অভিমত

দলীয় সরকারের অভিজ্ঞতা সুখকর নয়

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ড. বদিউল আলম মজুমদার

নির্বাচনকালীন সরকার বলে বর্তমানে সংবিধানে কিছু নেই। এর অর্থ দাঁড়ায়, বর্তমানে যে সরকার ক্ষমতায় আছে, তাদের অধীনেই নির্বাচন হবে। তবে যেটা বোঝা যাচ্ছে, নির্বাচনের আগে হয়তো সরকারের আকার ছোট করা হবে। কিন্তু এতে কিছু যায়-আসে না। কারণ, সরকারের আকার ছোট হলেও তাদের হাতে সব ধরনের সাংবিধানিক বা আইনগত ক্ষমতা রয়েছে। সে কারণে সরকার এখনকার মতই পরিচালিত হবে। এখনকার মতো করেই প্রশাসন থেকে শুরু করে সবকিছুর কার্যক্রম চলবে।

আমাদের দেশে যে দলই ক্ষমতায় থাকুক না কেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের অতীত অভিজ্ঞতা সুখকর নয়। দলীয় সরকারের আমলে প্রশাসনে, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীতে দলীয়করণ হয়। দলীয় প্রশাসন দলের প্রতি প্রভাবিত থাকে এবং এর ফলে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে। সংবিধানে নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা না থাকার কারণে সেই চ্যালেঞ্জ থেকেই যাচ্ছে।

গত কয়েক বছরে যে ধরনের দলীয়করণ দেখা গেছে, তা প্রকাশ্য। কোনো রাখঢাক নেই। ফলে এই দলীয় প্রশাসন দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান নিয়ে সংশয় আগের চেয়েও বেশি জোরালো হয়েছে। কিন্তু এসবই আলোচনা-সমালোচনা। বাস্তবতা হচ্ছে, বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী বিদ্যমান সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানে বাধা নেই এবং সেটাই হতে যাচ্ছে। তারপরও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনকালীন সরকার শুধু রুটিন দায়িত্ব পালন করবে, কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেবে না। তার এ বক্তব্যই নির্বাচনকালীন সরকারের ক্ষেত্রে আদর্শিক বক্তব্য। কিন্তু সংবিধানে যেখানে নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব সম্পর্কে কোনো কিছুই বলা নেই, সেখানে এই আদর্শিক অবস্থানকে কতটা গুরুত্ব দেওয়া হবে, সেটাই প্রশ্ন।

সংবিধানের একটা অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, নির্বাচন কমিশন যেভাবে বলবে, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সরকারকে সেভাবেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। এটাও আসলে কেতাবের কথা। দলীয় সরকার পূর্ণ ক্ষমতা নিয়ে দায়িত্বে থাকলে এই কেতাবি বাক্য প্রকৃতপক্ষে গুরুত্ব বহন করে না।



বিবিসি’র অনুপ্রেরণাদায়ী নারীর তালিকায় হৃদয়ের মা

বিবিসি’র অনুপ্রেরণাদায়ী নারীর তালিকায় হৃদয়ের মা

বিবিসি’র অনুপ্রেরণাদায়ী ও প্রভাবশালী একশ নারীর তালিকায় স্থান পেয়েছেন সেই ...

মা-বাবা এমন নিষ্ঠুরও হয়!

মা-বাবা এমন নিষ্ঠুরও হয়!

নির্যাতিত শিশুর কথা শুনে তার বাড়ির রাস্তায় দাঁড়াতেই প্রতিবেশী শিরিনা ...

নিউইয়র্কে ডাকাত ধরতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশি

নিউইয়র্কে ডাকাত ধরতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশি

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ডাকাত ধরতে গিয়ে গুলি খেলেন বাংলাদেশি যুবক মোহাম্মদ ...

যশোরের বিএনপি নেতা আবু ঢাকায় 'অপহৃত'

যশোরের বিএনপি নেতা আবু ঢাকায় 'অপহৃত'

যশোর জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ ...

দেশে হঠাৎ বন্ধ স্কাইপি

দেশে হঠাৎ বন্ধ স্কাইপি

দেশে হঠাৎ করে সোমবার বিকেল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম স্কাইপি ...

জেনে-শুনে মন্তব্য করা উচিত: দুদক চেয়ারম্যান

জেনে-শুনে মন্তব্য করা উচিত: দুদক চেয়ারম্যান

'তদন্ত করলে দুদকেও দুর্নীতি বেরুবে'- জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানের ওই ...

আগাম প্রচার সামগ্রী সরানো না হলে জরিমানা: ইসি

আগাম প্রচার সামগ্রী সরানো না হলে জরিমানা: ইসি

জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে আগাম প্রচার সামগ্রী যারা সরাননি, তাদের জরিমানা ...

পুরুষের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার দাবি

পুরুষের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠার দাবি

'বৈষম্য নয় পুরুষের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠিত হোক' প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ...