চিঠিপত্র

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

অরক্ষিত রেলক্রসিং

রেলক্রসিংগুলোয় দেখা গেল, ট্রেন আসার কয়েক সেকেন্ড আগেও প্রতিবন্ধকের নিচ দিয়ে কসরত করে বের হওয়ার চেষ্টা করেন মোটরসাইকেলচালকরা। ফ্লাইওভারের ওপরও উল্টো পথে চলে মোটরসাইকেল, সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও অন্যান্য যানবাহন। যত্রতত্র পার্কিংয়ের কারণে এখনও সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। তাহলে এ বিশৃঙ্খলার সমাধান কী? এ ব্যাপারে গণপরিবহন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, কেবল গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা ও আটক কোনো সমাধান নয়। এর জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক সদিচ্ছা ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর ভূমিকা। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে অনেক অরক্ষিত রেলক্রসিং রয়েছে। এসব রেলক্রসিংয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের আশু দৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন।

শফিউল আল শামীম

শিক্ষার্থী, ঢাকা কলেজ

প্রবাসে শ্রমিকদের বিড়ম্বনা

রেমিট্যান্স বৃদ্ধিতে প্রবাসী বাঙালিদের অবদান অনস্বীকার্য। কিন্তু ইদানীং প্রবাসী বাঙালিদের নির্যাতনের খবর আমাদের ভাবিয়ে তুলছে। প্রবাসী বাঙালি পুরুষ শ্রমিকরা আজ কাজ পাচ্ছেন না। লাখ লাখ টাকা খরচ করে বিদেশ যাচ্ছেন অথচ সেখানে কর্তৃপক্ষ যে সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার কথা তা দিচ্ছে না। ফলে বাঙালি শ্রমিকরা চরম অসহায়ত্ব বরণ করে দিন কাটাচ্ছেন দুঃখ কষ্টে। অনেকে জায়গা-জমি বিক্রি করে সর্বহারা হয়ে বিদেশে যাচ্ছেন অধিক টাকা আয়ের আশায়। কিন্তু সেখানে গিয়ে যদি কাজে জটিলতা সৃষ্টি হয় বা সময়মতো কাজ না পাওয়া যায় তাহলে বিদেশ যাওয়া শ্রমিকরা এ দুঃখ রাখবে কোথায়? অনেকের আবার বিদেশে বৈধ কাগজপত্র না থাকার কারণে জেলে যেতে হচ্ছে। অনেক নারী দালালদের খপ্পরে পড়ে বিদেশে টাকা উপার্জনের জন্য পাড়ি জমান। ক'দিন যেতে না যেতে এই নারী শ্রমিকরা বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হয়ে থাকেন। এ অবস্থায় সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিদেশে বা প্রবাসে থাকা সব বাঙালির ওপর সঠিক নজর রাখতে হবে। নির্যাতিত সব শ্রমিককে দেশে এনে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। অসাধু দালালদের আইনের আওতায় আনতে এনে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। নারী শ্রমিক পাঠানোর আগে ভাবতে হবে, নারীদের সঠিক দায়িত্ব ও সুযোগ-সুবিধা পাবে কি-না? বিদেশে শ্রমিক পাঠানোর আগে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে সচেতন হতে হবে আর তা না হলে প্রবাসী বাঙালিদের দুঃখ কমবে না।

তাইফুর রহমান মুন্না, মোরেলগঞ্জ,বাগেরহাট

পরবর্তী খবর পড়ুন : প্রাণ কাঁদে এখনও...

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

বিএনপির সাবেক মন্ত্রী ও তৃণমূল বিএনপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার ...

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় অভাবী মানুষের কিডনি বেচাকেনা আবারও বেড়েছে। অভাবের ...

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার দু'পক্ষের ...

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা'আতুল মুজাহিদীন অব বাংলাদেশকে (জেএমবি) চাঙ্গা ...

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক রাত ১১টার পর বন্ধ করে দেয়া ...

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা বাংলাদেশ প্রস্তুতি হিসেবে নিচ্ছে। এমন একটা কথা ...

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

ইউনিসেফ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও), জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিভাগ ও বিশ্ব ...

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

লিজা আক্তার। বয়স মাত্র ৬ বছর। চোখের সামনে বাবা ট্রেনে ...