গাজীপুরে নিরাপদ আবাসন থেকে ১৭ জনের পলায়ন

১২ নারী কিশোরী আটক

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

গাজীপুর ও মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

গাজীপুর মহানগরের মোগড়খাল এলাকার নারী, শিশু ও কিশোরী হেফাজতিদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্রে ঠাঁই হয়েছিল বিভিন্ন মামলার ৩৪ নারী ও কিশোরী আসামির। এর মধ্যে ১৭ জন গভীর রাতে ঘরের জানালার গ্রিল কেটে সীমানা প্রাচীর টপকে পালিয়ে যায়। ১২ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার মধ্যরাতের পর মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর পরিচালিত ওই আবাসন কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, আসামিদের দীর্ঘদিন ধরে ওই আবাসন কেন্দ্রে রাখা হয়েছিল। কর্তৃপক্ষের নানা অব্যবস্থাপনা ও গাফিলতির কারণে তারা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল। জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শাহনাজ আক্তার বলেন, প্রথমে তারা দোতলার কক্ষের জানালার গ্রিল কেটে ফেলে। পরে বিশেষ কৌশলে খাটের কাঠ দিয়ে ছাদের সঙ্গে সীমানা প্রাচীর পর্যন্ত সিঁড়ি তৈরি করে একে একে ১৭ জন পালিয়ে যায়। পরে আবাসন কেন্দ্রের লোকজন টের পেয়ে দু'জনকে ছাদ থেকে আটক করে। এরই ফাঁকে ১৭ জন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। জয়দেবপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে থানা পুলিশ দ্রুত অভিযানে বের হয়। পরে আশপাশ এলাকা থেকে ৪ জনকে আটক করা হয়। শনিবার সকালে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর এলাকা থেকে পুলিশ আরও ৮ জনকে আটক করে কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ৫ জনের খোঁজ পাওয়া যায়নি। আবাসন কেন্দ্রের সহকারী হোস্টেল সুপার পারভীন আক্তার বলেন, তারা ৩-৪ বছর ধরে এই কেন্দ্রে রয়েছে। তাদের বন্দিজীবন আর ভালো লাগছিল না। মুক্ত জীবনের স্বাদ নিতেই এই পথ বেছে নিয়েছিল। তিনি বলেন, এ আবাসন কেন্দ্রে কোনো রকম অব্যবস্থাপনা বা গাফিলতি নেই। শনিবার দুপুরে নিরাপদ হেফাজতিদের আবাসন কেন্দ্র পরিদর্শন করে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক শাহনেওয়াজ দিলরুবা, জেলা পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার প্রমুখ।

প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি সমকালকে বলেন, ঘটনাটি তদন্তের জন্য ইতিমধ্যে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। বন্দি নারী ও কিশোরীরা কেন এভাবে পালিয়ে যায়, তার আসল কারণ তদন্ত কমিটি বের করে প্রতিবেদন জমা দেবে। এ কমিটির প্রধান করা হয়েছে সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদা ইয়াসমিনকে।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি জানান, শনিবার সকালে মির্জাপুর রেলস্টেশনের কাছ থেকে ওই আটজনকে উদ্ধার করা হয়। তারা হলেন- রাইজু (২৬), রিনা (২০), সুরমা (২০), জিয়াসমিন (১৮), শাবানা (১৬), বৃষ্টি (১৬), তানিয়া ও লামিয়া। এ সময় তাদের সঙ্গে থাকা তারেক তালুকদার নামে এক কিশোরকে আটক করে পুলিশ।

তারেক সিরাজগঞ্জ জেলার সলঙ্গা উপজেলার তিন নান্দিনা গ্রামের আবদুল হাই তালুকদারের ছেলে।

পরবর্তী খবর পড়ুন : পরিত্যক্ত ভবনে পাঠদান

নাটোরে নির্মাণাধীন ড্রেনে আবারও মিললো গ্রেনেড

নাটোরে নির্মাণাধীন ড্রেনে আবারও মিললো গ্রেনেড

নাটোর শহরে নির্মাণাধীন ড্রেন থেকে আরও একটি গ্রেনেড উদ্ধার করা ...

ঢাকায় সাপের দংশনে প্রাণ গেল কলেজছাত্রের

ঢাকায় সাপের দংশনে প্রাণ গেল কলেজছাত্রের

ঢাকার ধামরাইয়ের রামদাইল গ্রামে বিষাক্ত সাপের দংশনে দেলোয়ার হোসেন সোহাগ ...

শেষের রোমাঞ্চে হার আফগানদের

শেষের রোমাঞ্চে হার আফগানদের

এখন পর্যন্ত এশিয়া কাপের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর ম্যাচ উপহার দিয়েছে পাকিস্তান-আফগানিস্তান। ...

ভারতের কাছেও বড় হার বাংলাদেশের

ভারতের কাছেও বড় হার বাংলাদেশের

পরপর দুই ম্যাচে বড় হারের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ...

বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যানকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যানকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টুকে ...

দুবাই যাচ্ছেন সৌম্য-ইমরুল

দুবাই যাচ্ছেন সৌম্য-ইমরুল

ড্রেসিংরুম থেকেই জরুরি তলব ঢাকায়-ওপেনিংয়ে কিছুই হচ্ছে না। সৌম্য সরকারকে ...

খালেদা জিয়ার সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাৎ

খালেদা জিয়ার সঙ্গে স্বজনদের সাক্ষাৎ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। ...

'নায়ক' গেলো সেন্সরে

'নায়ক' গেলো সেন্সরে

ঢাকাই ছবির জনপ্রিয় নায়ক বাপ্পি ও নবাগতা অধরা খান জুটির ...