তারেকের কেন যাবজ্জীবন

মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রকাশ: ১১ অক্টোবর ২০১৮     আপডেট: ১১ অক্টোবর ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

সমকাল প্রতিবেদক

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে শুরু হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। একাধিক মন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, তারেক এই হামলার প্রধান রূপকার। তার মৃত্যুদণ্ড হওয়াই উচিত ছিল। বাবরসহ ১৯ জনের ফাঁসি হলে একই অপরাধে তারেকের যাবজ্জীবন সাজা হতে পারে না। ফাঁসির দণ্ড চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ উচ্চ আদালতে আপিল করবে। তারেকের সর্বোচ্চ সাজা না হওয়ায় আদালত প্রাঙ্গণেই হতাশা ব্যক্ত করেছেন ২১ আগস্ট হামলায় নিহতদের স্বজন এবং আহতরা। অন্যদিকে বিএনপির পক্ষ থেকে তারেক রহমানকে নির্দোষ দাবি করা হয়েছে। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এই রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এটি সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার নগ্নপ্রকাশ।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলিরা বলেছেন, গ্রেনেড হামলার প্রধান রূপকার তারেক রহমান। এ জন্য তারেকসহ অন্য আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে। তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তি না হওয়ায় গ্রেনেড হামলার ভুক্তভোগী, নিহতদের পরিবার, মন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারাও হতাশা প্রকাশ করেছেন।

গতকাল বুধবার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় করা দুটি মামলায় ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন রায় ঘোষণা করেন। রায়ে তৎকালীন বিএনপি সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং অন্য ১১ সরকারি কর্মকর্তাকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এর মধ্যে তারেক-বাবরসহ ৩৮ আসামির বিরুদ্ধেই বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৩০২ (হত্যার উদ্দেশ্য), ১০২ (খ) (রাষ্ট্রীয় যড়যন্ত্র) ও ৩৪ (অপরাধের অভিপ্রায়) ধারায় আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে বলে রায়ে বলা হয়েছে।

রায়ে ১১টি বিবেচ্য বিষয়কে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করে আসামিদের সাজা দেওয়া হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে। রায়ে বলা হয়, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বকে নিশ্চিহ্ন করতেই পূর্বপরিকল্পিতভাবে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালায় আসামিরা। এ সময় তারেক রহমানের সঙ্গে যড়যন্ত্রমূলক সভা করে জঙ্গি নেতারা হামলা চালিয়েছিল কি-না এবং ঘটনার পর মামলাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা এবং আসামিদের বাঁচাতে রাষ্ট্রীয় তৎপরতা চালানো হয়েছিল কি-না, তা পর্যালোচনা করার পর মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবন পাওয়া আসামিদের বিরুদ্ধে সন্দেহাতীতভাবে দণ্ডবিধির ৩০২, ১০২ (খ) ও ৩৪ ধারার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, গ্রেনেড হামলার মূল নায়ক তারেক রহমান। তারও মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত ছিল। রায় পাওয়ার পর পর্যালোচনা করে তারেক রহমান, কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ ও হারিছ চৌধুরীর সাজা ফাঁসিতে বর্ধিত করা যায় কি-না, সে জন্য উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

রায়ের পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তাৎক্ষণিকভাবে এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলছি, রায়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট নই। কারণ এই রায়ে প্ল্যানার (পরিকল্পনাকারী) এবং মাস্টারমাইন্ডের সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়া দরকার ছিল। পরে বিষয়টি নিয়ে গ্রেনেড হামলা মামলার প্রধান কৌঁসুলি সৈয়দ রেজাউর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি সমকালকে বলেন, একই অপরাধে একই ধারায় বাবরসহ ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হলেও তারেকসহ অপর ১৯ জনকে যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হয়েছে। এর আইনগত দিক রাষ্ট্রপক্ষ অবশ্যই খতিয়ে দেখবে। তবে তার আগে পূর্ণাঙ্গ রায় পেতে হবে। আশা করছি শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হবে। রায় পাওয়ার পরই আপিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

রাষ্ট্রপক্ষের অপর কৌঁসুলি মোশাররফ হোসেন কাজল সমকালকে বলেন, আইনগত প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক। কারণ তারেক রহমানই গ্রেনেড হামলার রূপকার। অথচ তাকেই সর্বোচ্চ সাজা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একই ধারায় দু'ধরনের সাজা হতে পারে না। কিন্তু মাস্টারমাইন্ড (প্রধান রূপকার) যদি আইনি মারপ্যাঁচে সুবিধা পায়, তবে সেটি হতাশাজনক।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি আব্দুল কাহার আকন্দ বলেন, রায় নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট নন, তারেক রহমানের মৃত্যুদণ্ডের প্রত্যাশা ছিল তার।

গ্রেনেড হামলার নৃশংস ঘটনায় জড়িত আসামিদের বাঁচাতে তৎকালীন বিএনপি সরকারের আমলে 'জজ মিয়া' নামে কথিত এক নিরীহ ব্যক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করে চাজর্শিট দিয়েছিল পুলিশ। পরে মোহাম্মদ জালাল ওরফে জজ মিয়া ৫ বছর কারাগারে অন্তরীণ থাকার পর সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে মুক্ত হন। সেই জজ মিয়াও তারেক রহমানের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন। তিনি সমকালকে বলেন, 'তারেক রহমানের সরাসরি নির্দেশেই গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটেছিল।' রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, চিহ্নিত আরও কয়েকজন আসামির ফাঁসি হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু তাদের ফাঁসি হয়নি। সেক্ষেত্রে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে।

রায়ে তারেক রহমানের সর্বোচ্চ সাজা না হওয়ায় আদালত চত্বরেই অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন গ্রেনেড হামলায় আহত স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সম্রাট আকবর সবুজ ও মাহমুদা মনোয়ারা বেগম। সম্রাট আকবর বলেন, দীর্ঘদিন পর এ রায় হলেও এতে তিনি খুশি নন। এ হামলার হোতা তারেক রহমান। কিন্তু তাকে যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে। তার অপরাধ হলো ফাঁসি দেওয়ার মতো।

মনোয়ারা বেগম বলেন, শরীরে স্প্লিন্টার নিয়ে যন্ত্রণার সঙ্গে বেঁচে আছি। প্রত্যাশা ছিল হামলার মূল কারিগর তারেকের ফাঁসি হবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, তার যাবজ্জীবন হয়েছে। উচ্চ আদালতে তারেকের সর্বোচ্চ সাজা হবে বলেও আশা করেন তিনি।

অবশ্য বিএনপির পক্ষ থেকে তারেক রহমানকে নির্দোষ দাবি করেছেন তার আইনজীবীরা। রায়ের পর আদালত প্রাঙ্গণে আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া সাংবাদিকদের বলেন, তারেক রহমানের যাবজ্জীবন ও অন্যদের ফাঁসির যে রায় দেওয়া হয়েছে, তা অন্যায় ও বেআইনি।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বলেন, এ মামলায় তারেক রহমান ন্যায়বিচার পাননি। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

তবে তারেকের ফাঁসি না হয়ে যাবজ্জীবন হওয়ায় একদিকে লাভ হয়েছে বলে মনে করছেন প্রবীণ আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর-উল-ইসলাম। তিনি বলেছেন, তারেকের মৃত্যুদণ্ড হলে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সমস্যা হতো। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বেলায় যেমন হচ্ছে।

তারেকের আরও সাজা: যুক্তরাজ্যে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এ পর্যন্ত যথাক্রমে ৭ বছর, ১০ বছর এবং যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত হয়েছেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি অন্য আসামিদের সঙ্গে তারেক রহমানকে ১০ বছরের দণ্ড দেওয়া হয়।

অন্যদিকে, ২০১৬ সালের ২১ জুলাই তারেক রহমানকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেন হাইকোর্ট। ২০ কোটি টাকা জরিমানাও করা হয়।

আরও পড়ুন

সাগরিকায় আজ সিরিজ জয়ের ম্যাচ

সাগরিকায় আজ সিরিজ জয়ের ম্যাচ

জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সর্বশেষ ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হয়েছিল দুই বছর ...

নির্বাচন বানচালের জন্যই ৭ দফা ও সংলাপের দাবি

নির্বাচন বানচালের জন্যই ৭ দফা ও সংলাপের দাবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ...

৪১৭ জনের বিরুদ্ধে দুদক চার্জশিট দিচ্ছে

৪১৭ জনের বিরুদ্ধে দুদক চার্জশিট দিচ্ছে

আগ্নেয়াস্ত্রের ভুয়া লাইসেন্স দেওয়া-নেওয়ার অভিযোগে ৪১৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিচ্ছে ...

তফসিলের আগেই সংলাপে বসার আহ্বান জানাবে ঐক্যফ্রন্ট

তফসিলের আগেই সংলাপে বসার আহ্বান জানাবে ঐক্যফ্রন্ট

অবশেষে আজ বুধবার সিলেটে জনসভা করছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। একাদশ জাতীয় ...

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দিকেই যত অভিযোগ

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দিকেই যত অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে মহাসড়কের পাশ থেকে চার যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধারের ...

অতিথি পাখিতে এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জার আশঙ্কা

অতিথি পাখিতে এভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জার আশঙ্কা

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, ...

এক মঞ্চে রংপুরের ১৬২ রাজনৈতিক নেতা

এক মঞ্চে রংপুরের ১৬২ রাজনৈতিক নেতা

একই মঞ্চে শান্তিপূর্ণ ও অহিংস নির্বাচনের শপথ নিয়েছেন রংপুর বিভাগের ...

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ফার্মাসিউটিক্যালস সিলগালা

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ফার্মাসিউটিক্যালস সিলগালা

সাভারের নবীনগর এলাকার মির্জানগরে অবস্থিত গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ ...