খেলাপি ঋণ কমানোর বিকল্প নেই: এফবিসিসিআই

প্রকাশ: ০২ জুলাই ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

ব্যাংকগুলো ঋণের সুদহার এক অংকে নামিয়ে আনার যে ঘোষণা দিয়েছে, তা টেকসই করতে হলে খেলাপি ঋণ কমাতে হবে। ব্যাংকিং খাত দীর্ঘদিন ধরে খেলাপি ঋণের দুর্বিষহ বোঝা বয়ে চলেছে, যা সুদহার ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা। ব্যাংক খাতকে আরও দক্ষ ও বিনিয়োগবান্ধব করতে খেলাপি ঋণ কমানোর বিকল্প নেই।

সোমবার ব্যাংক ঋণের সুদহার সম্পর্কিত বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

রাজধানীর মতিঝিলে ফেডারেশন ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এফবিসিসিআই সভাপতি খেলাপি ঋণ সমস্যা সমাধানে ব্যাংকিং খাতে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন একটি টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব করেন, যে টাস্কফোর্স খেলাপি ঋণ সংক্রান্ত সমস্যার কারণ চিহ্নিত করে তা সমাধানে সুপারিশসহ প্রতিবেদন দেবে। একইসঙ্গে ব্যাংক খাতে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে দ্রুত 'একটি স্বাধীন ব্যাংক কমিশন' গঠনেরও সুপারিশ করেন তিনি।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ব্যাংকগুলো প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে ঋণের সুদহার এক অংকের ঘরে নামিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে। এটি বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের জন্য সময়োপোযোগী পদক্ষেপ। এতে উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের আস্থা বাড়বে। এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ। এক অংকের ঋণের সুদহার ব্যবসা পরিচালনা ব্যয় যেমন কমায়, তেমনি পার্শ্ববর্তী প্রতিযোগী দেশগুলোর সাথে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে সহায়তা করে।

তবে এই সুদহার টেকসই করতে হলে ব্যাংকের দক্ষতা বাড়াতে হবে এবং খেলাপি ঋণ কমাতে হবে— একথা উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, গত মার্চ শেষে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৮৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। ব্যাংকিং ব্যবস্থাকে আরও দক্ষ এবং বিনিয়োগবান্ধব করতে এই খেলাপি ঋণ কমানোর কোনো বিকল্প নেই।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ব্যাংকগুলোর ঝুঁকি ব্যবস্থাপনাকে আরো জোরদার করা প্রয়োজন। বিশেষ করে বড় অংকের ঋণগুলো কমিয়ে আনার বিষয়ে কাঠামোবদ্ধ ব্যবস্থা নেয়া একান্ত জরুরি।

তিনি বলেন, সরকার উন্নয়নশীল দেশ হওয়া ও ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে। এজন্য প্রচুর বিনিয়োগ দরকার। প্রয়োজনীয় বিনিয়োগ নিশ্চিত করতে কম সুদহারের পাশাপাশি 'ইজ অব ডুয়িং বিজনেস' নিশ্চিত করতে হবে। ব্যবসার খরচ কমাতে হবে। জমি, মূলধন সবই অনেক খরুচে হলে শুধু মানুষ দিয়ে এগোনো যাবে না।

সফিউল ইসলাম বলেন, ঋণ খেলাপি দুই ধরনের হয়ে থাকে। কেউ ব্যবসায় মন্দা বা পরিস্থিতির কারণে খেলাপি হয়। আবার কেউ ইচ্ছাকৃত খেলাপি। যারা পরিস্থিতির কারণে খেলাপি তাদের সহযোগিতা করতে হবে। এফবিসিসিআই কখনও ইচ্ছাকৃত খেলাপির পক্ষে না। এই চক্রকে এফবিসিসিআই নৈতিকভাবে বয়কট করে। তাদের চিহ্নিত করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, বিশ্বব্যাংকসহ অনেক সংস্থার কাছে প্রচুর অলস অর্থ রয়েছে। এসব অর্থ বিনিয়োগের জন্য বিশ্বব্যাংক বিভিন্ন দেশে সুযোগ খুঁজছে। স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে দর কষাকষির মাধ্যমে বিশ্বব্যাংক থেকে অর্থ গ্রহণের ব্যবস্থা নেয়া হলে তা দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে ব্যবহার করা সম্ভব।

এক প্রশ্নের জবাবে সফিউল ইসলাম বলেন, এক অংকের সুদহার এখনও কার্যকর হয়েছে কি-না সে বিষয়ে এফবিসিসিআইয়ের কাছে কোনো তথ্য নেই। তবে সকল ব্যাংক দ্রুত তা কার্যকর করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। ফলে অর্থমন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ ব্যাংকেরও বিষয়টি বাস্তবায়নে দায়িত্ব রয়েছে। এসব নিয়ন্ত্রক সংস্থা নিশ্চয়ই প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবে ও সহযোগিতা করবে।

এফবিসিসিআই সভাপতি আরও বলেন, মুক্তবাজার মানে যে যা খুশি তা করবে সেরকম নয়। দেশের ও অর্থনীতির প্রয়োজনে সরকার পদক্ষেপ নিতে পারে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা মনে করে বর্তমানে ব্যাংক খাতে তারল্য সংকট নেই। ফলে নতুন সুদহার কার্যকর করা কঠিন নয়। 

আরেক প্রশ্নের জবাবে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, সুদহার কমানোই বিনিয়োগের জন্য যথেষ্ট নয়। দেশে ট্রাফিক জ্যাম আছে, বন্দরে সমস্যা আছে, অন্যান্য অবকাঠামোতে দুর্বলতা রয়েছে। ব্যবসায়ীরা এরমধ্য দিয়েই কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু এসব সমস্যা দূর করতে হবে। 

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সহসভাপতি মুনতাকিম আশরাফসহ অন্যান্য পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

ধানমণ্ডিতে সুপরিসর একটি ফ্ল্যাট কেনার উদ্যোগ নিয়েছিলেন ব্যবসায়ী আহাদুল ইসলাম। ...

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির বৃহস্পতিবারের সম্ভাব্য জনসভায় ২০ দলের শরিক জামায়াতে ইসলামীকে কৌশলগত ...

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফ্লাইটের এক কেবিন ক্রুর মাদক সেবন ও ...

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) একটি অথর্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে অপতৎপরতা ...

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

স্বাধীন সাংবাদিকতায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে- এমন সব ধারা-উপধারা বহাল ...

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

মিয়ানমার থেকে নানা কৌশলে ভিন্ন ভিন্ন রুট ব্যবহার করে সারা ...

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

হুট করেই ইমরুল কায়েস এশিয়া কাপের দলে ডাক পান। এরপর ...

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

বরিশালে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার অভিযোগ ...