অনুষ্ঠানে বিশিষ্টজন

সাধারণ মানুষের নেতা ছিলেন আবুল মনসুর

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

সাহিত্যিক, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ আবুল মনসুর আহমদ ছিলেন সাধারণ মানুষের নেতা। রাজনীতিতে সব সময় তাদের অধিকারের কথাই বলে গেছেন তিনি। আজীবন তার লক্ষ্য ছিল মানুষের কল্যাণ। তার জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল শনিবার আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ৩ সেপ্টেম্বর ছিল তার ১২০তম জন্মদিন।

আবুল মনসুর আহমদ প্রবন্ধ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও তার জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পরিষদ।

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। আলোচক ছিলেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষ, প্রাবন্ধিক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ ও অধ্যাপক মিজানুর রহমান। আলোচনায় আরও অংশ নেন অধ্যাপক চেঙ্গীশ খান, প্রাবন্ধিক মোহাম্মদ আজম ও সাংবাদিক কাজল রশীদ শাহীন। সমাপনী বক্তব্য দেন লেখকপুত্র দ্য ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম।

অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, বেশ কিছুকাল ধরে আমরা বছরে দুবার আবুল মনসুর আহমদের স্মরণসভা আয়োজন করে আসছি। এবার ব্যতিক্রম হচ্ছে তার সাহিত্যিক সত্তা, সাংবাদিকতা ও রাজনীতিমনস্কতা নিয়ে প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা। বিপুলসংখ্যক তরুণ-তরুণী এতে অংশ নিয়েছে, এটাই আনন্দের বিষয়।

তিনি বলেন, এখনও মনে করি, 'আয়না', 'ফুড কনফারেন্স' বাংলা সাহিত্যের অমর সৃষ্টি। বিশেষ করে আয়নার যেসব গল্প, তা লিখতে অসাধারণ সাহসিকতার দরকার হয়। তিনি সেই সাহস দেখিয়েছিলেন। সমাজের ত্রুটি সবার সামনে তুলে ধরেছিলেন। এটি তার একটি বড় অবদান।

রফিকুল ইসলাম বলেন, আবুল মনসুর আহমদের সমসাময়িক রাজনীতিবিদদের মধ্যে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক ও মওলানা ভাসানী লেখালেখি করতেন না। তাদের মধ্যে মওলানা আকরম খাঁ ও আবুল মনসুর আহমদই সচেতনভাবে লেখালেখি করেছিলেন।

সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, আবুল মনসুর আহমদ তার সময়ের রাজনীতিতে ভারতীয় উপমহাদেশের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এবং সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক লেখক। বড় বিষয় হলো, তিনি যা ভাবতেন, তা-ই বলতেন ও করতেন।

আয়োজকরা জানান, 'আবুল মনসুর আহমদের প্রাসঙ্গিকতা- সাহিত্যে, সাংবাদিকতায় ও রাজনীতিতে' এ বিষয়ে প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে তিন বিভাগে ছয়জনকে সম্মাননা স্মারকের পাশাপাশি দেওয়া হয় ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কার। দ্বিতীয় স্থান অধিকারী ছয়জনকে পাঁচ হাজার টাকা করে পুরস্কার দেওয়া হয়। এর মধ্যে আবুল মনসুর আহমদের সাহিত্যবিষয়ক প্রবন্ধ প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন সুদ সাদিক ও সোহানা আক্তার, দ্বিতীয় হয়েছেন শাহাদাৎ সরকার ও গোলশান আরা আক্তার। আবুল মনসুরের সাংবাদিকতা বিষয়ে প্রথম হয়েছেন মিনহাজ উদ্দীন ও শাফিয়া চৌধুরী সিনথিয়া, দ্বিতীয় হয়েছেন হাসনাত খান রিজভী। আবুল মনসুরের রাজনীতি বিষয়ে প্রথম হয়েছেন মুহম্মদ জহিরুল ইসলাম ও ফারজানা ইয়াসমিন, দ্বিতীয় হয়েছেন আহমাদ ওয়াদুদ ও নাতাশা ইসরাত কবির।
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

বিএনপির সাবেক মন্ত্রী ও তৃণমূল বিএনপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার ...

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় অভাবী মানুষের কিডনি বেচাকেনা আবারও বেড়েছে। অভাবের ...

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার দু'পক্ষের ...

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা'আতুল মুজাহিদীন অব বাংলাদেশকে (জেএমবি) চাঙ্গা ...

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক রাত ১১টার পর বন্ধ করে দেয়া ...

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা বাংলাদেশ প্রস্তুতি হিসেবে নিচ্ছে। এমন একটা কথা ...

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

ইউনিসেফ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও), জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিভাগ ও বিশ্ব ...

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

লিজা আক্তার। বয়স মাত্র ৬ বছর। চোখের সামনে বাবা ট্রেনে ...