সিটি নির্বাচন

খুলনা সিটি নির্বাচন

মাঠে সরব আওয়ামী লীগ চাপে রয়েছে বিএনপি

প্রকাশ: ১১ মে ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

সাব্বির নেওয়াজ ও মামুন রেজা, খুলনা থেকে

বৃহস্পতিবার, দুপুরবেলা। খুলনা সিটি করপোরেশনের রিটার্নিং অফিসার ইউনুচ আলীর কক্ষে এলেন আসাদুজ্জামান আসাদ। সংরক্ষিত ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী সামসুন নাহার লিপির স্বজন তিনি।

রিটার্নিং কর্মকর্তাকে আসাদ জানালেন, প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট তার স্বামী মাহাবুব হাসানকে গত ২ মে রাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ পরিস্থিতিতে তার ভাইকে প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট করা হয়। বুধবার রাতে তাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ (বৃহস্পতিবার) তিনি এসেছেন তৃতীয়বারের মতো প্রধান এজেন্টের নাম পরিবর্তন করতে।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ইউনুচ আলী তাকে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে গিয়ে আবেদনের পরামর্শ দেন। কার্যালয় থেকে বের হওয়ার সময় আসাদুজ্জামান সমকালকে বলেন, এভাবে গ্রেফতার চললে কীভাবে নির্বাচন করব? আপনারা (সাংবাদিক) এ নিয়ে লেখেন না কেন? আসাদুজ্জামানের বক্তব্যেই বোঝা যায়, খুলনা সিটি নির্বাচনে স্থানীয় বিএনপি কেমন চাপের মধ্যে আছে।

বিপরীতে নির্বাচনের মাঠে মেয়র-কাউন্সিলরদের পক্ষে প্রচারণার ক্ষেত্রে ব্যাপক সরব রয়েছে আওয়ামী লীগ। ফজরের নামাজের পর থেকেই প্রতিদিন ওয়ার্ড পর্যায়ে খণ্ড খণ্ড দলে বিভক্ত হয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণা শুরু করছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। দুপুর ২টা থেকে শুরু হয় মাইকিং। পুরো নগরী ছেয়ে আছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেকের পোস্টারে।

তুলনায় বিএনপির প্রচারণা অনেকটাই নিষ্প্রভ। বিএনপির নেতাকর্মীরা বলছেন, পুলিশের ভয়ে বাড়িতেও থাকছেন না তারা।

তবে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বলছেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের এসব বক্তব্য 'স্ট্যান্ডবাজি'। নিজেদের প্রার্থীর ভরাডুবি টের পেয়ে তারা নানা অভিযোগ তুলে পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে চাইছেন। এখন পর্যন্ত কোথাও বিএনপির মেয়র বা কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণায় কোনও রকম বাধা দেওয়া হয়নি।

সরেজমিন খুলনা নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, প্রধান দুই দলের মেয়র প্রার্থী দিনভর প্রচারণা চালাচ্ছেন। বিভিন্ন ওয়ার্ডে গিয়ে স্থানীয় সমস্যাগুলো সমাধানের আশ্বাস দিচ্ছেন। সাধারণ মানুষও এই সুযোগে নানা সমস্যা-সংকটের কথা তাদের কাছে তুলে ধরছেন।

এমন পরিস্থিতিতে কেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দুই মেয়র প্রার্থীর মধ্যে? জানতে চাইলে ১১ নম্বর ওয়ার্ডের পল্গাটিনাম দুই নম্বর গেট এলাকার বাসিন্দা পাটকল শ্রমিক মফিজুল ইসলামের বক্তব্য, নৌকা-ধানের শীষ কেউই কাউকে ছাড় দেবে না। ব্যাপক ফাইট হবে।

৮ নম্বর ওয়ার্ড এলাকার ক্রিসেন্ট জুট মিলের শ্রমিক আজফার হোসেন জানালেন, পাটকল শ্রমিকদের দীর্ঘদিনের বিপুল পরিমাণ পাওনা বকেয়া ছিল। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পাটকল শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা বাবদ ৩০ কোটি টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। এই পাওনা পেতে খুলনা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা সরকারের উচ্চপর্যায়ে দেন-দরবার করেছেন। সুতরাং এই শ্রমিকদের ভোট নিশ্চয়ই নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে যাবে।

খানজাহান আলী রোডের কলেজিয়েট স্কুলের মোড়ে দাঁড়িয়ে স্কুলশিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন সমকালকে বললেন, খুলনার মানুষ বর্তমান মেয়র মনিরুজ্জামান মনি ও সাবেক মেয়র তালুকদার আবদুল খালেকের মেয়াদকালের তুলনা করছেন। দেখা যাচ্ছে, উন্নয়ন কার্যক্রমে আবদুল খালেক অনেক এগিয়ে আছেন মনির চেয়ে। তবে মনিও নাকি ৯টি প্রকল্প মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছিলেন, যার একটিরও অনুমোদন হয়নি।

৩০ নম্বর ওয়ার্ডে দারোগাপাড়া এলাকার আবদুল হামিদ বললেন, বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু অনেক গণসম্পৃক্ত মানুষ। সাধারণ মানুষের মধ্যে তার পজিটিভ ইমেজ রয়েছে। আবদুল খালেকেরও তাই। দু'জনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা তাই জমজমাটই হবে।

নগরীর শঙ্খ মার্কেট এলাকায় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে কথা হয় ২৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের এক নেতার সঙ্গে। তিনি বলেন, খালেক ভাইয়ের অবস্থা গতবারের চেয়ে ভালো। তবে দল দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় থাকায় অনেক নেতাকর্মী কিছু ভুলত্রুটি করেছে। এসব ভুলত্রুটির খানিকটা খালেক ভাইয়ের ঘাড়েও এসে পড়েছে।

পিকচার প্যালেস মোড়ের একটি শো-রুমে কথা প্রসঙ্গে প্রবীণ এক ব্যবসায়ী জানালেন, খুলনা সদরে মুসলিম লীগের প্রভাব অনেক। স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত মাত্র দু'বার এখানে নৌকা জিতেছে। বাকি নির্বাচনগুলোয় জিতেছে বিএনপি। সব মিলিয়ে বিএনপি এখানে কিছুটা এগিয়েই আছে বলতে হবে।

প্রচারে এগিয়ে আওয়ামী লীগ : সরেজমিনে নগরীর রয়্যাল মোড়ে গিয়ে দেখা গেছে, তালতলা রোডে ঢোকার মুখে শোভা পাচ্ছে একটি নৌকা প্রতীক। মুজগুন্নি মহাসড়কের ১৭ নম্বর ওয়ার্ড এলাকা এবং রায়েরমহল সড়কসহ নগরীর আরও অনেক স্থানেই রয়েছে এ রকম এক বা একাধিক নৌকা প্রতীক- যেগুলো আবার আবদুল খালেকের পোস্টার দিয়ে মোড়ানো।

তবে নগরীর কোথাও এখনও ধানের শীষের কোনো প্রতীক দেখা যায়নি। শুধু বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুর ব্যক্তিগত গাড়ির সামনের দণ্ডে ধানের শীষ ঝুলতে দেখা যাচ্ছে।

নগরীর শামসুর রহমান রোড ও সাউথ সেন্ট্রাল রোডে দেখা গেল, দড়ি দিয়ে নৌকার অসংখ্য পোস্টার ঝুলছে। তবে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর এমন পোস্টার নেই বললেই চলে। একই চিত্র নগরীর বেশিরভাগ সড়কেই।

আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেকের গণসংযোগে যোগ দিচ্ছেন অসংখ্য কর্মী। সহযোগী ও পেশাজীবী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরাও আলাদাভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে বিএনপির গণসংযোগে তেমন নেতাকর্মী থাকছেন না। এমনকি মাইকিংয়ের ক্ষেত্রে পিছিয়ে বিএনপির প্রার্থী।

এ ব্যাপারে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু সমকালকে বলেন, পুলিশি হয়রানি ও গ্রেফতার আতঙ্কে তাদের কর্মীরা ঠিকমতো প্রচারণা চালাতে পারছেন না।

১৪ দলের প্রেস ব্রিফিং :আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এসএম কামাল হোসেন বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তা যদি নিরপেক্ষ না থাকেন, ছাত্রদলের ক্যাডারের মতো আচরণ করেন, তাহলে এ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। তারা দাবি করার পরও ইসি তাকে প্রত্যাহার করেনি। তবে একজন যুগ্ম সচিবকে পাঠিয়েছেন তাকে সহযোগিতা করতে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে খুলনা প্রেস ক্লাবে ১৪ দল আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে কামাল হোসেন এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, বিএনপি মিথ্যাচার করে খুলনায় নির্বাচনের সুন্দর পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছে।

বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে কামাল হোসেন বলেন, পুলিশ মামলার পলাতক আসামিদেরকেই গ্রেফতার করছে। এর সঙ্গে আওয়ামী লীগের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

জাসদের কেন্দ্রীয় সভাপতি শরীফ নূরুল আম্বিয়া বলেন, মিথ্যাচার করা বিএনপির পুরনো অভ্যাস। আমি খুলনার বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে দেখেছি নির্বাচনের সুন্দর পরিবেশ রয়েছে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে ছিলেন মহানগর জাসদের সভাপতি রফিকুল হক খোকন, সাধারণ সম্পাদক খালিদ হোসেন প্রমুখ।

বিএনপির প্রেস ব্রিফিং : বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় অভিযোগ করেন, এর আগে বিভাগীয় কমিশনারকে প্রধান করে রিটার্নিং কর্মকর্তার জন্য একটি তদারকি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। বুধবার একজন যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে আরেকটি তদারকি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাহলে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব কী? তাকে চাপে রাখতেই তার ওপরে সমন্বয়কারী দেওয়া হয়েছে।

গয়েশ্বর চন্দ্র গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বিএনপির খুলনা কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, জনগণ ভোট দিতে পারবে কি-না তা নিয়ে আওয়ামী লীগের কোনো চিন্তা নেই। খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনেই দেখতে চাই, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেমন হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, একজন যুগ্ম সচিবকে নির্বাচন সমন্বয়কের দায়িত্ব দেওয়া আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এ ছাড়া গত রাতেও পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ১০ জন কর্মীকে আটক করেছে। তাদের মধ্যে নির্বাচনের পোলিং এজেন্ট, কেন্দ্রভিত্তিক কমিটির সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্যও রয়েছে। খুলনা জেলা থেকে এ পর্যন্ত ৫৫ জনকে এবং নগরী থেকে ৩৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, তারা নির্বাচনের মাঠে সমান সুবিধা, সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার, ভীতিমুক্ত পরিবেশ ও সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছিলেন। কিন্তু এর কোনোটিই বাস্তবায়ন হয়নি। গভীর রাত পর্যন্ত সরকারি দলের লোকজন মোটরসাইকেল মহড়া দিলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।

প্রেস ব্রিফিংয়ে ছিলেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, বরকতউলল্গাহ বুলু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক, মশিউর রহমান, হাবিবুর রহমান ও মেহেদী হাসান রুমী, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরীন, শ্যামা ওবায়েদ, ক্রীড়া সম্পাদক মো. আমিনুল হক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাসুদ, সহ-প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান, সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আমিরুর রহমান খান শিমুল, নির্বাহী সদস্য মাসুদ অরুণ প্রমুখ।

প্রশাসনকে সতর্ক করল ইসি :সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যাপারে খুলনার প্রশাসন ও পুলিশকে সতর্ক বার্তা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। গত বুধবার সন্ধ্যায় খুলনা সার্কিট হাউসে বিভাগীয় আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সমন্বয় সভায় এ সতর্কবার্তা দেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম।

কবিতা খানম বলেন, পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি মিলিয়ে বিভিন্ন বাহিনীর প্রায় সাড়ে তিন হাজার সদস্য দায়িত্ব পালনের পরও যদি নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হয়, তবে কেউই জবাবদিহির বাইরে থাকবেন না। তিনি বলেন, বিভিন্ন মহল থেকে ধরপাকড়ের অভিযোগ উঠেছে। এ সম্পর্কে ইসির বক্তব্য পরিস্কার। যারা ফৌজদারি মামলার আসামি, দাগী অপরাধী, যাদের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে, তাদের গ্রেফতার করা যেতেই পারে। তবে নিরপরাধ কাউকে আটক করা চলবে না। নির্বাচনী প্রচারের সময় কাউকে ধরে নিয়ে কোনো মামলা যেন না দেওয়া হয়।

এ সভায় খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি, পুলিশ কমিশনার, পুলিশ সুপার, নির্বাচন কমিশনের ইভিএমের প্রধান সমন্বয়কারী ও রিটার্নিং কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ সমাপনীতে দুই নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম ও রফিকুল ইসলাম তাদের বক্তব্যে বলেন, কেউ নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করলে ১৯৯১ সালের বিশেষ বিধান আইনে শাস্তিযোগ্য হবেন। প্রয়োজনে ১০ বার নির্বাচন করা হবে। তবুও যেনতেন নির্বাচন করা হবে না।

এ ছাড়া গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মাহাবুব তালুকদার খুলনা সার্কিট হাউসে বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির সভায় অংশ নেন। তিনিও প্রশাসন ও পুলিশের কর্মকর্তাদের একই সতর্কবার্তা দেন।

নির্বাচনে ইভিএম সমন্বয়কারীর দায়িত্বে আসা নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব মো. আবদুল বাতেন গতকাল সমকালকে বলেন, সহকারী রিটার্নিং অফিসারদের মাঠ পরিদর্শনে পাঠানো হয়েছে। তারা নির্বাচনের পরিবেশ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ রাখতে কাজ করছেন। তিনি বলেন, ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী মালামাল আজকালের মধ্যে খুলনায় এসে পৌঁছবে। এগুলোর নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

গাড়ি রিকুইজিশন আতঙ্ক : খুলনায় নির্বাচনের কাজে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাচন কর্মকর্তাদের ব্যবহারের জন্য গাড়ি রিকুইজিশন করছে পুলিশ। রিকুইজিশন আতঙ্কে মালিকরা তাদের ব্যক্তিগত গাড়ি বের করা কমিয়ে দিয়েছেন। কেউ জরুরি প্রয়োজনে গাড়ি বের করলেও রিকুইজিশনের হাত থেকে রেহাই পেতে গাড়িতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালুকাদার আবদুল খালেকের পোস্টার ও স্টিকার ব্যবহার করছেন।

হৃদয়ে ক্ষত নিয়ে ঈদ করছেন শরণার্থী রোহিঙ্গারা

হৃদয়ে ক্ষত নিয়ে ঈদ করছেন শরণার্থী রোহিঙ্গারা

মাবিয়া খাতুন, বয়স আনুমানিক ৬০। খুব কাছ থেকে তিনি দেখেছেন মিয়ানমার ...

ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে ঈদের দিনেও তীব্র যানজট

ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে ঈদের দিনেও তীব্র যানজট

সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড়ে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে ঈদের দিনেও তীব্র ...

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে শোলাকিয়ায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে শোলাকিয়ায় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত

লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে দেশের সর্ববৃহৎ ঈদগাহ মাঠ কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদুল ...

উল্লাপাড়ায় রেললাইনে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ

উল্লাপাড়ায় রেললাইনে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ

উল্লাপাড়া উপজেলার শিবপুর গ্রামের ঈশ্বরদী-ঢাকা রেল লাইনের উপর থেকে অজ্ঞাত ...

বগুড়ায় বাস-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩

বগুড়ায় বাস-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় একটি যাত্রীবাহী বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার মুখোমুখি ...

দেশ-জাতির শান্তি ও কল্যাণ কামনা

দেশ-জাতির শান্তি ও কল্যাণ কামনা

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার ও যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে সারাদেশে উদযাপিত হচ্ছে ...

নওগাঁয় ট্রাকচাপায় ৩ জনের মৃত্যু

নওগাঁয় ট্রাকচাপায় ৩ জনের মৃত্যু

নওগাঁয় ট্রাকচাপায় মটরসাইকেলের দুই আরোহীসহ তিন জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ...

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নির্ভর করছে বাংলাদেশের ওপর: সু চি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নির্ভর করছে বাংলাদেশের ওপর: সু চি

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কবে শুরু হবে সেটি বাংলাদেশের ওপরই নির্ভর করছে ...