ঝুঁকিপূর্ণ ভবন অপসারণ অভিযান থমকে আছে

সিলেট সিটি করপোরেশন

প্রকাশ: ১৩ জানুয়ারি ২০১৮      

মুকিত রহমানী, সিলেট ব্যুরো

নগরীতে চিহ্নিত ৩২টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের মধ্যে তিনটি অপসারণ করেই হাত গুটিয়ে আছে সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক)। এক বছর ধরে বাকি ভবনগুলো অপসারণ বা ভাঙার কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। অবশ্য সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, এসব ভবন অপসারণ অভিযান বন্ধ হয়নি। অন্যান্য কার্যক্রমে জোর দেওয়ায় সাময়িকভাবে অভিযান করা হচ্ছে না। শিগগির আবার তা শুরু হবে।

সিসিক সূত্র জানায়, ২০০৫ সালের আগে সিলেট নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের কোনো তালিকা ছিল না। মাঝে মাঝে বড় ধরনের ভূমিকম্প হলে কিংবা কোনো ভবনে ফাটল দেখা দিলে নগর ভবন নড়েচড়ে বসত। বিচ্ছিন্নভাবে ওই সময় কয়েকটি ভবনকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করে তারা। ২০০৫ সালের পর আবার নতুন ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিতের দাবি ওঠে। সে সময় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী ও বিশেষজ্ঞদের দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিতকরণ কার্যক্রম শুরু করা হয়। বিশেষজ্ঞরা নগরীর ৩২টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেন। সেগুলো হচ্ছে- জেল রোডের সমবায় ব্যাংক ভবন, মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়, জিন্দাবাজারের কাস্টমস ও ভ্যাট অফিস ভবন, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের এসএ রেকর্ড অফিস, সুরমা মার্কেট, বন্দরবাজারের সিটি সুপার মার্কেট, জিন্দাবাজারের রহমান প্লাজা, মিতালী ম্যানশন, রাজা ম্যানশন, মিরাবাজারের মডেল স্কুল, সিলেট ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, কারিগরি ইনস্টিটিউট, মদিনা মার্কেট এলাকার কয়েকটি বাসা, দরগাহ গেটের আজমির হোটেল ও মাহমুদ কমপ্লেক্সের পেছনের বাসা, শেখঘাটের পুরনো পাসপোর্ট অফিস সংলগ্ন বাসা, মদনমোহন কলেজের নবনির্মিত ভবন, মধুবন মার্কেট, পূর্ব শাহি ঈদগাহের অনামিকা এ/৭০ (খান কুঞ্জ), কালাশীল এলাকার মান্নান ভিউ, শেখঘাটের শুভেচ্ছা-২২৬ নম্বর বাসা, চৌকিদেখির ৫১/৩ সরকার ভবন, যতরপুরের নবপুষ্প ২৬/এ, পুরনো লেনের শফিকুল হকের কিবরিয়া লজ, দক্ষিণ সুরমার ভার্থখলায় সিদ্দিক আলীর ভবন ও খারপাড়ায় মিতালী-৭৪ নম্বর বাসা। এর মধ্যে ২০১৬ সালে শেখঘাটের একটি বাসা, অগ্রগামী বালিকা বিদ্যালয় ভবন, সিসিক মালিকানাধীন মিউনিসিপ্যাল মার্কেটের অংশবিশেষ ও তাঁতিপাড়ার একটি বাসা অপসারণ করা হয়।

২০০৭ সাল থেকেই সিসিক ঝুঁকিপূর্ণ বিভিন্ন ভবন মালিক ও কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে আসছিল। ৮ বছর ধরে চিঠি চালাচালির পর ২০১৫ সালে ভবন অপসারণে উদ্যোগ নেয় সিসিক। এরপর বিভিন্ন স্থাপনা অপসারণ করা হলেও তালিকাভুক্ত বাকি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো ভাঙার কার্যক্রম আর এগোয়নি।

বিষয়টি নিয়ে সিসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান জানান, নগরীর বিভিন্ন রাস্তা সম্প্রসারণের কাজসহ অন্যান্য কাজ হচ্ছে। ফলে ঝুঁকিপূর্ণ ভবন অপসারণ আপাতত বন্ধ আছে। অচিরেই তা আবার শুরু হবে।
সবই কি 'চাষের মাছ'

সবই কি 'চাষের মাছ'

রাজধানীর মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাশের অস্থায়ী সান্ধ্য কাঁচাবাজারে এক মাছের ...

সম্পর্কে ঈর্ষা

সম্পর্কে ঈর্ষা

সম্পর্কে ঈর্ষা থাকবে, এটাই স্বাভাবিক। বিশেষ করে সঙ্গীর জন্য যদি ...

বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই: তোফায়েল

বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই: তোফায়েল

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, 'বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই। তারা ...

যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হবে 'বালিঘর'

যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত হবে 'বালিঘর'

আরও একটি যৌথ প্রযোজনা চলচ্চিত্রের ঘোষণা এলো। কলকাতার বর্তমান সময়ের ...

নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আ'লীগের ভরাডুবি হবে: ফখরুল

নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আ'লীগের ভরাডুবি হবে: ফখরুল

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন হলে এবং সব মানুষ ভোট দিতে ...

কুমারখালীতে ১৪৪ ধারা

কুমারখালীতে ১৪৪ ধারা

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে উপজেলা জাসদ ও ছাত্রলীগ একই স্থানে সভা ডাকায় ...

৮৮ বছর ধরে মাটি খাওয়া যার অভ্যাস

৮৮ বছর ধরে মাটি খাওয়া যার অভ্যাস

প্রতিদিন ভাত-রুটি না হলেও চলে কিন্তু মাটি না খেয়ে  একদিনও ...

পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান বসতে পারে মঙ্গলবার

পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান বসতে পারে মঙ্গলবার

চলতি সপ্তাহেই পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান বসানোর অপেক্ষায় রয়েছে সেতু ...