প্রতিবেদনও মাসিক ভিত্তিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানাতে বলা হয়েছে।

জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সমকালকে বলেন, দেশের বিভিন্ন কারাগারে বন্দি আসামিদের বিচার দ্রুত শেষ করার জন্য সরকার চেষ্টা করছে। সম্প্রতি এ ব্যাপারে সহায়তার জন্য আইন মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, এসব মামলা কেন দ্রুত নিষ্পত্তি হচ্ছে না, তার কারণও অনুসন্ধান করা হয়েছে। এসব প্রতিবন্ধকতা দূর করা এককভাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষে সম্ভব নয়। আইনি প্রক্রিয়া আরও সহজতর করতে আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতসহ সহযোগিতা প্রয়োজন।

আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহিরুল হক সমকালকে বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠির আলোকে ঝুলে থাকা মামলাগুলোর বিচার দ্রুত নিষ্পত্তি করতে বিভিন্ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

কোন কারাগারে কত বন্দি :স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কারাগার সূত্র জানায়, দেশের মোট ৬৮টি কারাগারের মধ্যে ৫৬টি কারাগারে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে ৫৪২ জন বন্দি রয়েছে। মাদক, খুন, দ্রুত বিচার আইন ও সন্ত্রাস দমন আইনসহ বিভিন্ন আইনে নানা অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে। বন্দিদের মধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আটজন, গাজীপুরের কাশিমপুরের চারটি কারাগারে ১৩৫ জন, নারায়ণগঞ্জে ৩৭ জন, ময়মনসিংহ কারাগারে ৩০ জন, রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে ১৫ জন, কিশোরগঞ্জে নয়জন, নীলফামারী কারাগারে সাতজন, নরসিংদী ও দিনাজপুর জেলা কারাগারের প্রতিটিতে ছয় জন করে, ফরিদপুর, পাবনা, বগুড়া, হ্নঠাকুরগাঁও, জয়পুরহাট ও সিরাজগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঁচজন করে, লালমনিরহাট কারাগারে চারজন করে, মুন্সীগঞ্জ, টাঙ্গাইল, শেরপুর, গাইবান্ধা ও কুড়িগ্রাম জেলা কারাগারে তিনজন করে, মাদারীপুর, নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ কারাগারে দু'জন করে এবং রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, রংপুর ও নাটোর কারাগারে একজন করে আসামি বিনা বিচারে পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে বন্দি রয়েছে।

এ ছাড়া চট্টগ্রামে ৯১ জন, কক্সবাজারে ২৮ জন, সিলেটে ১৯ জন, কুমিল্লায় ১৪ জন, খুলনায় ১৩ জন, মৌলভীবাজার ও চুয়াডাঙ্গায় ১১ জন, খাগড়াছড়ি ও ঝিনাইদহে ১০ জন, সাতক্ষীরায় নয়জন, নোয়াখালীতে সাতজন, চাঁদপুরে পাঁচজন, ফেনী, পটুয়াখালী ও ভোলা কারাগারে তিনজন করে, সুনামগঞ্জ ও যশোরে চারজন করে, ব্রাহ্মহ্মণবাড়িয়া, লক্ষ্মীপুর ও বরগুনায় দু'জন করে এবং বরিশাল, হবিগঞ্জ, ঝালকাঠি ও পিরোজপুর কারাগারে একজন করে বিনা বিচারে বন্দি রয়েছে।

কারা অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা সমকালকে বলেন, সাধারণত কারাগারের জায়গার তুলনায় বন্দির সংখ্যা বেশি। তার ওপর আবার বিচার ছাড়াই পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে বন্দি রয়েছে পাঁচ শতাধিক ব্যক্তি। দীর্ঘদিনেও এসব বন্দির বিচার নিষ্পত্তি না হওয়ায় তাদের নিয়ে কারা কর্তৃপক্ষও বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছে।

বিষয় : আদালত

পরবর্তী খবর পড়ুন : মানিকগঞ্জে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে স্বামী-স্ত্রী দগ্ধ

আরও পড়ুন

যেভাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে পারে আর্জেন্টিনা

যেভাবে দ্বিতীয় রাউন্ডে যেতে পারে আর্জেন্টিনা

এবারের বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার ‘সুপার ফ্লপ শো’ চলছেই। প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের ...

স্বরূপে ফিরুক ব্রাজিল

স্বরূপে ফিরুক ব্রাজিল

সোচি থেকে বুধবার রাত ১১টায় নেইমার-মার্সেলোরা যখন সেন্ট পিটার্সবার্গে পৌঁছান ...

আর্জেন্টিনার বিদায় ঘণ্টা কি বেজেই গেল?

আর্জেন্টিনার বিদায় ঘণ্টা কি বেজেই গেল?

গত বিশ্বকাপের রানার আপ দল। এবারের আসরেও ফেভারিটের তকমা নিয়ে ...

ব্যাংকে সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত তদারক করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ব্যাংকে সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত তদারক করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

ঋণ ও আমানতের সুদহার কমানোর সিদ্ধান্ত যেন ঘোষণাতেই সার না ...

মাজেদা রিকশা না চালালে পরিবার চলবে কীভাবে

মাজেদা রিকশা না চালালে পরিবার চলবে কীভাবে

১৪ বছর বয়সী মাজেদার অপরাধ- সে না খেয়ে থাকতে চায়নি। ...

ওরা আছে ভাগার তালে

ওরা আছে ভাগার তালে

রাশিয়ান পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত ফিনল্যান্ড ...

বাঁশবাড়িয়া সৈকতে গোসলে নেমে নিখোঁজ ২ ভাই

বাঁশবাড়িয়া সৈকতে গোসলে নেমে নিখোঁজ ২ ভাই

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার বাঁশবাড়িয়া সৈকতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হয়েছে ...

২৪ ঘণ্টার মধ্যে নৌকার জয়-পরাজয় নিশ্চিত হতে পারে: জাহাঙ্গীর

২৪ ঘণ্টার মধ্যে নৌকার জয়-পরাজয় নিশ্চিত হতে পারে: জাহাঙ্গীর

গাজীপুর মহানগরের প্রত্যেক ভোটারের কাছে গিয়ে গিয়ে বিনয়ের সঙ্গে নৌকা ...