তারেকের বিরুদ্ধে আট মামলা চলছে: আইনমন্ত্রী

প্রকাশ: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮     আপডেট: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক— ফাইল ছবি

একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলাসহ দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আটটি মামলা চলছে। এ ছাড়া দুটি মামলায় তিনি সাজা পেয়েছেন।

বুধবার সংসদে প্রশ্নোত্তরে সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ ফজিলাতুন নেসা বাপ্পীর প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ তথ্য জানান। এর আগে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হলে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়। 

মন্ত্রীর দেওয়া তথ্যানুযায়ী, অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ২০০৭ সালে রাজধানীর কাফরুল থানায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে একটি মামলা (মামলা নম্বর ১৭/২০০৭) দায়ের হয়, যা এখনও চলছে। এ মামলায় তার স্ত্রী জোবায়দা হক ও শাশুড়ি সৈয়দা ইকবাল বান্দ বানুও অভিযুক্ত। তার বিরুদ্ধে একুশ আগস্ট গ্রেনেড হামলার অভিযোগে দুটি মামলা (মামলা নম্বর ২৯/১১ ও ৩০/১১) ও ঢাকা মহানগর দায়রা আদালতে দায়ের করা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা (মামলা নম্বর ১৫৫৮২/১৭) চলমান রয়েছে। বাকি চারটি মানহানি মামলা (৪৯৯/৫০০ ধারায়) চলছে ঢাকার সিএমএম আদালতে। এগুলোর মধ্যে একটি মামলায় তার বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। 

সাজাপ্রাপ্ত দুটি মামলার একটিতে নিম্ন আদালতে খালাস পেলেও পরে হাইকোর্ট তাকে সাত বছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে ২০ কোটি টাকা জরিমানা করেছেন। আর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় তারেক রহমানের ১০ বছর কারাবাসের দণ্ড ও ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ দশমিক ৮০ টাকা জরিমানা হয়েছে। অন্যান্য আসামির সঙ্গে আনুপাতিক হারে ভাগাভাগি করে এই অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে বলা হয়েছে। 

ক্ষমতাসীন দলের গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, সারাদেশে ৫০০ স্থানে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৩০টি। এর মধ্যে ২৯টি সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে এবং উচ্চ আদালতের নির্দেশে একটি স্থগিত আছে। 

দ্রুত বিচার আইনের অধীনে মামলার বিষয়ে জানতে চেয়ে করা সরকারি দলের এমএ মালেকের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, এই বিচার প্রক্রিয়ায় চলতি অর্থবছরে ৭২০টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। এসব মামলায় সাজা পেয়েছেন ১৮২ জন। আর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মীমাংসিত মামলার সংখ্যা ১৮টি। এসব মামলায় ৩৭ জনের শাস্তি হয়েছে। 

চট্টগ্রাম-৪ আসনের দিদারুল আলমের প্রশ্নের জবাবে সংসদকে মন্ত্রী জানান, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ১ লাখ ৬৫ হাজার ৫৫০টি। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৪৪ হাজার ৫৪৬টি, চট্টগ্রামে ৪৩ হাজার ৩০টি, রাজশাহীতে ১৬ হাজার ১২৮টি, খুলনায় ১৯ হাজার ১৩৮টি, বরিশালে ১০ হাজার ১৬৩টি, সিলেটে ১১ হাজার ৮০৭টি ও রংপুরে ২০ হাজার ৭৩৮টি মামলা চলছে।

আরও পড়ুন

রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে চিঠি দেবে ঐক্যফ্রন্ট

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ তৈরিতে রাষ্ট্রপতির সহায়তা চেয়ে ...

এরশাদ কোথায়

এরশাদ কোথায়

অজ্ঞাত স্থানে 'বিশ্রাম নিচ্ছেন' জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ ...

প্রার্থীর যোগ্যতা অযোগ্যতা প্রশ্নে দ্বিধায় ইসি

প্রার্থীর যোগ্যতা অযোগ্যতা প্রশ্নে দ্বিধায় ইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা ও অযোগ্যতার মানদণ্ড ...

নৌকায় চড়তে চান শতাধিক ব্যবসায়ী

নৌকায় চড়তে চান শতাধিক ব্যবসায়ী

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ব্যানারে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ...

নওয়াব ফয়জুন্নেছার বাড়ি হবে উন্মুক্ত জাদুঘর

নওয়াব ফয়জুন্নেছার বাড়ি হবে উন্মুক্ত জাদুঘর

ফয়জুন্নেছা চৌধুরাণী উপমহাদেশের একমাত্র নারী নওয়াব। কুমিল্লার লাকসাম থেকে আধা ...

আসামিকে জামিন পাইয়ে দিলেন দুদক পিপি

আসামিকে জামিন পাইয়ে দিলেন দুদক পিপি

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রামের পিপির সুপারিশে ১৩৫ কোটি টাকা ...

মৃত্যুফাঁদ থেকে সাবধান

মৃত্যুফাঁদ থেকে সাবধান

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার সড়কের আশপাশে এবং বাসাবাড়িতে গ্যাস পাইপলাইন ...

'মি টু আন্দোলন পুরুষের বিরুদ্ধে নয়'

'মি টু আন্দোলন পুরুষের বিরুদ্ধে নয়'

বিশ্বজুড়ে শুরু হওয়া যৌন নিপীড়ন বিরোধী #মি টু আন্দোলনের ঢেউ ...