২০৩০ সালে মধ্যবিত্ত হবে ৩৩ শতাংশ

প্রকাশ: ০৬ নভেম্বর ২০১৫      

সমকাল প্রতিবেদক

দেশে মধ্যবিত্তের হার ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। গত দুই দশকে মধ্যবিত্ত জনসংখ্যা দ্বিগুণের বেশি বেড়ে ২০ শতাংশ হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৩৩ সালে মোট জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশ এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হবে। বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) এক গবেষণা প্রতিবেদনে এমন প্রাক্কলন করা হয়েছে।
গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বিআইডিএসের এক বছরের গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ নিয়ে আয়োজিত সেমিনারে 'বাংলাদেশে মধ্যবিত্তের আকার ও প্রবৃদ্ধি' বিষয়ে গবেষণা প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেন প্রতিষ্ঠানের গবেষণা পরিচালক ড. বিনায়ক সেন।
মধ্যবিত্ত শ্রেণী সংজ্ঞা নির্ধারণের বিষয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দৈনিক আয় দুই থেকে তিন ডলার হলে তাকে এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত বিবেচনা করা হয়েছে। উচ্চ মধ্যবিত্তের সীমা ধরা হয়েছে তিন থেকে চার ডলার।
বিনায়ক সেন বলেন, মাধ্যমিক পরবর্তী শিক্ষা, সেবাখাত ও প্রযুক্তিতে বেতনভিত্তিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং আর্থিক সঞ্চয়ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ব্যবহারের সুযোগের কারণে মধ্যবিত্তের আকার বাড়ছে। পাশাপাশি এটি আবার মধ্যবিত্ত নয়_ দরিদ্রও নয়, এমন জনসংখ্যার হার বাড়াচ্ছে। চাকরি নির্ভরতা কমিয়ে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর এক-পঞ্চমাংশ এখন ব্যবসা করছেন।
গবেষণার তথ্য উপস্থাপনকালে বিনায়ক সেন বলেন, ১৯৯০ সালের পরের ২০ বছরে মধ্যবিত্ত হয়েছে ২০ শতাংশ। এ সময় মধ্যবিক্ত শ্রেণীর বিকাশে দারিদ্র্য বিমোচন দ্রুত হয়েছে। জিডিপি প্রবৃদ্ধির বিপরীতে মধ্যবিত্তে পরিণত হওয়ার হিসাবের ভিত্তিতে ২০৩৩ সালে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা প্রাক্কলন করা হয়েছে।
গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে বিআইডিএস মিলনায়তনে আয়োজিত এ সেমিনারে সাতটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। সেমিনারের প্রথম অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে মধ্যবিত্ত শ্রেণীতে উন্নীত করতে অনেক কাজ বাকি। যত বেশি মধ্যবিত্ত তৈরি হবে, প্রবৃদ্ধি তত বেশি টেকসই হবে। হাওর অঞ্চল ও বেদে সম্প্রদায়ের মতো বাসিন্দাদেরও উন্নয়নের মূল স্রোতে আনতে হবে।
বিআইডিএসের মহাপরিচালক ড. কেএএস মুরশিদের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ড. শামসুল আলম, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন।
বিনায়ক সেন গবেষণার তথ্য তুলে ধরে বলেন, প্রাথমিক দরিদ্রসীমা ও নিম্ন মধ্যবিত্ত সীমা থেকে উত্তরণরত জনগোষ্ঠীর মধ্যে সামাজিক নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিসহ অন্যান্য বিষয়ে সমতা বিধান করা হবে আগামী দিনের অর্থনীতির অন্যতম চ্যালেঞ্জ।
গবেষণায় দেখা গেছে, দেশে মধ্যবিত্তদের ৪৮ দশমিক ৪ শতাংশ বা প্রায় অর্ধেকই বেসরকারি চাকরি করেন। ২০ শতাংশের বেশি সরকারি চাকরি করেন। মধ্যবিত্তদের মাত্র প্রায় ২২ শতাংশ ব্যবসা করেন। ২৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তানরা ইংরেজি মাধ্যমে ও দুই-তৃতীয়াংশ বাংলা মাধ্যমে পড়ে।
২০১২ সালের হিসাবে, মধ্যবিত্ত শ্রেণীর অর্ধেকই এখন জমির মালিক। ১৯৯২ সালে তাদের এক-চতুর্থাংশ জমির মালিক ছিলেন। অন্যদিকে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারেও মধ্যবিত্তের সম্পৃক্ততা বাড়ছে। ৬১ দশমিক ৩ শতাংশ বাসাবাড়িতে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন ও ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করেন।
সেমিনারে বিআইডিএসের গবেষণা পরিচালক ড. রুশিদান ইসলাম রহমান 'কর্মসংস্থান এবং শ্রমবাজার :কাঠামোগত পরিবর্তন ও আসল মজুরি বৃদ্ধি' শীর্ষক প্রতিবেদনে বলেন, স্থানীয় বাজারে ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও মজুরি বৃদ্ধির হার ইতিবাচক ছিল। তবে ২০১০ থেকে ২০১৩-এ সময়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টির হার আগের পাঁচ বছরের তুলনায় কমেছে। এ সময় কর্মসংস্থান সৃষ্টির পরিমাণ ছিল মাত্র ১৩ লাখ। পাশাপাশি দেশের বাইরে কর্মসংস্থান হয়েছে ৫ লাখের।
প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠ গবেষণা ফেলো নাজনীন আহমেদ 'পোশাক খাতে মজুরি বৃদ্ধি ও কর্ম পরিবেশ' শীর্ষক প্রতিবেদনে রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পরে পোশাক খাতের পরিস্থিতি তুলে ধরে বলেন, ক্রেতা এবং খুচরা বিক্রেতারা একটি পোশাকে ৭৫ থেকে ৮৮ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফা পান। তাই এ খাতের সামাজিক অগ্রগতির দায়িত্ব তারা এড়াতে পারেন না।
ড. আবুল বাশারের 'বিদেশে কর্মসংস্থানের সন্ধানে বাংলাদেশ থেকে কারা যায়?'- গবেষণায় দেখা যায়, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের লোকজন তুলনামূলকভাবে বিদেশে কর্মসংস্থানের বিষয়ে উৎসাহিত।
আরও গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিআইডিএসের জ্যেষ্ঠ পরিচালক ড. আনোয়ারা বেগম ('জেন্ডার ইন এডুকেশন : পলিসি ডিসকোর্স অ্যান্ড চ্যালেঞ্জ') এবং জ্যেষ্ঠ গবেষণা ফেলো ড. মঞ্জুর হোসেন ('ক্যাপিটাল ফ্লোস টু এলডিসি :লেসন ফর বাংলাদেশ ')।

পরবর্তী খবর পড়ুন : বিজেপি একক বৃহত্তম দল

ভারতের শ্বাস রুদ্ধ করে ’টাই’ আফগানদের

ভারতের শ্বাস রুদ্ধ করে ’টাই’ আফগানদের

ভারত 'বধ' করেই ফেলেছিল আফগানিস্তান। কিন্তু ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত টাই ...

পল্টন-সোহরাওয়ার্দী কোনোটাই পাচ্ছে না বিএনপি

পল্টন-সোহরাওয়ার্দী কোনোটাই পাচ্ছে না বিএনপি

আগামীকাল বৃহস্পতিবার প্রথমে রাজধানীতে জনসভা করার ঘোষণা দিয়েছিল বিএনপি। ওইদিন ...

শীর্ষ চার রুশ ব্লগার বাংলাদেশে

শীর্ষ চার রুশ ব্লগার বাংলাদেশে

বাংলাদেশের পর্যটন সম্ভাবনাকে রাশিয়ার জনগণের সামনে তুলে ধরা এবং দ্বিপক্ষীয় ...

ভূমিহীনের জন্য বরাদ্দ জমিতে বড়লোকের পুকুর

ভূমিহীনের জন্য বরাদ্দ জমিতে বড়লোকের পুকুর

মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরে তা বিক্রি করে সংসার চলতো ভূমিহীন ...

জাতীয় ঐক্যকে চাপে রাখবে আ'লীগ ও ১৪ দলীয় জোট

জাতীয় ঐক্যকে চাপে রাখবে আ'লীগ ও ১৪ দলীয় জোট

শুরুতে স্বাগত জানালেও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া গঠন এবং সরকারবিরোধীদের নিয়ে ...

জিততেই হবে আজ

জিততেই হবে আজ

অতীতের ভুল তারা কখনোই স্বীকার করে না। মানতে চায় না ...

প্রশাসনে নির্বাচনী রদবদল

প্রশাসনে নির্বাচনী রদবদল

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রশাসন সাজানোর উদ্যোগ নিয়েছে ...

বিএনপির সমাবেশের পর ঐক্যের লিয়াজো কমিটি

বিএনপির সমাবেশের পর ঐক্যের লিয়াজো কমিটি

আগামী শনিবার বিএনপির সমাবেশের পর 'বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের' লিয়াজো কমিটি ...