মুঠো মুঠো ভালোবাসা

প্রকাশ: ০৭ ডিসেম্বর ২০১৭      

বোরহান আজাদ

পাবলিক পরিবহনে দুই বন্ধুর কথোপকথন। একজন আরেকজনকে জিজ্ঞেস করছে- কিরে, কার গান এত মন দিয়ে শুনছিস? উত্তর- ঐশীর। কোন ঐশী? দ্বিতীয়জন প্রায় বিস্মিত! তুই ঐশীকে চিনিস না! আরে, 'দিল কি দয়া হয় না' গানটা...। কথা শেষ হওয়ার আগেই অন্যজনের উত্তর- আমারও দারুণ লেগেছে গানটা। প্রিয় এই গান ভালো কাভার করেছে ঐশী।'

কণ্ঠশিল্পী ঐশী নিজেও স্বীকার করেন এটিই তার গাওয়া সবচেয়ে শ্রোতাপ্রিয় গান। এ গানটিই তার ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট। এটি ছিল প্রথম অ্যালবাম ঐশী এক্সপ্রেসের। যদিও এরপর একে একে গেয়ে ফেলেছেন অনেক গান। তার শ্রোতাপ্রিয় গানের মাঝে রয়েছে- প্রেমে পড়েছি, আঠারো, নিজামউদ্দিন আউলিয়া, তুমি চোখ মেলে তাকালে, দিনে দিনে, তুমি ছাড়া, মায়া, অচিন টান, মুঠো মুঠো ভালোবাসা, কাজলভ্রোমরা ছাড়াও আরও বেশকিছু গান। ঐশীর প্রথম কাজ হৃদয় মিক্সের দখিন হাওয়া গানে। এখন পর্যন্ত অ্যালবাম করেছেন পাঁচটি। এ ছাড়া দ্বৈত ও মিশ্র অ্যালবামে গেয়েছেন জনপ্রিয় গায়ক এবং গীতিকারদের সঙ্গে। সম্প্রতি 'পাপী' শিরোনামের সিঙ্গেলস প্রকাশ পেয়েছে, যা ইতিমধ্যেই শ্রোতাদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। ঐশী মনে করেন, শ্রোতারা তার কণ্ঠে লোকজ গান শুনতে বেশি পছন্দ করেন। 'পাপী' গানটি আধ্যাত্মিক ধরনের। সঙ্গে ব্যবহার করা হয়েছে ইলেকট্রনিক ড্যান্স মিউজিক [ইডিএম]। সজীব শাহরিয়ারের কথায় গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন জে কে মজলিস। এছাড়া সম্প্রতি আইসিটি ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-এর থিমসং গেয়েছেন ভাইকিংসের তন্ময় তানসেন ও র‌্যাপার তৌফিক আহমেদের সঙ্গে। থিমসংটি কম্পোজিশন করেছেন কৌশিক হোসেন তাপস।

ঐশী প্রথম প্লেব্যাক করেন ২০১৬ সালে 'তুখোড়' চলচ্চিত্রে। একই বছর আরও ১৯টি চলচ্চিত্রের গানে তার কণ্ঠ শুনতে পেয়েছেন দর্শক-শ্রোতা। এ বছর ১০টি চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়েছেন ঐশী। এছাড়াও মুক্তির মিছিলে থাকা 'গহীন বালুচর', 'অন্তর্জ্বালা' ও 'জেদি' চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেছেন তিনি।

এবার একটু ঐশীর ব্যক্তিগত প্রসঙ্গে আসা যাক। ঐশীর পুরো নাম ফাতিমা তুয্‌ যাহ্‌রা। বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে নোয়াখালীর মাইজদীতে জন্ম এই শিল্পীর। যদিও বাবার চাকরির সুবাদে ছোটবেলা কেটেছে রংপুরে। মা-বাবা দু'জনই শিল্পী হওয়ার কারণে ছোটবেলা থেকেই সঙ্গীতের মাঝে ডুবে থাকতেন ঐশী। পড়াশোনা করেছেন নোয়াখালী গভর্নমেন্ট কলেজে। বিজ্ঞানের ছাত্রী ঐশী বর্তমানে একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। তার ভবিষ্যতের ইচ্ছা, পড়াশোনা শেষ করে গান ও চিকিৎসাসেবা নিয়ে কাজ করার।

সঙ্গীতের শুরুর সময় সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয় তার কাছে। ঐশীর উত্তর- 'আমার মা-বাবা দুজনই কণ্ঠশিল্পী। মা নাসিমা আক্তার শিখিয়েছেন কীভাবে গাইতে হয়। আর বাবা আবদুল মান্নান শিখিয়েছেন কীভাবে অন্তর দিয়ে দরদের সঙ্গে গাইতে হয়। ছোট্টবেলাতেই প্রশিক্ষণ নিই মোহাম্মদ শরীফ এবং এরপর হাফিজউদ্দিন বাহারের কাছে সব রকমের গানের। আসলে শিল্পী পরিবারে জন্ম আমার। গান আমার রক্তে, শিরায়-উপশিরায়। প্রচুর গান শুনি। দেশি-বিদেশি নানান শিল্পীর। দেশি শিল্পীদের মধ্যে আমার রুনা লায়লা, ফেরদৌসী রহমানসহ অনেকের গান ভালো লাগে। আর বিদেশি শিল্পীদের মধ্যে বেশি প্রিয় লতা মুঙ্গেশকর, শ্রেয়া ঘোষাল, টেইলর সুইফট, ডেমি লোভাটো, অ্যাডেলের গান। রুনা লায়লা আমার অনুপ্রেরণার নাম। তার গায়কী আমাকে স্টেজে ভালো করার শক্তি জোগায়। স্বপ্ন দেখি, তার মতো একজন শিল্পী হওয়ার।'

'দখিন হাওয়া' থেকে 'পাপী'- অনেকগুলো একক, পাঁচটি অ্যালবাম যার বেশিরভাগ গানই মৌলিক; যা অনেক তরুণ শিল্পীর জন্যই ঈর্ষণীয় নয় কি? মিষ্টি হেসে ঐশীর উত্তর- 'অনেক গান গাইলেই ভালো বা নামি শিল্পী- আমি এমনটা মনে করি না। ভালো কথা ও সুর, সঙ্গে দরদ দিয়ে গাওয়া- আমার কাছে ভালো গানের সংজ্ঞা এ রকমই। যেদিন দেখব আমার গাওয়া গান সারাদেশের আনাচে-কানাচে বেজে চলেছে, লোকের মুখে মুখে ফিরছে সেদিনই বুঝব শিল্পী হতে পেরেছি। জানি এতটা সহজ নয় বিষয়টা। তবে আমিও গেয়ে যাব সারাজীবন।'

শিল্পীর ঘরে জন্ম তাই শিল্পী হয়েছি/সঙ্গীতটাকে সারাজীবন সঙ্গী করেছি/গানই আমার জীবনমরণ, গানই যেন প্রাণ- এন্ড্রু কিশোরের গাওয়া এই গানটির সঙ্গে বড্ড মিলে যায় ঐশীর জীবনের।

এবার একটু অন্য প্রসঙ্গে আসি। ঐশী একজন গায়িকা, একজন হবু ডাক্তার। এটা অনেকেই জানেন। কিন্তু তার পছন্দ আরও কিছু শ্রোতার অজানা। ঘুরতে ভীষণ ভালো লাগে ঐশীর। এ কারণে নিজেই বাইক চালিয়ে ছুটে চলে যান দূরে আরও দূরে। গতি ও ছন্দ তার বিশেষ পছন্দ। পছন্দ করেন নতুন নতুন বাদ্যযন্ত্র বাজাতে, সংগ্রহ করতে। এ ছাড়া পারফিউম, রিস্টব্যান্ড, ঘড়ি ও নতুন নতুন পোশাকের প্রতি তার দুর্বলতা রয়েছে ছোটবেলা থেকেই। আঁকতে এবং আবৃত্তি করতে ভীষণ পছন্দ করেন ঐশী। যদিও ব্যস্ততার কারণে এখন আর সময় হয় না। তবুও সুযোগ পেলেই আঁকতে বসে যান কিংবা নিজমনে আবৃত্তি করেন প্রিয় কবিতা।

ভক্তরা হয়তো জানেন, আগামীকাল ৮ ডিসেম্বর ঐশীর জন্মদিন। এই বিশেষ দিনে নিমন্ত্রণ রইল ঐশীর বাড়িতে, যেখানে ভক্তদের পাঠানো ফুলে-ভালোবাসায় ভরে যাবে তার ঘর। ঐশীর মায়ায় কেটে যাবে ভক্তদের বছরের শেষ ক'টা দিন। মুঠো মুঠো ভালোবাসা ঐশীর জন্য।

পরবর্তী খবর পড়ুন : স্বপ্নবাজের ঝুটঝামেলা

হ্যাটট্রিকে চ্যাম্পিয়নস লিগ শুরু মেসির

হ্যাটট্রিকে চ্যাম্পিয়নস লিগ শুরু মেসির

চ্যাম্পিয়নস লিগে গত মৌসুমেও দারুণ খেলেছেন মেসি। কিন্তু রোমার কাছে ...

হতাশা ঝেড়ে সামনে চোখ তামিমের

হতাশা ঝেড়ে সামনে চোখ তামিমের

সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে দেশে ফিরেছেন তামিম। সঙ্গী হতাশা আর ...

রোহিঙ্গাদের চাপে ঝুঁকিতে উখিয়া ও টেকনাফ

রোহিঙ্গাদের চাপে ঝুঁকিতে উখিয়া ও টেকনাফ

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়ার ...

খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারেননি আইনজীবীরা

খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারেননি আইনজীবীরা

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারেননি তার ...

প্রতারক চক্র থেকে সাবধান হওয়ার পরামর্শ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের

প্রতারক চক্র থেকে সাবধান হওয়ার পরামর্শ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত করা, স্বীকৃতি, বিষয় খোলা, নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ...

'সংসদ না ভেঙে নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না'

'সংসদ না ভেঙে নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না'

গণফোরাম সভাপতি ও যুক্তফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন সরকারের সমালোচনা ...

হংকংকে ২৮৬ রানের লক্ষ্য দিল ভারত

হংকংকে ২৮৬ রানের লক্ষ্য দিল ভারত

এশিয়া কাপে গ্রুপ ‘এ’র দ্বিতীয় ম্যাচে হংকংয়ের সামনে বেশ বড় ...

জন্মদিনের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন হাসিনা-মোদি

জন্মদিনের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন হাসিনা-মোদি

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পরস্পরকে ...