ছাগলনাইয়ায় ভাংচুর

ভৌতিক মামলায় আসামি হজে থাকা যুবদল নেতা

প্রকাশ: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ছাগলনাইয়া (ফেনী) প্রতিনিধি

ছাগলনাইয়ায় এক আওয়ামী লীগ নেতার মোবাইল চুরির জেরে ভাংচুর ও মারামারির ঘটনা ঘটেছিল। এ ঘটনায় আটক হয়েছিলেন ছাত্রলীগের দুই নেতা। পরে ঘটনার নিষ্পত্তি হয়ে যায়। কিন্তু পুলিশ তাতে সন্তুষ্ট হতে পারেনি। তারা এ ঘটনায় বিএনপি, ছাত্রদল ও যুবদলের ১৫০ নেতাকর্মীর নামে মামলা করে। মামলায় উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদককেও আসামি করা হয়, যিনি সে সময় হজ পালন করতে সৌদি আরব অবস্থান করছিলেন।

জানা গেছে, গত ৩০ আগস্ট ছাগলনাইয়া উপজেলার মহামায়া ইউনিয়নের এক আওয়ামী লীগ নেতার বাড়িতে মোবাইল চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভাংচুর, মারামারি ও রাস্তা অবরোধের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ দলীয় চেয়ারম্যান বাদশাকে দলের লোকজন লাঞ্ছিত করে। এতে চেয়ারম্যান থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুই ছাত্রলীগ নেতাকে আটকও করেছিল। ঘটনার দু'দিন পর চেয়ারম্যানের দায়ের করা অভিযোগ তুলে নিলে পুলিশ ওই ছাত্রলীগ নেতাদের ছেড়ে দেয়।

তবে ঘটনার সেখানেই শেষ নয়। দু'দিন পর মামলা মোড় নেয় নাটকীয়তায়। পুলিশ ১৫০ জন বিএনপি, ছাত্রদল ও যুবদলের নেতাকর্মীদের নামে ভৌতিক মামলা দায়ের করে। মামলায় উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আজাদ হোসেনকেও আসামি করা হয়। সে সময় তিনি

হজ পালন করতে সৌদি আরব অবস্থান করছিলেন। আজাদ গত ১৮ জুলাই হজে যান। ফেরেন ৪ সেপ্টেম্বর। আর মামলা হয়েছে ১ সেপ্টেম্বর।

আজাদ বলেন, তিনি প্রায় দেড় মাস হজে থেকে এসে জানতে পারেন তার নামে গাড়ি ভাংচুর, মারামারি ও বিস্ম্ফোরক আইনে মামলা হয়েছে। ছাগলনাইয়া থানার ওসি (তদন্ত) সুদীপ রায় সমকালকে জানান, সোর্স ভুল তথ্য দেওয়ায় এ রকম বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়েছে। আজাদকে চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এ মামলায় ১৮ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। জানা গেছে, তাদের অধিকাংশই ঘটনার সময় এলাকায় ছিলেন না। ব্যক্তিগত, ব্যবসায়িক ও চাকরির সুবাদে যার যার কর্মক্ষেত্রে অবস্থান করছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, গত ৩০ আগস্ট উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং পৌরসভার উত্তর পানুয়া ওয়ার্ড দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মহামায়া ইউনিয়নের চাঁদগাজীর আবুল কালাম মাস্টারের ঘর থেকে রাতের আঁধারে কে বা কারা তার মোবাইল ও মানিব্যাগ নিয়ে যায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কালাম মাস্টার এলাকার কয়েকজন নিরপরাধ যুবককে ধরে এনে বেঁধে মারধর করে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে কালাম মাস্টারের বাড়িতে হামলা চালায়। উত্তেজিত জনতা একপর্যায়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অফিসেও হামলা চালায়। বিক্ষুব্ধ জনতার নেতৃত্বে ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগেরই নেতাকর্মীরা।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দাবি, বিক্ষোভের নেপথ্যে নেতৃত্ব দিয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক ও বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম মামুন, জাসদ থেকে সদ্য ছাত্রলীগে যোগদানকারী আবদুল জলিল ও অপর ছাত্রলীগ নেতা জাহিদ।
ফেনসিডিল আত্মসাতের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

ফেনসিডিল আত্মসাতের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

মাদকবিরোধী অভিযানে উদ্ধার করা ফেনসিডিল আত্মসাতের অভিযোগে শিবগঞ্জ থানার দুই ...

৭ থেকে ২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

৭ থেকে ২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে প্রধান প্রজনন মৌসুমের ২২ দিন ইলিশ ...

অনলাইনের আওতায় ৮৭ শতাংশ ব্যাংক শাখা

অনলাইনের আওতায় ৮৭ শতাংশ ব্যাংক শাখা

গ্রাহকদের চাহিদা বিবেচনায় দ্রুত প্রসার হচ্ছে অনলাইন ব্যাংকিং সেবার। বেসরকারি ...

নির্বাচনের কারণে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না: অর্থমন্ত্রী

নির্বাচনের কারণে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না: অর্থমন্ত্রী

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক অঙ্গনে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির ...

উজিরপুরে সাংসদের পিএসের বিরুদ্ধে মামলা

উজিরপুরে সাংসদের পিএসের বিরুদ্ধে মামলা

বরিশালের উজিরপুরের জল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টু হত্যায় ...

রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধে ধস, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধে ধস, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুর পুলিশ লাইনের সামনে পদ্মা নদীতে শহর রক্ষা ...

ইন্টারপোলের মাধ্যমে ফেরানো হলো মোনালিসার অভিযুক্ত খুনিকে

ইন্টারপোলের মাধ্যমে ফেরানো হলো মোনালিসার অভিযুক্ত খুনিকে

নারায়ণগঞ্জে ১২ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী মোনালিসাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে ...

নির্দিষ্ট সময়েই নির্বাচন হবে: আইনমন্ত্রী

নির্দিষ্ট সময়েই নির্বাচন হবে: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে এখনও অনেকে সংশয়ের মধ্যে ...