মেঘের পাহাড় ছুঁয়ে

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সাদিয়া মুনমুন

ছোটপর্দার দর্শকনন্দিত অভিনেত্রী সুমাইয়া শিমু। মিষ্টি হাসির সরলতায় মুগ্ধতা ছড়ানো শিমুর বেড়ে ওঠা নড়াইলে। সম্প্রতি তিনি অভিনয়ে পার করলেন কুড়ি বছর। যে কোনো চরিত্রে মানানসই অভিনয়ের কারণে তিনি সবসময় ছিলেন আলোচিত অভিনেত্রীর তালিকায়। সমসাময়িক অন্যদের মতো একসঙ্গে খুব বেশি কাজ তিনি কখনোই করেন না। বৈচিত্র্যময় চরিত্রে অভিনয়ের প্রতিই তার ঝোঁক বেশি। ১৯৯৮ সালে অরণ্য আনোয়ার পরিচালিত 'এখানে আতর পাওয়া যায়' নাটকের মাধ্যমে মডেল শিমুর অভিনয়ে পথ চলা শুরু। নাটকটি প্রচারিত হয়েছিল ১৯৯৯ সালে। তবে তার অভিনয় জীবনের টার্নিং পয়েন্ট হলো ধারাবাহিক নাটক 'স্বপ্নচূড়া'। দীর্ঘদিন অভিনয়ে নিজের জায়গা ধরে রাখা নিয়ে শিমু বলেন, 'বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করতে হবে। একটি নির্দিষ্ট সীমানার মধ্যে থাকলে একসময় দর্শক তার কাছ থেকে দূরে সরে যাবে।' অভিনয়ের শুরুর দিকের কথা জানতে চাইলে স্মৃতির ঝাঁপি খুলে তিনি বলেন, 'প্রথম অভিনয় করার আগে আমি ভীষণ নার্ভাস ছিলাম। তবে তা ক্যামেরায় ধরা পড়েনি। ডলি (জহুর) আন্টি বলেছিলেন, মেয়েটা তো একদম পুতুলের মতো। আসলে আমাকে সবাই পুতুল বলেছিলেন, কারণ আমি শট শেষ হওয়ার পরও দাঁড়িয়ে সংলাপ বলতেই থাকতাম।'

অভিনয় জীবনের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অনেক প্রাপ্তি আছে শিমুর। কিন্তু কখনও কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে কি তার? প্রশ্ন কেড়ে নিয়ে শিমু বলেন, 'অভিনয়ের জন্য প্রথম ত্যাগ স্বীকার ছিল আমার নাম থেকে 'ল' বিয়োগ করা।' শিমুর পুরো নাম সুমাইয়া রহমান শিমুল। পরিবার ও কাছের মানুষের কাছে শিমুল নামেই তিনি পরিচিত। তবে নব্বইয়ের দশকের শেষ দিকে শিমু যখন অভিনয়ে এলেন, সেই সময় মডেল ও অভিনেতা মনির খান শিমুল টেলিভিশনের একজন পরিচিত মুখ। এ কারণে কয়েকজন নির্মাতার পরামর্শে নিজের নাম ছোট করে ফেলেন পরবর্তী সময়ে তারকা খ্যাতি পাওয়া মিডিয়ায় কাজের ব্যস্ততায় অনেকেই একাডেমিক পড়াশোনা চালিয়ে যেতে না পারলেও সুমাইয়া শিমু অনেকটাই আলাদা। শিমু জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগে পিএইচডি করছেন। এত গেল তার সাফল্যগাথার কথা; কিন্তু এদিকে শিমু খানিকটা অভিযোগ করে বলেন, 'অনেকে ভাবেন আমি বিয়ের পর দেশের বাইরে স্থায়ী হয়েছি। তথ্যটি ভুল। কারণ আমি দেশেই আছি। এখনও অভিনয় করছি।' নিয়মিত অভিনয় করছেন ঠিক, তবে টিভি পর্দা খুললেই মুগ্ধতা নিয়ে শিমুর অভিনয় দর্শকদের মাঝে যে অভ্যস্ততা তৈরি হয়েছিল, তার কিছুটা হয়তো ভাটা পড়েছে। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, 'অভিনয় আমার খুব ভালো লাগার একটা জায়গা। আগে অভিনয়ে প্রচুর সময় দিতাম। তখন আমার প্রথম অগ্রাধিকার ছিল অভিনয়। একটা সময় প্রচুর শুটিং করার কারণে ব্যক্তিগত জীবন থেকে অনেকটাই আলাদা হয়ে পড়েছিলাম। তখন আমি পরিবারে এবং সমাজের অনেক কাজেই ঠিকমতো সময় দিতে পারতাম না। তবে এখনও অভিনয়কে ভালোবাসি। ইদানীং নিজেকে একটু সময় দিতে ভালো লাগে।'

© সমকাল 2005 - 2018

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫, ৮৮৭০১৯৫, ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১, ৮৮৭৭০১৯৬, বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০ । ইমেইল: info@samakal.com