মুহূর্তেই হবে থ্রিডি প্রিন্ট

০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে থ্রিডি প্রিন্টিং। তবে থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের সীমাবদ্ধতা হচ্ছে এ পদ্ধতিতে দ্রুত প্রিন্ট করা যায় না। এটি বেশ সময় সাপেক্ষ। বড় কোনো পণ্য থ্রিডি প্রিন্টিংয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা এমনকি দিনও পেরিয়ে যায়। লিভারমোর লরেন ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির (এলএলএনএল) একদল গবেষক জানাচ্ছে, এখন থেকে ঘণ্টার পর ঘণ্টার বদলে নিমিষেই যে কোনো ধরনের অবজেক্ট থ্রিডি প্রযুক্তিতি প্রিন্ট করা যাবে। এজন্য গবেষক দলটি হলোগ্রামের মতো এক ধরনের লেজার ব্যবহারের কথা বলছেন যাতে মুহূর্তেই যে কোনো আকৃতির বস্তু থ্রিডিতে প্রিন্ট করা সম্ভব। গবেষক দল পদ্ধতিটিকে বলছেন, ভদ্মুমেট্রিক থ্রিডি প্রিন্টিং। গবেষণাটির সঙ্গে রসেস্ট্রি ইউনিভার্সিটি ও এমআইটি ও ইউসি বার্কলির মতো বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান সম্পৃক্ত রয়েছে। বতর্মানে লেয়ার পদ্ধতিতে এক ধরনের ফাইবার ব্যবহার করে থিডি প্রিন্ট করা হয়। এ পদ্ধতিতে কাঙ্ক্ষিত বস্তুটি ধীরে ধীরে আকার পেতে থাকে। তবে ভদ্মুমেটিক পদ্ধতিতে একবারেই সংশ্নিষ্ট বস্তুটি প্রিন্ট হয়ে যাবে। গবেষণাটি প্রয়োগ করা গেলে থ্রিডি প্রিন্টিংয়ে নতুন মাত্রা যোগ হবে। কেননা পদ্ধতিটি সময় ও খরচ কমিয়ে প্রিন্টিংয়ে নতুন বিল্পবের সূচনা করবে।

© সমকাল 2005 - 2018

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫, ৮৮৭০১৯৫, ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১, ৮৮৭৭০১৯৬, বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০ । ইমেইল: info@samakal.com