মানববন্ধন থেকে আটক শতাধিক

তফসিল ঘোষণার আগে দাবি মেনে নিন: বিএনপি

প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

তফসিল ঘোষণার আগে দাবি মেনে নিন: বিএনপি

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপির মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর- সমকাল

একাদশ জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ সব দাবি মেনে নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি নেতারা। তারা বলেছেন, তফসিল ঘোষণার আগে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, জাতীয় সংসদ ভেঙে দিতে হবে, নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে, নির্বাচনের দায়িত্বে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে এবং নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) পুনর্গঠন করতে হবে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গতকাল সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে দলের নেতারা এসব দাবি জানান। ঢাকার পাশাপাশি সারাদেশে মহানগর ও জেলা সদরে একযোগে এ কর্মসূচি পালন করেন দলটির নেতাকর্মীরা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বেলা ১১টা থেকে এক ঘণ্টার এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল থেকেই প্রেস ক্লাবের ফুটপাতসহ সড়কের দুই প্রান্তে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে মানববন্ধন কর্মসূচি সমাবেশে পরিণত হয়। এর ফলে আশপাশে যানজটও সৃষ্টি হয়। বিএনপির কেন্দ্রীয় এ কর্মসূচিতে আসার পথে এবং কর্মসূচি শেষে যাওয়ার সময় শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা আবদুল মতিনসহ ঢাকা মহানগর বিএনপি এবং দলের বিভিন্ন  সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন নেতাকর্মী।

মানববন্ধনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে আটক রাখা হয়েছে। তার মুক্তির জন্য কোনো দয়া ভিক্ষা চাচ্ছি না। তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। অব্যশই তাকে মুক্তি দিতে হবে। মুক্তি তার আইনগত প্রাপ্য।

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে কোনো নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না বলেও দাবি করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, তাকে মুক্তি দিলে বোঝা যাবে- সরকার দেশে নির্বাচন চায়। এ সময় তিনি সব রাজনৈতিক দলকে বৃহত্তর ঐক্যে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

সরকারের দমন-পীড়নের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার এখন একটা সন্ত্রাসী সরকারে পরিণত হয়েছে। একদিকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে অন্যদিকে বিনা কারণে গ্রেফতার, মামলা করে গোটা জাতিকে একটা জিম্মিতে পরিণত করেছে। সারাদেশে পরিকল্পিতভাবে ভৌতিক মামলা করে তারা বিরোধী নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে। সরকার ইতিমধ্যে এক লাখের বেশি মানুষকে আসামি করেছে, ১২ হাজার মানুষকে গ্রেফতার করেছে। এভাবে মিথ্যা মামলা দিয়ে; গুম-খুন ও নির্যাতন করে কোনোদিন ক্ষমতায় টিকে থাকা যাবে না।

মানববন্ধনে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এ সরকারের একটাই উদ্দেশ্য- দেশনেত্রী ও বিএনপিকে বাদ দিয়ে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন করা। কিন্তু দেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ। তাই এ দেশে আগামী নির্বাচন হতে হবে নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, খালেদা জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে হবে। তাকে মুক্ত করে সব দাবি আদায় করে নির্বাচনে যাবে বিএনপি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে কারাগারে এবং বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রেখে নির্বাচনী বৈতরণী পার করতে চায়। কিন্তু জনগণ তা হতে দেবে না।

দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, এই সরকার বিএনপি চেয়ারপারসনের মৌলিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। কারাগারের ভেতরে ক্যামেরা ট্রায়ালের ব্যবস্থা নিয়েছে, যা সংবিধান পরিপন্থী। কারাগারের মধ্যে আদালত চলতে পারে না।

দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদের পরিচালনায় মানববন্ধনে ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, বরকত উল্লাহ বুলু, এজেডএম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, শওকত মাহমুদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবীর খোকন, নাজিমউদ্দিন আলমসহ দলের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও ২০ দলীয় জোটের নেতারা বক্তব্য দেন।

এ ছাড়া মানববন্ধনে বিএনপির মোহাম্মদ শাহজাহান, আবদুল আউয়াল মিন্টু, রুহুল আলম চৌধুরী, আতাউর রহমান ঢালী, আবদুল আউয়াল খান, জোটের শরিক জাগপার খোন্দকার লুৎফর রহমান, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহিউদ্দিন ইকরামসহ দলটির কেন্দ্রীয় ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বিএনপির এ মানববন্ধন কর্মসূচিকে ঘিরে গতকাল সকাল ১০টা থেকেই জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকার আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যদের মোতায়েন করা হয়। এ ছাড়া পুলিশের সাঁজোয়া যান ও জলকামানের গাড়িও প্রস্তুত রাখা হয়।

বিএনপির কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে একই দাবিতে বিভাগীয় শহর চট্টগ্রাম, বরিশাল, খুলনা, রংপুর, সিলেট, রাজশাহী ছাড়াও দেশের প্রত্যেক জেলা শহরে এ কর্মসূচি পালন করেন দলটির নেতাকর্মীরা।

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে তিন দিনের কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামীকাল বুধবার দুই ঘণ্টার প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি। ঢাকার রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন প্রাঙ্গণ অথবা গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে এদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত প্রতীকী অনশনের জন্য সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছে দলটি।

প্রার্থীদের হলফনামায় চোখ রাখবে দুদক

প্রার্থীদের হলফনামায় চোখ রাখবে দুদক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের হলফনামার সম্পদের হিসাবে নজর ...

সময় শেষ ব্যানার-পোস্টার সরেনি

সময় শেষ ব্যানার-পোস্টার সরেনি

সুষ্ঠু নির্বাচন ও প্রার্থীদের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির জন্য ...

হাল ছাড়েননি বাদপড়ারা চলছে চেষ্টা-তদবির

হাল ছাড়েননি বাদপড়ারা চলছে চেষ্টা-তদবির

আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য তালিকা থেকে বাদ পড়া দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীরা এখনও ...

মিশ্র প্রতিক্রিয়া আইনজ্ঞদের

মিশ্র প্রতিক্রিয়া আইনজ্ঞদের

দুর্নীতির দুটি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ১০ ও ৭ ...

বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া যাবে না

বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া যাবে না

দল থেকে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে, তার পক্ষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে ...

ধানের শীষের প্রতীক্ষায় শতাধিক ব্যবসায়ী

ধানের শীষের প্রতীক্ষায় শতাধিক ব্যবসায়ী

জাতীয় সংসদে ব্যবসায়ী সাংসদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বর্তমান সংসদে ব্যবসায়ীদের ...

কিশোরগঞ্জের ৬ আসনের তিনটিতেই প্রার্থী পুত্ররা

কিশোরগঞ্জের ৬ আসনের তিনটিতেই প্রার্থী পুত্ররা

আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে কিশোরগঞ্জের ৬টি সংসদীয় আসনের তিনটিতেই উত্তরাধিকার আজ ...

বিএনপির অভিযোগ তদন্তে পুলিশ

বিএনপির অভিযোগ তদন্তে পুলিশ

প্রধানমন্ত্রী ও নির্বাচন কমিশনের কাছে বিএনপির পক্ষ থেকে 'গায়েবি ও ...