ঢাবিতে বিক্ষোভ

৭ কলেজের অধিভুক্তি বাতিল না করলে কঠোর কর্মসূচি

প্রকাশ: ১১ জানুয়ারি ২০১৮      

ঢাবি সংবাদদাতা

'এক দফা এক দাবি, অধিভুক্ত মুক্ত ঢাবি' এই স্লোগানে জোরদার হয়ে উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। রাজধানীর সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে বৃহস্পতিবারও ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। দাবি পূরণ না হলে কঠোর কর্মসূচিরও ঘোষণা দেন তারা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঢাবির অধিভুক্ত সাত কলেজ বাতিলের দাবিতে বেলা ১১টায় ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা। এতে প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেন। এ সময় সেখানকার সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দেড় ঘণ্টা মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের পর একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রশাসনিক ভবনে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে এসে জড়ো হয়। সেখানে দুপুর ২টা পর্যন্ত অবস্থান নেন আন্দোলনকারীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীর নেতৃত্বে শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল এসে শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানায়। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, অধিভুক্ত সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের শুধু শিক্ষা-সংক্রান্ত সুবিধা পাওয়ার কথা। কিন্তু তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরিচয় দিয়ে নানামুখী সুবিধা নিচ্ছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি হচ্ছে। অথচ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্যই পর্যাপ্ত পরিমাণ আবাসন ও পরিবহনের সুবিধা নেই। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ক মশিউর রহমান সাদিক দাবির পেছনে উপযুক্ত কারণ তুলে ধরে বলেন, 'গত বছর রাজধানীর সাত কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিচয় নিয়ে বিড়ম্বনা সৃষ্টি, প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত, ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি, বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ্ণ ও শিক্ষার মানের অবনতি হচ্ছে।' এ সময় অধিভুক্তি বাতিল ও বহিরাগত যান চলাচল নিয়ন্ত্রণেরও দাবি জানান তিনি। অধিভুক্ত সাত কলেজের সমন্বয়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম সমকালকে বলেন, 'দাবির বিষয়ে আমার কিছু বলার নেই। উপাচার্য আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা পালন করছি।' উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো আখতারুজ্জামান সমকালকে বলেন, 'নিজেদের অধিকার আদায়ে শিক্ষার্থীরা তাদের যুক্তিক দাবি উত্থাপন করেছে। আমরা বিষয়টি দেখব।'

বিষয় : ঢাবি সাত কলেজ

পরবর্তী খবর পড়ুন : জনসংহতি সমিতি নেতাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার দাবি

আরও পড়ুন

নেইমারের মতো ফাউলের শিকার হননি আর কেউ

নেইমারের মতো ফাউলের শিকার হননি আর কেউ

১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপ দেখেছেন ও এখন বেচে আছেন এমন মানুষের ...

জকিগঞ্জে দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী

জকিগঞ্জে দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী

সিলেটের জকিগঞ্জের সুরমা-কুশিয়ারা নদীর পানি ২ সেন্টিমিটার কমলেও লোকালয়ে বৃদ্ধি ...

প্রত্যাশা নয়, ভালোর আশায় দ. কোরিয়া

প্রত্যাশা নয়, ভালোর আশায় দ. কোরিয়া

মহাদেশীয় কোটার কারণে বিশ্বকাপে এশিয়ার দল থাকে বটে। কিন্তু শিরোপার ...

'জায়ান্ট-কিলার' সুইডেনের সামনে দ. কোরিয়া

'জায়ান্ট-কিলার' সুইডেনের সামনে দ. কোরিয়া

রাশিয়া বিশ্বকাপে সব থেকেও 'কি যেন নেই নেই' ভাব, তার ...

ইব্রাহিমের ছবি মনে করিয়ে দেয় তরুণ সাইফফে

ইব্রাহিমের ছবি মনে করিয়ে দেয় তরুণ সাইফফে

বলিউড অভিনেতা সাইফ আলী খান ও কারিনা কাপুরের ছেলে তৈমুর ...

তাদের কাছে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নয়, ইস্যু গুরুত্বপূর্ণ: কাদের

তাদের কাছে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নয়, ইস্যু গুরুত্বপূর্ণ: কাদের

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়টি নিয়ে তার দলের নেতারা ...

মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মেয়ে নিহত

মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মেয়ে নিহত

মাগুরা-যশোর সড়কের মাগুরার শালিখা উপজেলার কৃষ্ণপুর এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মেয়ে ...

ছুটি শেষেও সচিবালয়ে ঈদের আমেজ

ছুটি শেষেও সচিবালয়ে ঈদের আমেজ

তিন দিন সরকারি ছুটির পর আজ সোমবার খুলেছে সব সরকারি ...