রাজধানী

নাগরিক সংলাপে বক্তারা

রাজনীতিবিদরা না চাইলে দলিতদের উন্নয়ন হবে না

প্রকাশ: ১২ নভেম্বর ২০১৭      

সমকাল প্রতিবেদক

রাজনীতিবিদরা না চাইলে কোনোভাবেই দলিত সম্প্রদায়ের উন্নয়ন হবে না। তাদের উন্নয়নে যতই উদ্যোগ বা নীতিমালা হোক না কেন; রাজনৈতিক দলের উদ্যোগ থাকতে হবে সবার আগে। রাজনীতিবিদদের এগিয়ে আসতে হবে।

রোববার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত নাগরিক সংলাপে বক্তারা এসব কথা বলেন।

'টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যের (এসডিজি) আলোকে বাংলাদেশে দলিত জনগোষ্ঠীর অবস্থান' শীর্ষক সংলাপে বক্তারা আরও বলেন, 'দলিতদের উন্নয়নে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবাসন নিশ্চিত করার পাশাপাশি সামাজিক বৈষম্য দূর করার উদ্যোগ নিতে হবে। আমলাদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে। ইতোমধ্যে এসব জনগোষ্ঠীর জন্য যেসব সুবিধা সরকার দিয়েছে, তা বাস্তবায়ন করতে হবে।'

এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, সিপিডি, অভিযান, নাগরিক উদ্যোগ, রিসার্চ ইনিশিয়েটিভ বাংলাদেশ যৌথভাবে এ সংলাপের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক বলেন, 'সরকার অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনীতি অনুসরণ করছে। কিন্তু তা নিশ্চিত করতে হলে অন্তর্ভুক্তিমূলক রাজনীতি নিশ্চিত করতে হবে। শুধু সংসদ গঠন করলেই হবে না; সেখানে সবার প্রতিনিধিত্ব থাকতে হবে। নতুবা ক্ষুদ্রঋণ বা অন্য কোনো উদ্যোগে বৈষম্য দূর হবে না।'

অনুষ্ঠানের শুরুতে এসডিজির লক্ষ্য, বাংলাদেশে দলিত সম্প্রদায়ের অবস্থান নিয়ে দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন মানবাধিকার কমিশনের সদস্য মেঘনা গুহঠাকুরতা। তিনি দলিতদের বঞ্চনা, অনগ্রসরতা তুলে ধরে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত করার সুপারিশ করেন।

পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য শামসুল আলম বলেন, 'দেশের সংবিধানে দলিত বলে কিছু নেই। রাষ্ট্রের সব নাগরিককে সমানভাবে বিবেচনা করা হয়েছে। সরকার বর্তমানে যে ১৩৬টি জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি পরিচালনা করছে, সেখানে পিছিয়ে পড়া সবাইকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে এসব খাতে ৫৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। এত ব্যয় করার পরও সমাজে বৈষম্য বাড়ছে, যা চিন্তার বিষয়। এ বৈষম্য কমাতে হবে।'

এ জন্য শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ জিডিপির ২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৪ শতাংশ করার প্রস্তাব করেন তিনি।

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, 'এসডিজি অনুযায়ী উন্নয়ন কোনো দান বা দক্ষিণা নয়। উন্নয়ন অধিকার। এমডিজি অর্জনের ক্ষেত্রে গড় উন্নয়ন হিসাব করা হয়েছে। ফলে সহজে সাফল্য পাওয়া গেছে। কিন্তু এসডিজিতে বিভাজিত হিসাব করা হবে। অর্থাৎ সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া লোকটি কতটা এগিয়েছে তার হিসাবে অর্জন বিবেচনা করা হবে। বর্তমান সরকারের আমলেই তিনি বৈষম্যবিরোধী আইন চান।'

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, 'একদিনে দলিতদের সমস্যা সমাধান হবে না। ভারতে মহাত্মা গান্ধী দীর্ঘ সময় আন্দোলন করলেও এখনও দলিতদের সব সমস্যার সমাধান হয়নি। তবে উদ্যোগ নিতে হবে।'

'নাগরিক উদ্যোগের' নির্বাহী পরিচালক জাকির হোসেন বলেন, 'দলিতদের চিহ্নিত করে স্বীকৃতি দিতে হবে। তাদের আবাসন নিশ্চিত করতে হবে।'

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হামিদা হোসেন বলেন, 'দলিতদের আইনের মধ্য দিয়ে স্বীকৃতি দিতে হবে।'

প্রিপ ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক অ্যারোমা দত্ত বলেন, 'রাষ্ট্রকে ঠিক করতে হবে দলিতরা সব সময় দরিদ্র থাকবে, না তাদের উন্নতি করা হবে?'

জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্রনাথ সরেন বলেন, 'দেশের উন্নয়ন হচ্ছে কিন্তু দলিতরা পেছনে হাঁটছে। রাজনীতিবিদরা দলিতদের নিয়ে কী ভাবছেন, তার ওপর নির্ভর করছে এ সম্প্রদায়ের ভবিষ্যৎ। রাষ্ট্রের ওপর দলিতদের কোনো অধিকার নেই। তারা ধর্ষণ, জমি থেকে উচ্ছেদসহ বিভিন্ন অন্যায়ের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব সমস্যা সমাধানে রাজনীতিবিদদের এগিয়ে আসতে হবে। তারা না চাইলে দলিতদের উন্নয়ন হবে না।'

ঠাকুরগাঁও থেকে আগত বক্তা হিমাংশু চন্দ্র বলেন, 'সিটি করপোরেশন বা পৌরসভার অনেক কাজ দলিতরা করত। সেখানে সাধারণ জনগণ যোগ দিচ্ছে। টাকা ও রাজনৈতিক সংশ্লেষ না থাকায় দলিতরা কাজ পাচ্ছে না। আবার দলিতদের মধ্যে যারা সরকারের কাজের সঙ্গে জড়িত তারাই বিভিন্ন কলোনিতে থাকার সুযোগ পাচ্ছে। অন্যদের আবাসনের কোনো ব্যবস্থা নেই। ফলে দলিতরা প্রায়ই স্থানান্তরিত হচ্ছে।'

প্রতীক জৈন নামে একজন বলেন, 'দলিতরা জুতা বানায়, কিন্তু কেউ ঋণ দেয় না। ব্যাংক, মহাজন কেউ-ই এগিয়ে আসে না।'

রেখা বৈরাগী বলেন, 'দলিতদের শিক্ষা খাতে কোটা থাকলেও জেলা প্রশাসকরা সে কোটা বাস্তবায়ন করেন না।' ফাল্গুনী ত্রিপুরা দলিতদের নামে খাস জমি বরাদ্দ দেওয়ার প্রস্তাব করেন।

আরও পড়ুন

দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সংলাপে বসার দাবি প্রত্যাখ্যানকে আওয়ামী লীগের ...

নামই যখন কাল

নামই যখন কাল

রুবেল দু'জন- একজন মো. রুবেল ও অন্যজন সিটি রুবেল। মো. ...

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

নিরাপদ সড়ক দিবসের নানা আয়োজন চলছিল ঢাকার রাস্তায়। সড়কে যান ...

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

মহাখালীর আইসিডিডিআর'বি হাসপাতাল এলাকায় মুমূর্ষু অবস্থায় পড়েছিলেন এক বৃদ্ধ। বনানী ...

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর এক বছরের কলড্রপের একটি পরিসংখ্যান দিয়েছে বাংলাদেশ ...

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই সরকার 'গায়েবি মামলা' করছে বলে অভিযোগ করেছেন ...

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল বাঁহাতি স্পিনারদের একজন রঙ্গনা হেরাথ। ...

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রতিষ্ঠার ১৩ ...