বিশ্ব ক্যান্সার দিবস আজ

রোগী নিয়ে 'ঘরবাণিজ্য'

প্রকাশ: ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮     আপডেট: ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮      

রাজবংশী রায়

আবদুল সামাদ মিয়া ও তফুরা বেগম স্বামী-স্ত্রী। সামাদ মিয়া রাজধানীর মহাখালীর জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী হিসেবে চাকরি করতেন। প্রায় ১১ বছর আগে তিনি অবসরে গেছেন। তফুরা এখনও চাকরি করছেন। প্রায় ১৩ বছর আগে সামাদ-তফুরা দম্পতি বক্ষব্যাধি হাসপাতাল চত্বরের খালি জায়গায় একটি টিনশেড ঘর তুলেছিলেন। সেই ঘরটিই এখন সোনার হাঁসে পরিণত হয়েছে। একটি কক্ষে নিজেরা থাকেন আর তিনটি কক্ষ ভাড়া দিয়ে দৈনিক ৬শ' থেকে ৮শ' টাকা আয় করেন সামাদ-তফুরা।


গত বৃহস্পতিবার রোগীর স্বজন সেজে বক্ষব্যাধি হাসপাতালের ওই অবৈধ টিনশেড ঘর ভাড়া নিতে গিয়ে সামাদ-তফুরার সঙ্গে আলাপকালে এসব তথ্য জানা গেছে। তারা জানান, বেতন নয়; রোগীদের কাছ থেকে পাওয়া ভাড়া টাকাই তাদের আয়ের মূল উৎস। অবৈধ টিনশেড ঘর কীভাবে তোলা হয়েছে, গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির লাইন কীভাবে সেখানে নেওয়া হলো, এর পেছনে কারা রয়েছে- এসব বিষয়ে জানতে চাইলে তারা কোনো উত্তর দিতে পারেননি।


তবে এলাকাবাসী ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুধু সামাদ-তফুরাই নয়; বক্ষব্যাধি হাসপাতালের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের একটি সিন্ডিকেট স্থানীয় সন্ত্রাসীদের সঙ্গে যোগসাজশ করে সরকারি জায়গায় অবৈধ ঘর তুলে বাণিজ্য করছে। ওই হাসপাতালের আবাসিক চত্বরে আড়াই থেকে তিন হাজার অবৈধ ঘর নিয়ন্ত্রণকারী একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেটের পকেটে যায় সিংহভাগ অর্থ। বক্ষব্যাধি হাসপাতালের পাশের জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালকে কেন্দ্র করেই এই টিনশেড ঘরের বাণিজ্য চলছে। শয্যা স্বল্পতার কারণে যেসব রোগী হাসপাতালে ভর্তি হতে পারেন না, তারাই এসব ঘর ভাড়া নিয়ে ক্যান্সার হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। তিনশ' শয্যার এ হাসপাতালে প্রতিদিন ভর্তি প্রার্থী থাকেন প্রায় দ্বিগুণ রোগী। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে বক্ষব্যাধি হাসপাতালের জায়গায় অবৈধভাবে ঘর তুলে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কর্মচারী ও সন্ত্রাসীদের সিন্ডিকেট।


সরেজমিনে দেখা গেছে, বক্ষব্যাধি হাসপাতালের আবাসিক এলাকায় প্রবেশ মুখের সড়কের দু'পাশে শতাধিক স্থায়ী দোকান বসানো হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ ও অস্থায়ী মিলে আরও শতাধিক দোকান খোলা হয়েছে সড়কের দু'পাশে। স্থায়ী দোকানপ্রতি দৈনিক ৬০০-৮০০ টাকা, ভ্রাম্যমাণ দোকানপ্রতি দৈনিক ৩০০-৫০০ টাকা করে দিতে হয়। চিকিৎসকদের জন্য আটটি ভবন রয়েছে। এসব ভবনে ৩০ থেকে ৩৫টি পরিবার বসবাস করলেও তারা সবাই বহিরাগত। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের আটটি ভবনে কমপক্ষে একশ' পরিবার বসবাস করছে। এর বাইরে ভবনের চারপাশে থাকা খালি জায়গায় অন্তত আড়াই থেকে তিন হাজার টিনশেড ঘর তুলে বহিরাগত ও হাসপাতালের কর্মচারীরা মিলেমিশে স্থায়ীভাবে বসবাস করছে। আবাসিক এলাকায় এখন আর কোনো খালি জায়গা নেই।


বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামলেই টিনশেড ঘরের এই বস্তিতে চলে নানা অসামাজিক কার্যকলাপ। বসে জুয়া ও মাদকের আসর। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কয়েকদফা ওই টিনশেড ঘরের বস্তি উচ্ছেদের উদ্যোগ নিলেও সন্ত্রাসীদের হুমকির কাছে তা ব্যর্থ হয়েছে। 


স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শীর্ষ সন্ত্রাসী মুকুল একসময় এসব বস্তি ও দখলবাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ করত। তার মৃত্যুর পর কামাল, রতন, মিলন ও আমিনের নেতৃত্বে মাসুদ রানা, রাজ্জাক, রতন মোল্লাসহ স্থানীয় সন্ত্রাসীরা এখন এ বস্তি নিয়ন্ত্রণ করছে। বস্তিঘর থেকে ভাড়াবাবদ উত্তোলনকৃত টাকার একটি বড় অংশ তাদের পকেটে যায়।


এ বিষয়ে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোয়াররফ হোসেন সমকালকে বলেন, প্রতিদিন আড়াই থেকে তিনশ' রোগীকে কেমোথেরাপি এবং সাড়ে তিনশ' থেকে চারশ' রোগীকে রেডিওথেরাপি দেওয়া হয়। হাসপাতালে শয্যা স্বল্পতার কারণে তাদের ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব হয় না। এ কারণে হাঁটাচলা করতে পারেন এমন রোগীকে কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপি দেওয়ার পর ছেড়ে দেওয়া হয়। বেশিরভাগ রোগী ঢাকার বাইরে থেকে আসায় তারা নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হাসপাতাল লাগোয়া এলাকায় অথবা রাজধানীতে আত্মীয়-স্বজন কিংবা হোটেল এবং ভাড়া বাসায় অবস্থান করেন

আরও পড়ুন

রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরিতে রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে ...

এরশাদ কোথায়

এরশাদ কোথায়

অজ্ঞাত স্থানে 'বিশ্রাম নিচ্ছেন' জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ ...

প্রার্থীর যোগ্যতা অযোগ্যতা প্রশ্নে দ্বিধায় ইসি

প্রার্থীর যোগ্যতা অযোগ্যতা প্রশ্নে দ্বিধায় ইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা ও অযোগ্যতার মানদণ্ড ...

নৌকায় চড়তে চান শতাধিক ব্যবসায়ী

নৌকায় চড়তে চান শতাধিক ব্যবসায়ী

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ব্যানারে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ...

নওয়াব ফয়জুন্নেছার বাড়ি হবে উন্মুক্ত জাদুঘর

নওয়াব ফয়জুন্নেছার বাড়ি হবে উন্মুক্ত জাদুঘর

ফয়জুন্নেছা চৌধুরাণী উপমহাদেশের একমাত্র নারী নওয়াব। কুমিল্লার লাকসাম থেকে আধা ...

আসামিকে জামিন পাইয়ে দিলেন দুদক পিপি

আসামিকে জামিন পাইয়ে দিলেন দুদক পিপি

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রামের পিপির সুপারিশে ১৩৫ কোটি টাকা ...

মৃত্যুফাঁদ থেকে সাবধান

মৃত্যুফাঁদ থেকে সাবধান

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার সড়কের আশপাশে এবং বাসাবাড়িতে গ্যাস পাইপলাইন ...

'মি টু আন্দোলন পুরুষের বিরুদ্ধে নয়'

'মি টু আন্দোলন পুরুষের বিরুদ্ধে নয়'

বিশ্বজুড়ে শুরু হওয়া যৌন নিপীড়ন বিরোধী #মি টু আন্দোলনের ঢেউ ...