সিটি নির্বাচন

আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ বিএনপিতে বিভেদ

উন্নয়নে ভরসা সাদিকের অস্বস্তিতে সরোয়ার

বরিশাল

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

পুলক চ্যাটার্জি, বরিশাল

দলের ঐক্যবদ্ধ শক্তির ওপর ভর করে ২০১৩ সালের জুনে অনুষ্ঠিত বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামাল বিজয়ী হন। এর নেপথ্যে প্রধান সিপাহসালার ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও নগর সভাপতি মজিবর রহমান সরোয়ার। ৫ বছর পর সেই তিনিই আসন্ন বিসিসি নির্বাচনে দলের মেয়র প্রার্থী হয়ে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন। অভিজ্ঞ মহলের মতে, স্থানীয় বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল দলকে এলোমেলো করে রেখেছে। এ ছাড়া চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন প্রার্থী দেওয়ায় ভোটের মাঠে অস্বস্তিতে আছেন সরোয়ার। তবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের মেয়র প্রার্থী নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর পক্ষে তার দল ও শরিকরা সবাই ঐক্যবদ্ধ। যদিও কিছুটা স্থবিরতা আছে নগর ছাত্রলীগ ও যুবলীগে। তারপরও পর্যবেক্ষক মহলের মতে, দলীয় শক্তি এবং দক্ষিণাঞ্চলে বর্তমান সরকারের ব্যাপক উন্নয়ন ভোটের মাঠে সাদিক আবদুল্লাহকে আগাম অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে দিয়েছে। 


নগরীর বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সচেতন মানুষের মতে, মেয়র পদে সাদিক আবদুল্লাহ 'নতুন মুখ' হলেও গত প্রায় দেড় বছর ধরে তিনি সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনায় ছিলেন। ২০১৬ সালে তিনি নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। মূলত তখন থেকেই তিনি সিটি মেয়র প্রার্থী হিসেবে প্রস্তুতি শুরু করেন। এর আগেই নগর রাজনীতিতে তিনি গড়ে তোলেন শক্ত অবস্থান। 


মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল বলেন, নগরে ৩০টি পূর্ণাঙ্গ ওয়ার্ড কমিটি গঠন ছাড়াও নির্বাচনের জন্য কেন্দ্র কমিটি করা হয়েছে ১০৪টি। তিনি বলেন, আরও ৬ মাস আগ থেকে নগর আওয়ামী লীগ সিটি নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু করেছে। এমনকি দলীয় মেয়র প্রার্থীর বিজয় সংহত করতে দলের ওয়ার্ড সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। তা ছাড়া সাধারণ ২৮টি এবং সংরক্ষিত ১০টি ওয়ার্ডে একক কাউন্সিলর প্রার্থী দেওয়া হয়েছে। অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল মনে করেন, সাদিককে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় নগর আওয়ামী লীগের তৃণমূল কর্মী-সমর্থক ও দলনিরপেক্ষ ভোটারদের প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে। ফলে আসন্ন সিটি নির্বাচনে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা সর্বশক্তি নিয়ে ভোটযুদ্ধে নামবেন। তিনি বলেন, বিসিসি নির্বাচনকে ঘিরে মহানগর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ। 


মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি খান আলতাফ হোসেন ভুলু বলেন, তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাশীল এবং বিসিসি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর পক্ষে প্রাণপণ কাজ করবেন। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস এমপি বলেন, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগ এবং জেলার ১০টি উপজেলার আওয়ামী লীগ নেতারাও আসন্ন সিটি নির্বাচনে নগরবাসীর ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাইবেন। সিটি নির্বাচন ঘিরে বরিশালে দলীয় কোনো দুর্বলতা নেই। 


মেয়র প্রার্থী ও নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ বলেন, নগর আওয়ামী লীগ নেতারা তাকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে চেয়েছেন। দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নগর আওয়ামী লীগের চাওয়া পূর্ণ করেছেন। তাই সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা আসন্ন নির্বাচনে সর্বোচ্চ সাংগঠনিক শক্তি দিয়ে বরিশাল থেকে দলীয় সভাপতিকে নৌকা প্রতীকের মেয়র উপহার দেবেন। 


স্বাধীনতার পর থেকে বরিশাল নগরী বিএনপির শক্তিশালি ঘাঁটি হিসেবে পরিচিতি পেয়ে এসেছে। ২০১৩ সালের সিটি নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আহসান হাবিব কামালের বিজয়ের নেপথ্য নায়ক হিসেবে ধরা হয় মজিবর রহমান সরোয়ারকে। তবে আসন্ন বিসিসি নির্বাচনে বিএনপির ঘাঁটি অনেকটা নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছে বলে মনে করে সচেতন মহল। তাদের মতে, চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন এবার প্রথমবারের মতো সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী দেওয়া ও হঠাৎ সরোয়ারের প্রার্থিতায় আসায় ওই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কারণ বরিশাল নগরে ইসলামী আন্দোলনের ২৫ থেকে ৩০ হাজার নিজস্ব ভোট রয়েছে বলে দলটির দায়িত্বশীল সূত্র থেকে দাবি করা হয়েছে। তাদের প্রার্থী না থাকলে ওই ভোটের অধিকাংশ যেত ধানের শীষের পক্ষে। কিন্তু এবার তা হচ্ছে না। এদিকে শেষ মুহূর্তে সরোয়ার মেয়র প্রার্থী হওয়ায় দলের সম্ভাব্য অন্য প্রার্থীরা কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়ার কথা বললেও ভেতরে ভেতরে তাদের মধ্যে অসন্তোষের আভাস পাওয়া গেছে। এটিসহ দলের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরাজমান কোন্দল সরোয়ারকে বেকায়দায় ফেলতে পারে বলে মনে করেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। 


ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা ওবাইদুর রহমানের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির গণমাধ্যম সমন্বয়ক মাওলানা মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ সমকালকে বলেন, সর্বশেষ অনুষ্ঠিত খুলনা ও গাজীপুর সিটি নির্বাচনের ফলাফলে তারা দেখেছেন, গত ৮/১০ বছরে তাদের ভোট বেড়েছে ৬ থেকে ৭ গুণ। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে বরিশাল সদর আসনে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী প্রায় ২৯ হাজার ভোট পান। তার মধ্যে নগরের ভোট ১৫ হাজার হয়ে থাকলে গত ১০ বছরে যদি ৫ গুণ ভোটও বাড়ে তাহলে আমাদের ভোট ৯০ হাজারের কাছাকাছি দাঁড়িয়েছে। তাই আসন্ন বিসিসি নির্বাচনে সুষ্ঠু ভোট হলে তাদের প্রার্থীই বিজয়ী হবেন। 


'হাতপাখা' যেমন মহাটেনশনে ফেলেছে মজিবর রহমান সরোয়ারকে, তেমনি দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলও তার জন্য মহাদুশ্চিন্তা বলে সচেতন মহলের অভিমত। কারণ মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া থেকে শুরু করে যাচাই-বাছাই কার্যক্রম কিংবা নির্বাচনী কোনো কর্মকাণ্ডে এখন পর্যন্ত বরিশাল বিএনপির তিন শীর্ষ নেতাকে পাশে পাননি সরোয়ার। যদিও শুক্রবার মনোনয়নপ্রত্যাশী ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস আক্তার জাহান শিরিন মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ারের সঙ্গে তার বাসভবনে নির্বাচনী সভায় অংশ নিয়েছেন। অপর মনোনয়নপ্রত্যাশী দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন এখনও ঢাকায় অবস্থান করছেন। মেয়র আহসান হাবিব কামাল বরিশালে থাকলেও এখনও সরোয়ারের পাশে তাকে দেখা যাচ্ছে না। 


নগর বিএনপির সাবেক এক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, দল থেকে বারবার এক ব্যক্তি পুরস্কৃত হবেন, অন্য নেতারা বঞ্চিত হবেন- মাঠের নেতাকর্মীরা এ বিষয়টি মেনে নিতে পারছে না। এ কারণে মাঠের নেতাকর্মীদের মধ্যে আসন্ন নির্বাচন নিয়ে কোনো আগ্রহ নেই। এবায়দুল হক চাঁন শনিবার সমকালকে বলেন, দলের সমর্থকরাও এবারের মনোনয়ন মানতে পারছেন না। চান বলেন, ক্ষোভ থাকলেও করার কিছু নেই। দলের সিদ্ধান্ত মেনে ভোটের মাঠে নামতে হবে। 


মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার দলের বিভেদ প্রসঙ্গে বলেন, 'আমি মনোনয়ন চাইনি। দল আমাকে প্রার্থী করেছে। এখানে বিএনপিতে কোনো বিভেদ নেই। যারা মনোনয়ন চেয়েছিলেন; প্রতীক বরাদ্দের পর তারা সবাই আমার সঙ্গে মাঠে নামবেন।'

সাতক্ষীরায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটক ৬৩, ইয়াবা-ফেনসিডিল উদ্ধার

সাতক্ষীরায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটক ৬৩, ইয়াবা-ফেনসিডিল উদ্ধার

সাতক্ষীরা জেলাব্যাপী পুলিশের বিশেষ অভিযানে জামায়াত-শিবিরের ছয় নেতাকর্মীসহ ৬৩ জনকে ...

জলাতঙ্ক থেকে বাঁচার উপায়

জলাতঙ্ক থেকে বাঁচার উপায়

র‌্যাবিসকে বাংলায় জলাতঙ্ক বলা হয়। অর্থাৎ জলে যার আতঙ্ক। এই ...

সৌম্য-ইমরুল কি খেলবেন আজ

সৌম্য-ইমরুল কি খেলবেন আজ

বিমানবন্দর থেকে হোটেলে ফিরতে ফিরতে রাত প্রায় ১১টা। আজ দুবাই ...

গোপালগঞ্জে বাসচাপায় শিশু নিহত

গোপালগঞ্জে বাসচাপায় শিশু নিহত

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে বাসচাপায় পাপ্পী দাস (৭) নামে এক শিশু নিহত ...

সরকারকে আলোচনার আলটিমেটাম

সরকারকে আলোচনার আলটিমেটাম

নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সব দলের ...

এবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় টাইগারদের

এবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় টাইগারদের

গল্পে পড়া উঠের পিঠে চড়া সেই বেদুইনরা নাকি এখন শুধুই ...

বালুখেকোরা খুবলে খাচ্ছে সুরমা

বালুখেকোরা খুবলে খাচ্ছে সুরমা

সিলেটের প্রাণ সুরমা নদীকে খুবলে খাচ্ছে বালুখেকোরা। অথচ এই নদী ...

জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে সহযোগিতার জন্য ফের আহ্বান জানাবেন ...