শিশু একাডেমি আইন হচ্ছে

মন্ত্রিসভায় উঠছে আজ

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ফসিহ উদ্দীন মাহতাব

স্বাধীনতার পর এই প্রথম বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আইন হতে যাচ্ছে। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে আইনটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য ওঠার কথা। এর পর এটি বিল আকারে উত্থাপনের জন্য জাতীয় সংসদে পাঠানো হবে। মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে চলতি বছর ৯ জুলাই শিশু একাডেমি আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন পায়। গত ৪২ বছর ধরে ১৯৭৬ সালের অধ্যাদেশের মাধ্যমে শিশু একাডেমি পরিচালিত হয়ে আসছে। তবে সামরিক শাসন আমলে জারি করা আইনগুলো বাংলায় রূপান্তরের জন্য সুপ্রিম কোর্ট ও মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত নেন। ওই বাধ্যবাধকতা থেকেই অধ্যাদেশগুলো প্রথমে আইনে পরিণত করতে নীতিগত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসা হয়। নতুন আইনে পরিচালনা ও প্রশাসন সম্পর্কিত একটি নতুন ধারা যুক্ত করা হয়েছে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমি আইনের সেই ধারা অনুযায়ী সাধারণ পরিচালনা ও প্রশাসনের দায়িত্ব একটি বোর্ডের ওপর ন্যস্ত থাকবে।

একাডেমি যেসব ক্ষমতা প্রয়োগ ও কাজ করতে পারবে, পরিচালনা বোর্ডও তা পারবে। এই আইন অনুযায়ী, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির প্রধান দপ্তর রাজধানী ঢাকায় স্থাপিত হবে। তবে সরকারের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশের অন্যান্য বিভাগ ও জেলাগুলোতেও শিশু একাডেমির কার্যালয় করা যাবে।

নতুন আইন অনুযায়ী, শিশু একাডেমি পরিচালনার জন্য ১৭ সদস্যের একটি বোর্ড গঠন করা হবে। এ বোর্ডে শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব পর্যায়ের একজন প্রতিনিধি, অর্থ ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের একজন করে প্রতিনিধি, তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের একজন করে প্রতিনিধি, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য বিভাগ ও শিশুকল্যাণ বিভাগের একজন করে প্রতিনিধি, শিশুদের কল্যাণে অবদান রাখেন এমন ব্যক্তিদের মধ্য থেকে সরকার মনোনীত চারজন ব্যক্তি থাকবেন, যাদের দু'জন মহিলা ও একাডেমির মহাপরিচালকও থাকবেন। এর সঙ্গে আইসিটি বিভাগের একজন প্রতিনিধি যুক্ত করার জন্যও নতুন করে বলা হয়েছে। চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায়

আসা আইন অনুযায়ী একাডেমিক কার্যাবলি আগের মতো প্রায় একই থাকবে। তবে সামান্য কিছু পরিমার্জন করা হয়েছে। শিশুর বিকাশ ও কল্যাণে ভূমিকার জন্য শিশু একাডেমি থেকে সাম্মানিক ফেলোশিপ দেওয়া হবে। শিশু একাডেমি আইন সংসদে পাস হলে একটি বিধি তৈরি হবে। ওই বিধি অনুযায়ী শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান নিয়োগ দেওয়া হবে। ভাষা, সাহিত্য, বিজ্ঞান, শিল্পকলা, সামাজিক বিষয়ের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে এমন ব্যক্তিকে সরকার চেয়ারম্যান নির্বাচিত করবে। তিনি সরকারি কর্মচারীও হতে পারেন।

নতুন আইনের ১০ ধারায় মহাপরিচালক নিয়োগের বিধান রেখে বলা হয়েছে, মহাপরিচালক একজন সার্বক্ষণিক কর্মকর্তা হবেন এবং তার চাকরির শর্তাবলি অনুযায়ী পরিচালিত ও বিধি দ্বারা নির্ধারিত হবে। এ আইন অনুযায়ী, প্রতি ছয় মাসে কমপক্ষে একবার বোর্ডের সভা হতে হবে। এই সভা কোথায় কখন কীভাবে হবে, তা চেয়ারম্যান নির্ধারণ করবেন। সভার কোরামের জন্য এক-তৃতীয়াংশ সদস্যের উপস্থিতি থাকতে হবে।













দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সংলাপে বসার দাবি প্রত্যাখ্যানকে আওয়ামী লীগের ...

নামই যখন কাল

নামই যখন কাল

রুবেল দু'জন- একজন মো. রুবেল ও অন্যজন সিটি রুবেল। মো. ...

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

নিরাপদ সড়ক দিবসের নানা আয়োজন চলছিল ঢাকার রাস্তায়। সড়কে যান ...

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

মহাখালীর আইসিডিডিআর'বি হাসপাতাল এলাকায় মুমূর্ষু অবস্থায় পড়েছিলেন এক বৃদ্ধ। বনানী ...

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর এক বছরের কলড্রপের একটি পরিসংখ্যান দিয়েছে বাংলাদেশ ...

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই সরকার 'গায়েবি মামলা' করছে বলে অভিযোগ করেছেন ...

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল বাঁহাতি স্পিনারদের একজন রঙ্গনা হেরাথ। ...

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রতিষ্ঠার ১৩ ...