দখল

বনের জায়গায় জসীমের 'গ্রাম'

প্রকাশ: ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ইজাজ আহমেদ মিলন, গাজীপুর

বনের জায়গায় জসীমের 'গ্রাম'

কালিয়াকৈরের চন্দ্রা এলাকায় বনের জমি দখল করে গড়ে তোলা বাড়িঘর - সমকাল

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা এলাকার মানুষের কাছে আতঙ্কের নাম জসীম উদ্দিন ইকবাল। উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় বনের অন্তত ৩০০ বিঘা জমি দখল করে 'গ্রাম' গড়ে তুলেছেন তিনি। তার গড়া এই সাম্রাজ্যে তিনি বিপুল ক্ষমতাবান ও অপ্রতিরোধ্য। বন বিভাগের দায়ের করা ১৮টি মামলার আসামি তিনি। এর মধ্যে ১৬টির গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। আর দুটি মামলায় আদালত থেকে ছয় মাস করে সাজাপ্রাপ্ত। এরপরও জসীম পুলিশের নাকের ডগায় দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। কেউ জসীমের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করলেই নেমে আসে তার ক্যাডার বাহিনীর অত্যাচার। তার কুকর্মের প্রতিবাদ করে অসংখ্য নিরীহ মানুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। মাত্র চার-পাঁচ বছরের ব্যবধানে জসীম ইকবাল বিশাল বিত্তবৈভবের মালিক বনে গেছেন। গড়ে তুলেছেন বিলাসবহুল বহুতল ভবন, গাড়ি, মার্কেট। নামে-বেনামে রয়েছে কোটি কোটি টাকা মূল্যের জমিও।

জানা যায়, কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের মৃত তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে জসীম ইকবাল ১৫/২০ বছর আগে কালিয়াকৈরের চন্দ্রা এলাকায় এসে প্রতিষ্ঠিত ব্র্যান্ডের একটি জুতার কারখানায় পিয়ন পদে চাকরি নেন। পরে চাকরি ছেড়ে দিয়ে নিজেই জুতা বানিয়ে ওই কোম্পানিতে সরবরাহ শুরু করেন। তখনও থাকতেন ভাড়া বাসায়।

২০১৫ সালের ২১ আগস্ট চন্দ্রায় জাতির পিতা কলেজ মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে কালিয়াকৈর উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলামকে সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে হত্যা করে। আর এ হত্যার ঘটনায় কপাল খোলে জসীমের। রফিকুল হত্যার আসামিদের ধরিয়ে দিতে থানা পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ শুরু করেন তিনি। অল্প সময়ের ব্যবধানে পুলিশের বিশ্বস্ততা অর্জনের সুযোগে হত্যা মামলায় আসামি করার ভয় দেখিয়ে

এলাকার মানুষকে জিম্মি করে ফেলেন। তার সহযোগিতায় কালিয়াকৈর থানা পুলিশ ব্যাপক ধরপাকড় শুরু করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবক জানান, পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে যায়। পরে জসীমের মধ্যস্থতায় সাত লাখ টাকা দিয়ে ছাড়া পান। আদায় করা টাকার বড় একটা অংশ চলে যায় জসীমের পকেটে। এরপরই জসীমের শুরু হয় বেপরোয়া জীবন। দৃষ্টি পড়ে ভাওয়াল গড়ের জমিতে। বড় বড় শাল-গজারি গাছ কেটে দখল করতে থাকেন বিঘার পর বিঘা জমি।

সরেজমিনে দেখা যায়, চন্দ্রার জোড়া পাম্প এলাকায় গজারি গাছ কেটে ২৬১ বিঘা জমির বেশিরভাগই জবরদখল করে 'নতুনপাড়া' নামে একটি গ্রাম গড়ে তোলা হয়েছে। অথচ বছর তিন-চার আগেও ওই এলাকা শাল-গজারির গভীর অরণ্যে ঘেরা ছিল। রাতারাতি পুরো বনাঞ্চল বিরানভূমিতে পরিণত হয়। গড়ে উঠতে থাকে দু-একটি বসতভিটাও। বন বিভাগের জমিতে গড়ে তোলা নতুনপাড়ায় অলিখিতভাবে জসীম ইকবাল প্লট বিক্রি শুরু করেন। বিনিময়ে হাতিয়ে নেন কোটি কোটি টাকা। অন্তত ৩০০ পরিবারের কাছে এ প্লট বিক্রি করা হয়। প্রত্যেকের কাছ থেকে আদায় করেন তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা। বন বিভাগের জায়গা জসীমের কাছ থেকে কিনে লোকজন সেখানে বসবাসও শুরু করেন। সদ্য তৈরি করা ঘরের নতুন টিনে আলকাতরা দিয়ে প্রলেপ দেওয়া হয়েছে, যাতে কেউ বুঝতে না পারে এসব ঘর নতুন। বসবাসকারী পরিবারগুলোকে ভূমিহীন বলে প্রচার চালান জসীম ও তার সাঙ্গোপাঙ্গরা।

বন বিভাগের চন্দ্রা বিটের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা মাহমুদুল হক মুরাদ বলেন, জসীম ইকবাল এলাকার চিহ্নিত ভূমিদস্যু। তার বিরুদ্ধে আদালতে বন বিভাগ ১৮টি মামলা করেছে। সাধারণ মানুষ থানায় জিডি করেছেন আটটি। ১৮টি মামলার মধ্যে ১৬টির গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। আর দুটি মামলায় আদালত থেকে ছয় মাস করে সাজা দেওয়া হয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত আসামি কীভাবে পুলিশের সঙ্গে ঘুরে বেড়ায়, এটাই বুঝে আসে না।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত জসীম ইকবাল বলেন, বনের জায়গা দখলের সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই, কখনও ছিলও না। তার বিরুদ্ধে থানায় কোনো মামলা ও জিডি নেই। তবে আদালতে করা বন বিভাগের মামলাগুলোয় জামিনে রয়েছেন বলে স্বীকার করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঢাকা-টঙ্গাইল মহাসড়কের পাশে বনের জমির ওপর গড়ে তোলা 'নতুনপাড়া'য় জ্বলজ্বল করছে জসীমের 'রাজত্বে'র নানা চিহ্ন। রয়েছে মার্কেট, দোকান, মসজিদ, রাস্তা। শ্রমিকরা প্রকাশ্যে মাটি কেটে মাঠ তৈরি করছে, তৈরি করছে নতুন ভিটা।

বিট কর্মকর্তা মুরাদ আরও বলেন, ২০১৬ সালের ২৬ জানুয়ারি বন বিভাগের জমিতে মসজিদ নির্মাণে বাধা দেওয়ায় চন্দ্রা বন অফিসের কর্মকর্তাদের ওপর হামলা চালায় জসীমের লোকজন। বন কর্মকর্তারা ৯ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। 'বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ' নামে একটি সংগঠনের গাজীপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে তিনি নানা অপকর্ম করেন। এ প্রসঙ্গে জসীম বলেন, কালিয়াকৈরে বনের জমিতে ২৬টি মসজিদ রয়েছে। আমি একটি মসজিদ করেছি, এটা অপরাধ!

অভিযোগ রয়েছে, চন্দ্রা এলাকায় চলাচল করা ৮০০ ইজিবাইক ও অটোরিকশা থেকে প্রতিদিন জসীম তার লোকজন দিয়ে ৩০ থেকে ৫০ টাকা করে চাঁদা আদায় করান। আর প্রতিটি ইজিবাইক ও অটোরিকশায় এক হাজার থেকে দেড় হাজার করে টাকা এককালীন তাকে না দিলে সড়কে কোনো গাড়ি উঠতে পারে না। এ প্রসঙ্গে জসীম বলেন, এ অভিযোগের কোনো ভিত্তি খুঁজে পাওয়া যাবে না। তার দুটি ট্রাক রয়েছে উল্লেখ করে জসীম বলেন, এ ধরনের কাজ তার পক্ষে করা সম্ভব নয়।

এ ছাড়া নিরীহ মানুষকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে নিয়ে অর্থ আদায় তার প্রতিদিনের কাজ। ওসমান পালোয়ান নামের এক কৃষক জানান, তার ভাতিজা রাজীবের পকেটে কৌশলে ইয়াবা ঢুকিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দেন জসীম। পরে সুদে ধার এনে ৩০ হাজার টাকা দিয়ে তাকে ছড়িয়ে আনা হয়।

কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন বলেন, হরিণাহাটী এলাকায় দীর্ঘদিন তাদের দখলে থাকা ১৯৬ শতাংশ জমি গত ২ আগস্ট জসীম ও তার লোকজন জবরদখল করে নিয়ে যায়। মার্কেট ভাংচুর করা হয়। উচ্ছেদ করা হয় ৪৩টি পরিবারকে। এ রকমভাবে ওই এলাকায় আরও ১৭টি কলোনিতে বসবাস করা পরিবারগুলোকে ভয়ভীতি দেখিয়ে সরিয়ে দেন জসীম। জমি জবরদখল করে নেওয়ার পর আবার আজাদুর রহমান খান নামের একজনকে বাদী সাজিয়ে কালিয়াকৈর থানায় তাদের বিরুদ্ধেই চাঁদাবাজির মামলা করান জসীম।

এ প্রসঙ্গে কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনা বের করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযুক্ত জসীম বলেন, এ ঘটনা তার জানা নেই। তবে এত অল্প সময়ে তিনি কীভাবে এত বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছেন- জানতে চাইলে জসীম বলেন, 'এ বিষয়ে আর আপনার সঙ্গে কথা বলব না।'

গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকার পরও কেন জসীমকে ধরা হচ্ছে না- এমন প্রশ্নের উত্তরে ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, তাকে খোঁজা হচ্ছে। জসীমের সহায়তায় গ্রেফতার বাণিজ্যের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার সমকালকে বলেন, মাত্র কয়েক দিন হলো তিন গাজীপুরে যোগদান করেছেন। এসব বিষয় এখনও তিনি জানেন না। বিষয়টি তিনি খুব শিগগির দেখবেন।

জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর এ প্রসঙ্গে বলেন, তিনি অভিযোগ পেয়েছেন। বন বিভাগের কর্মকর্তারাও বিষয়টি তাকে জানিয়েছেন। কোনোভাবেই সরকারের জমি দখল করতে দেওয়া হবে না। দু-একদিনের মধ্যে অভিযান শুরু হবে।





দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

দেশ সংকটে পড়লে দায়ী থাকবে আওয়ামী লীগ

চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে সংলাপে বসার দাবি প্রত্যাখ্যানকে আওয়ামী লীগের ...

নামই যখন কাল

নামই যখন কাল

রুবেল দু'জন- একজন মো. রুবেল ও অন্যজন সিটি রুবেল। মো. ...

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

মাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে ছেলেকে পিষে মারল বাস

নিরাপদ সড়ক দিবসের নানা আয়োজন চলছিল ঢাকার রাস্তায়। সড়কে যান ...

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

যন্ত্র জানাবে অজ্ঞাত লাশের পরিচয়

মহাখালীর আইসিডিডিআর'বি হাসপাতাল এলাকায় মুমূর্ষু অবস্থায় পড়েছিলেন এক বৃদ্ধ। বনানী ...

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

অপারেটরগুলোর কলড্রপের পরিসংখ্যান দিল বিটিআরসি

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর এক বছরের কলড্রপের একটি পরিসংখ্যান দিয়েছে বাংলাদেশ ...

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই গায়েবি মামলা: ফখরুল

রাজনৈতিক কর্মী দমনেই সরকার 'গায়েবি মামলা' করছে বলে অভিযোগ করেছেন ...

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

অবসরের ঘোষণা দিলেন হেরাথ

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সবচেয়ে সফল বাঁহাতি স্পিনারদের একজন রঙ্গনা হেরাথ। ...

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রতিষ্ঠার ১৩ ...