চিঠিপত্র

প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

আবাসিক সংকট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের প্রায় সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসিক সংকট বর্তমানে চরমে পৌঁছেছে। প্রথম বর্ষের ছাত্রছাত্রীরা সাধারণত হলগুলোতে সিট পায় না। দ্বিতীয় বর্ষ থেকে সিট পেলেও চার সিটের একটি কক্ষে ১২-১৩ জন অবস্থান করার কারণে ফ্লোরে ঘুমাতে হয় আরও এক বছর। তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের ছাত্রনেতাদের পরামর্শের ভিত্তিতে আসন নিশ্চিত করা হয়। এই পরিস্থিতিতে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আগত দারিদ্র্য ছাত্রছাত্রীদের হলে থাকার জন্য ছাত্রনেতাদের কথায় ওঠবস করতে হয়। তৃতীয় বর্ষে এসেও একটি সিটের আশায় চিন্তিত থাকে দেশসেরা মেধাবীরা। ছাত্রনেতারা এ সময়ও সিট দেওয়ার ক্ষেত্রে এলাকাপ্রীতি ও স্বজনপ্রীতির আশ্রয় নেন। যে কারণে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা প্রচণ্ড মানসিক যন্ত্রণা ও প্রতারণার শিকার হয়। একটি কক্ষে ২০-২৫ জনকে চরম মানবিক বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে দুটি বছর অতিবাহিত করেও যখন তৃতীয় বর্ষে এসে সিট পেতে প্রতারণার শিকার হতে হয়, তখন লেখাপড়ার প্রতি উৎসাহ হারিয়ে ফেলে অনেকেই। বর্তমানে এই পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এমতাবস্থায়, সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের প্রথম বর্ষ থেকেই বৈধ সিটের ব্যবস্থা করে একই সঙ্গে হলের সিট বণ্টনে রাজনৈতিক দাপটের পরিবর্তে প্রশাসনের ভূমিকা দেখতে চাই।

আমিরুল ইসলাম

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

খাদ্যে ভেজাল নয়

দেশের অধিকাংশ বাজারে ব্যবসায়ীরা খাদ্যের সঙ্গে ভেজাল মিশিয়ে বিক্রি করে। এ ক্ষেত্রে ফলের দোকানের কথা না বললেই নয়। বিভিন্ন মৌসুমি ফলের সঙ্গে ফরমালিন মিশিয়ে ফলকে টাটকা করে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছে। আবার ফুটপাতের হোটেলগুলোর দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায়, মরা মুরগির গোশত দিয়ে রান্না করে মানুষকে খাওয়ানো হচ্ছে। তারা মানসম্মত খাবার পরিবেশনের কথা বলে মানুষকে ভেজাল খাদ্য পরিবেশন করছে। ফলে এসব ভেজাল খাদ্য খাওয়ার ফলে মানুষের স্বাস্থ্যের বিরাট ক্ষতি হয়। অনেক সময় দেখা যায়, শিশুদের ডানো গুঁড়া দুধের ভেতরও ভেজাল মিশিয়ে দুধ তৈরি করে বাজারে বিক্রি করে। এসব গুঁড়া দুধ শিশুদের খাওয়ানোর ফলে তাদের মারাত্মক ক্ষতি হয়। অনেক সময় শিশু মারা যায়। তাই এসব ভেজাল মেশানো কারখানা বন্ধ করা, উৎপাদনকারীদের ও অসাধু বিক্রেতাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করুন।

মকবুল হামিদ

চাঁদপুর সদর, চাঁদপুর



পাসপোর্ট করার ক্ষেত্রে দালাল মুক্তি চাই



বহিরাগমনের জন্য আমরা পাসপোর্ট আবেদন করে থাকি সংশ্নিষ্ট আঞ্চলিক অফিসে। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, কিছু অসেচতন নাগরিক অসাধু দালালের মাধ্যমে বাড়তি অঙ্কের বিনিময়ে পাসপোর্ট নিয়ে থাকে এবং পাসপোর্ট আবেদন পর্যন্ত নিজে না করে দালালের মাধ্যমে করার ফলে অনেক ধরনের ভুলভ্রান্তিসহ নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হয় পরবর্তী সময়ে। আমাদের মুখে মুখে প্রচলিত হয়েছে যে, দালাল ছাড়া পাসপোর্ট অফিসে পাসপোর্ট মেলে অনেক দেরিতে; কিন্তু এ কথা কতটুকু বাস্তব, তা আমরা খতিয়ে দেখিনি। যদি আমরা সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দালালবিহীন নিজের পাসপোর্ট নিজে আবেদন করে পাসপোর্ট অফিসে নিয়ে যা, তাহলে দালালের দৌরাত্ম্যও কমবে এবং পাসপোর্ট অফিসের ওই বিষয় সংক্রান্ত নানা বিষয়ে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে বলে মনে করি।

আলতাফ হোসেন হৃদয় খান

অক্সিজেন, চট্টগ্রাম

///////////////////



ুজীববৈচিত্র্য রক্ষায? এগিয?ে আসুনচ্

কচ্ছপ একধরনের সরীসৃপ যারা পানি এবং ডাঙা দুই জায?গাতেই বাস করে। এদের শরীরের উপরিভাগ শক্ত খোলসে আবৃত থাকে যা তাদের শরীরকে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে রক্ষা করে। কচ্ছপ পৃথিবীতে এখনও বর্তমান এমন প্রাচীন প্রাণীদের মধ্যে অন্যতম। বর্তমানে কচ্ছপের প্রায? ৩০০ প্রজাতি পৃথিবীতে রয?েছে, এদের মধ্যে কিছু প্রজাতি মারাত্মক ভাবে বিলুপ্তির পথে রয?েছে। কচ্ছপ বিভিন্ন পরিস্থিতিতে তার নিজের শরীরের অভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা পরিবর্তন করতে পারে, সাধারণত এ ধরনের প্রাণীদের ঠান্ডা-রক্তের প্রাণী বলে অভিহিত করা হয?। অন্যান্য প্রাণীর মত এরা নিশ্বাস গ্রহণ করে। কচ্ছপের অনেক প্রজাতি পানিতে বা পানির আশেপাশে বাস করলেও এরা ডাঙায? ডিম ছাড?ে।কচ্ছপ (ঞড়ৎঃড়রংব) ঞবংঃঁফরহবং বর্গের অন্তর্গত ডাঙ্গায? বসবাসকারী সরীসৃপ। এদের দেহ খোলসদ্বারা আবৃত থাকে। খোলসের উপরের অংশকে ঈধৎধঢ়ধপব(ক্যারাপেস) এবং নিচের অংশকে চষধংঃৎড়হ(পল্গাসট্রন )বলে।এরা কয?েক সে.মি. থেকে ২ মিটার পর্যন্ত বড? হতে পারে। এরা সাধারণত দিবাচর প্রাণী তবে তাপমাত্রার উপর নির্ভর করে তারা গোধূলীতেও সক্রিয? হয?ে থাকে। তারা সাধারণত দলবদ্ধ প্রাণী নয? এবং একাকি জীবন যাপন করে থাকে। যদিও "ঞড়ৎঃড়রংব" শব্দটি জীববিজ্ঞানীরা ঞবংঃঁফরহরফধব গোত্রের প্রাণীদের বোঝাতে ব্যবহার করে থাকেন তবে সাধারনভাবে ডাঙ্গায? বসবাসকারী ঞবংঃঁফরহবং দের বোঝাতে শব্দটি ব্যবহূত হয?ে থাকে। প্রতিবছর শীত মৌসুমে (ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত) মা কচ্ছপ গভীর সমুদ্র থেকে ডিম পাড?তে উপকূলের বালুচরে আসে। কিন্তু উপকূলে পুঁতে রাখা জেলেদের জালে আটকা পড?ে মা কচ্ছপ মারা যাচ্ছে। কিছু কচ্ছপ সাঁতরে কূলে উঠলেও ডিম ছাড?তে পারছে না। ক্লান্ত কচ্ছপগুলো উপকূলে এসেই কুকুরের আক্রমণের শিকার হচ্ছে,তারপর মারা যাচ্ছে। মানুষের বেশী আনাগোনা, লাইটিং ইত্যাদী কারণে যথা সময়ে ডিম পাড়তে বিঘ্‌ন সৃষ্টি হলেও মারা যেতে পারে।মানুষের খাদ্য হিসাবে কচ্ছপের ব্যবহার দিন দিন বাড়তে থাকায় অতিরিক্ত আহরণ ও পরিবেশের বিপর্যয়ের দরুন বাংলাদেশে কচ্ছপের জীববৈচিত্র্য আজ হুমকির সম্মুখীন। তাছাড়াও কচ্ছপ রপ্তানী পণ্য বিধায় প্রতি বছর এর সংখ্যা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাচ্ছে।

উপরন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়টিও রয়েছে।

মূলত ভারত মহাসাগর ও দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরে এদের অবস্থান। তবে এদের প্রধান বাসস্থান হল বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপ, সুন্দরবন এবং অন্যান্য বঙ্গপসাগরে অবস্থিত দ্বীপসমূহে।কচ্ছপের বাসস্থানের বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা ও ভারসাম্যপূর্ণ আহরণ নিশ্চিত করতে না পারলে শীঘ্রই এদের অস্তিত্ব বিলুপ্ত হয়ে পড়বে।

উলেল্গখ্য সারা বিশ্বে যেখানে মাত্র ৩০০ প্রজাতির কচ্ছপ রয়েছে তারমধ্যে শুধু আমাদের দেশেই আছে ২৮ প্রজাতির কচ্ছপ।জীববৈচিত্র্যের দিক থেকে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ অর্থ বহন করে।সচেতনতার অভাবে আমরা ইতিমধ্যেই অনেকগুলো প্রজাতির বন্যপ্রাণী প্রকৃতি থেকে হারিয়ে ফেলেছি। এভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশ থেকে সব প্রজাতির বন্যপ্রাণী বিলুপ্ত হয়ে যাবে। তাই বন্যপ্রাণী রক্ষার জন্য গণসচেতনতা ও আইনের সঠিক প্রয়োগ অত্যন্ত জরুরী।



জোবায়ের মাছুম

ফিশারিজ এন্ড মেরিন সায়েন্স বিভাগ,

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয?।









৪৭ বছর ধরে ‘নাগরিকত্বহীন’ জীবন ছকিনার

৪৭ বছর ধরে ‘নাগরিকত্বহীন’ জীবন ছকিনার

জন্ম বাংলাদেশে, বেড়ে ওঠাও এ দেশের মাটিতে তবুও তার নেই ...

বৃহস্পতিবার রাজধানীতে সমাবেশ করার ঘোষণা বিএনপির

বৃহস্পতিবার রাজধানীতে সমাবেশ করার ঘোষণা বিএনপির

রাজধানীতে আগামী বৃহস্পতিবার সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।সোমবার রাজধানীর নয়া ...

সেরা দশ সুন্দরী পাওয়া  গেলো

সেরা দশ সুন্দরী পাওয়া গেলো

চলছে 'মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০১৮’ এর  সেরা সুন্দরী বাচাই পর্ব। দ্বিতীয়বারের ...

ক্যান্সারের ঝুঁকি  বাড়ে যেসব কারণে

ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে যেসব কারণে

বিশ্বব্যাপী ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। পুরুষদের মধ্যে ফুসফুস, ...

চুল, ত্বক ও শরীরের যত্নে তেল

চুল, ত্বক ও শরীরের যত্নে তেল

যুগ যুগ ধরে রূপচর্চায় প্রসাধনী হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে ফুল, ...

মিরপুর ও মাদারীপুরে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ২

মিরপুর ও মাদারীপুরে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ২

রাজধানীর মিরপুরে র‌্যাবের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' আসাদুল হক (৩০) নামের এক ...

সন্তানদের জন্য দুধ কিনতে গিয়ে লাশ হলেন বাবা

সন্তানদের জন্য দুধ কিনতে গিয়ে লাশ হলেন বাবা

মাগুরায় কাভার্ড ভ্যানের চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। সোমবার ...

জাতীয় ঐক্যের ভবিষ্যৎ কী

জাতীয় ঐক্যের ভবিষ্যৎ কী

বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক জোট-মহাজোট থাকার পর আবারও নতুন করে 'জাতীয় ...