অবৈধ পাথর উত্তোলন নিয়ে দ্বন্দ্ব সিলেটে চেয়ারম্যানের পরিবারের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সিলেট ব্যুরো

সিলেটের পাথররাজ্য কোম্পানীগঞ্জে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের বিবদমান গ্রুপ ও থানা পুলিশের মধ্যে চলছে টানাপড়েন। একের পর এক হচ্ছে মামলা। দেওয়া হচ্ছে পাল্টা অভিযোগও। কোম্পানীগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল বাছিরের পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে ওইসব মামলা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

আওয়ামী লীগের এক পক্ষকে খুশি করতে থানা পুলিশ মিথ্যা অভিযোগ এনে মামলা দিচ্ছে। ওসির বিরুদ্ধে অভিযোগ, উপজেলা চেয়ারম্যান সংবাদ সম্মেলন করার পর তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে মামলা দিচ্ছেন। এমনকি সর্বশেষ রোববার শাহ আরেফিন টিলায় বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলনকালে হোসেন আহমদ নামে এক ব্যক্তিকে আটক করা হলেও মামলায় আসামি করা হয় ওই পরিবারের সদস্যদের। মামলাটি সুষ্ঠু তদন্ত ও ওসির অপসারণ দাবি করে গতকাল বুধবার সিলেটের ডিআইজির কাছে আবেদন করেছেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ছেলে ও পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি পাথর ব্যবসায়ী শামীম আহমদ। এর আগে তিনি ছাড়াও একাধিক ব্যক্তি পুলিশ সুপারের কাছে অন্যান্য মামলা তদন্ত করার আবেদন করেন।

গতকাল আবেদনে শামীম বলেন, ৯ সেপ্টেম্বর কোম্পানীগঞ্জের শাহ আরেফিন টিলায় এসিল্যান্ড মাসুদ রানা অভিযান চালিয়ে বোমা মেমিন ধ্বংস ও হোসেন নামে ওই পাথর ব্যবসায়ীকে আটক করেন। হোসেন পুলিশ লাঞ্ছনা মামলারও আসামি। কিন্তু পুলিশ বাদী হয়ে তাকে (শামীম) প্রধান আসামি ছাড়াও বড় ভাই বিল্লাল, ভাতিজা কেফায়েত, মাইনুল্লাহ

ও ভগ্নিপতি মামুন চৌধুরীকে আসামি করে। এর আগে ১৯ আগস্ট

থানার ওসি শামীমসহ পরিবারের সদস্যদেরও মামলায় আসামি করেন। এমনকি কলেজপড়ূয়া তার ভাতিজা জাকারিয়া ও কেফায়েতকেও আসামি করা হয়েছে।

অভিযোগে আরও বলা হয়, ওসি আবদুল হাইয়ের ঘুষ ও দুর্নীতির কারণে উপজেলার মানুষ অতিষ্ঠ। তার কারণে পাথররাজ্যের পরিবেশ ধ্বংস হচ্ছে। তিনি বোমা মেশিন মালিকদের কাছ থেকে ঘুষ নিয়ে রাতের আঁধারে মেশিন চালানোর সুযোগ করে দিচ্ছেন। যদিও ওসি এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

৬ সেপ্টেম্বর সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল বাছির প্রায় একই অভিযোগ করে জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ চান। এমনকি তিনি তার পরিবারের সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতাদের মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ এনে ওসির অপসারণ দাবি করেন।

উপজেলায় দলীয় কোন্দল ও মামলা প্রসঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, দলীয় কোন্দলের চেয়ে স্থানীয় অবস্থান ধরে রাখা নিয়ে বিরোধ বেশি সেখানে। তার পরও বিষয়টি দেখছি।







© সমকাল 2005 - 2018

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫, ৮৮৭০১৯৫, ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১, ৮৮৭৭০১৯৬, বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০ । ইমেইল: info@samakal.com