বিদ্যুৎ খাতে অর্জন

উৎসবের মাঝেও অস্বস্তি

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

বাংলাদেশে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২০ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়ে গেছে- এটা উদযাপনের বিষয় বৈকি। শেখ হাসিনার সরকার এর আগে এ ক্ষমতা ১০ হাজার ও ১৫ হাজার মেগাওয়াটে পৌঁছানোর পরও আতশবাজি ফুটেছে, আলোকের ঝর্ণাধারা দেখে আমরা মুগ্ধ হয়েছি। তবে বিশেষভাবে অনেক এলাকায় কিন্তু রাজধানী ঢাকা কিংবা বড় বড় শহরের মতো প্রায় লোডশেডিংমুক্ত পরিস্থিতি নেই। বিদ্যুৎ বিভাগের উদযাপনের আয়োজন তাদের কাছে পরিহাসও মনে হতে পারে।

নতুন অর্জন উপলক্ষে বিদ্যুৎ বিভাগ রাজধানীতে বিশেষ মেলার আয়োজন করেছে। সেখানে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিষয়ে নানা বয়সের নারী-পুরুষের কৌতূহল মেটানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এমনকি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বিষয়েও দর্শনার্থীরা জানতে পারছেন। শুভ উদ্যোগ সন্দেহ নেই। ১০ বছরেরও কম সময়ে উৎপাদন ক্ষমতা চার গুণ বৃদ্ধি করতে পারার জন্য অবদান রেখেছেন অনেকে। তবে বিদ্যুৎ এমন একটি পণ্য, যা নিয়ে প্রত্যাশার শেষ নেই। প্রতিদিন নয়, বলা যায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে এ চাহিদা। সরকার ও বেসরকারি খাতের যারা এ মহৎ কর্মকাণ্ডে যুক্ত তারা সব সময় এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না। এটাই স্বাভাবিক। বিদ্যুতের চাহিদা উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে মোটামুটি স্থিতিশীল। কিন্তু স্বল্পোন্নত দেশগুলোতে এটা হওয়ার নয়। একটি নতুন কেন্দ্র উদ্বোধন করতে না করতেই আরেকটি কেন্দ্র চালুর জন্য প্রস্তুত হতে হয়। আমাদের আরও একটি সমস্যা- বিতরণ ব্যবস্থার আয়োজন উৎপাদন ক্ষমতার তুলনায় বেশ কম। এ বিষয়ে সমতা অর্জন গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। নতুন বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন ব্যয়বহুল। যদি পূর্ণ ক্ষমতায় উৎপাদন সম্ভব না হয়, তাহলে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে হয়। অথচ আমাদের উৎপাদন ক্ষমতার তুলনায় প্রকৃত উৎপাদন অন্তত এক-তৃতীয়াংশ কম। আরেকটি বিষয়ও গুরুত্বপূর্ণ- ব্যক্তিগত কিংবা শিল্প-বাণিজ্যের বিভিন্ন উদ্যোগ, যেখানেই বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হোক না কেন, সবার দাবি থাকে চার্জ বা মূল্য যতটা সম্ভব কম রাখা। সঙ্গত কারণেই কেন্দ্র নির্মাণ ও বিতরণ ব্যবস্থার ব্যয় যতটা সম্ভব কমিয়ে রাখার প্রতি আরও মনোযোগ চাই। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। কিন্তু তাদের কাছ থেকে উৎপাদিত বিদ্যুৎ কিনে নিয়ে বিতরণের কাজটি করে থাকে সরকার। সরকার যে দামে বিদ্যুৎ কেনে, সেই দামে বিক্রি করতে না পারলে দায় চাপে জাতীয় বাজেটে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সংযমী হওয়ার আবেদনের পাশাপাশি সরকারি ভর্তুকি কমিয়ে আনার বিষয়টির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। সন্দেহ নেই, বিষয়টি অতিমাত্রায় স্পর্শকাতর। এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন এ নিয়ে গণশুনানির আয়োজন করেছে বিভিন্ন সময়ে। বিদ্যুৎ উৎপাদন ও সঞ্চালন ব্যয় বাড়ছে, সেটাও জানা কথা। কিন্তু যুক্তি যতই থাকুক, বিদ্যুৎ কিংবা গ্যাসের মতো অপরিহার্য সেবার মূল্য বাড়ানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ মোটেই সহজ নয়। বিশেষ করে সাধারণ নির্বাচনের বছরে এমন পদক্ষেপ গ্রহণের কথা ভাবা হলে এমনকি ক্ষমতাসীন দল ও জোটের ভেতর থেকেও বাধা আসা স্বাভাবিক। সাফল্যের উদযাপনের মধ্যেও তাই সরকারকে খুঁজে নিতে হয় সাবধানী পথ।

পরবর্তী খবর পড়ুন : চিঠিপত্র

কবরীর  বাসায় ১৭ লাখ টাকা চুরি!

কবরীর বাসায় ১৭ লাখ টাকা চুরি!

ঢাকাই চলচ্চিত্রের একসময়ের জনপ্রিয় নায়িকা সারাহ বেগম কবরীর গুলশানের বাসায় ...

কোমর-পিঠ ব্যথায় কার্যকর ব্যায়াম

কোমর-পিঠ ব্যথায় কার্যকর ব্যায়াম

কোমর ও পিঠে ব্যথার সমস্যা খুব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ...

'আসল' খেলায় জ্বলে উঠুক টাইগাররা

'আসল' খেলায় জ্বলে উঠুক টাইগাররা

আকাশছোঁয়া অট্টালিকার সারি, ঝকঝকে শপিংমল, এমিরেটসের বৈভব ভরা বিমান মহল- ...

প্রেমের জন্য...

প্রেমের জন্য...

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে প্রেমিকের সঙ্গে অভিমান করে মায়া আক্তার (১৬) নামে ...

আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিল শুরু

আশুরা উপলক্ষে তাজিয়া মিছিল শুরু

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে শিয়া সম্প্রদায়ের তাজিয়া মিছিল শুরু হয়েছে। শুক্রবার ...

জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কের পথে প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কের পথে প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগ দিতে সপ্তাহব্যাপী সরকারি সফরে ...

রাঙামাটিতে ইউপিডিএফের ২ কর্মীকে গুলি করে হত্যা

রাঙামাটিতে ইউপিডিএফের ২ কর্মীকে গুলি করে হত্যা

রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলায় পাহাড়ি সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) দুই ...

একক নয়, যৌথ নেতৃত্ব

একক নয়, যৌথ নেতৃত্ব

অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে চলতি মাসেই আত্মপ্রকাশ ...