আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উদযাপন

১০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ পাল্টে যাবে: গণশিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশ: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান -ফাইল ছবি

আগামী ১০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ পাল্টে যাবে। দেশের সকল মানুষ এ সময়ের মধ্যে সাক্ষরতার জ্ঞান নিয়ে নিজেকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস-২০১৮ উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. মোতাহার হোসেন এমপি, মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ আসিফ উজ জামান, উপানুষ্ঠনিক শিক্ষা ব্যুরোর মহাপরিচালক তপন কুমার ঘোষ। 'সাক্ষরতা অর্জন করি, দক্ষ হয়ে জীবন গড়ি' এই প্রতিপদ্যে এবার সারাবিশ্বে সাক্ষরতা দিবস পালিত হয়।

মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ইতোমধ্যে শিক্ষার সুযোগ বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান, জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকায়ন, দক্ষ মানবসম্পদে পরিণতকরণ, আত্ম-কর্মসংস্থানের যোগ্যতা সৃষ্টিকরণ এবং বিদ্যালয় বহির্ভুত ও ঝরে পড়া শিশুদের শিক্ষার বিকল্প সুযোগ সৃষ্টির উদ্দেশে ২০১৪ সালে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা আইন প্রণীত হয়েছে। এর ফলে সাক্ষরতার হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে আমাদের সাক্ষরতার হার ৭২ দশমিক ৯ শতাংশ। এখনো ২৭ দশমিক ১ শতাংশ নিরক্ষর রয়েছে। তাদের সাক্ষরতার জ্ঞান ও দক্ষ করে তোলাই হবে আমাদের মূল লক্ষ্য।

তিনি বলেন, বর্তমানে সাক্ষরতার চিত্র পাল্টে গেছে। দেশকে এগিয়ে নিতে সরকার সকল ধরণের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এখন শুধু লিখতে-পড়তে পারলেই তাকে সাক্ষরতা বলে না। পড়ালেখার পাশাপাশি তাকে কর্মদক্ষ হলেই সাক্ষর বলা হচ্ছে। সাক্ষরতার চিত্র আগামী ১০ বছরের মধ্যে পাল্টে যাবে। সাক্ষরতা মানে একজন শিক্ষিত ও দক্ষ ব্যক্তিকে বোঝাবে। আজকের যারা শিশু, আগামীতে তারাই এ চিত্র পাল্টে দেবে বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

মোতাহার হোসেন এমপি বলেন, দেশের একটি অংশ নিরক্ষর থাকবে, এটি ভেবেই বঙ্গবন্ধু গণসাক্ষরতা কার্যক্রম শুরু করলেও এটি যে গতিতে চলছে তা সঠিক নয়। শুধু যোগ বিয়োগ, সাক্ষর করা আর পেপার পড়াই সাক্ষরতার মূল উদ্দেশ্য নয়। সাক্ষরতার জ্ঞান নিয়ে যেন তাদের কর্মসংস্থান তৈরি হয় সেটিই ছিলো এর মূল লক্ষ্য। অথচ তা আজ স্থবির হয়ে পড়েছে। আজোও দেশে শিক্ষানীতি, সমাপনী ও ইবদায়ি পরীক্ষা ও জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা আয়োজন নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হচ্ছে। শিক্ষানীতির আলোকে ২০১৮ সাল থেকে শুধুমাত্র ৮ম শ্রেণিতে পাবলিক পরীক্ষা আয়োজন করার কথা থাকলেও তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি। প্রাথমিক পর্যায়ে কোয়ালিটি শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। দেশে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে তিনি কারিগরি শিক্ষাকে আরো ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দেন।

গণশিক্ষা সচিব মোহাম্মদ আসিফ উজ জামান বলেন, দেশের শিক্ষা বঞ্চিত সকল বয়সী মানুষকে সাক্ষরতার আওতায় এনে শিক্ষা প্রদান, বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তরসহ নানামুখী কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। শিক্ষানীতি-২০১০ এর আলোকে এসব কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-সাদিও মানে-ফিরমিনো বনাম নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানি! কিংবা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের সাবেক দুই কোচ ...

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের ইনিংসের তখন ২৯ ওভার চলছে। কোন উইকেট না হারিয়ে ...

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

রুটি সেঁকতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত না আবার হাতটাই পুড়ে যায়- ...

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

সাধারণ শিক্ষার্থীরা আশাবাদী। তবে কিছুটা সন্দেহ আর সংশয়ে আছে ক্যাম্পাসে ...

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ক্রমশই বাড়ছে। ১০ বছর আগে ২০০৮ ...

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

চলমান রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য। আওয়ামী ...

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

ভিটেমাটির সঙ্গে শিশু নাসরিন আক্তারের স্কুলটিও গেছে পদ্মার গর্ভে। তীরে ...

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

হাটহাজারীর কাটিরহাট থেকে ছয় কিলোমিটার ইটবিছানো রাস্তার পর প্রায় এক ...