প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রস্তুতি

বাংলা

প্রকাশ: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮     আপডেট: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

মো. সুজাউদ দৌলা
প্রভাষক
রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ
ঢাকা


প্রিয় শিক্ষার্থীরা, ২০১৮ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনীতে সব বিষয়ের পরীক্ষাই ১০০% যোগ্যতাভিত্তিক হবে। কোনো বহুনির্বাচনী প্রশ্ন থাকবে না। ১০০ শতাংশ যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্নপত্রের পরীক্ষায় সময় বরাদ্দ ২ ঘণ্টা ৩০ মিনিট। এ বছর পরীক্ষার্থীদের নিজ নিজ উপজেলায় উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হবে।

প্রদত্ত অনুচ্ছেদটি পড়ে ১ ও ২ নম্বর ক্রমিকের উত্তর দাও :

ছেলেটির বাবার বাড়ি বিক্রমপুরের রাঢ়িখাল গ্রামে। তবে তার জন্ম ময়মনসিংহে। ১৮৫৮ সালের ৩০ নভেম্বর। ওর পড়াশোনায় হাতেখড়ি হয়েছিল বাড়িতেই। তারপর ময়মনসিংহে স্কুল শিক্ষার ধাপ শেষ করে সে ভর্তি হয় কলকাতায়। সেন্ট জেভিয়ার্স স্কুল থেকে ১৮৭৪ সালে সে কৃতিত্বের সঙ্গে প্রবেশিকা পরীক্ষা পাস করে। কৃতিত্বের ধারায় সে ১৮৭৮ সালে এফএ পাস করে। তারপর ১৮৮০ সালে বিজ্ঞান শাখায় বিএস পাস করে বিলেতে যায় ডাক্তারি পড়তে।

সেই ছেলেটিই বড় হয়ে প্রথম বাঙালি বৈজ্ঞানিক হিসেবে জগৎজাড়া খ্যাতি অর্জন করে। তোমরা অনেকেই হয়তো বুঝতে পেরেছ কে তিনি? হ্যাঁ, সেদিনকার সেই ভাবুক ছেলেটিই পরবর্তীকালের বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসু। জগদীশচন্দ্র এক বছর ডাক্তারি পড়ার পর ১৮৮১ সালে ইংল্যান্ডের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে যান। সেখান থেকে উচ্চশিক্ষা লাভ করেন তিনি। ১৮৮৫ সালে দেশে ফিরে এসে কলকাতায় প্রেসিডেন্সি কলেজে পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক পদে যোগ দেন। তখন দেশ ছিল পরাধীন। এ সময় একই পদে একজন ইংরেজ অধ্যাপক যে বেতন পেতেন, ভারতীয়রা পেতেন তার তিন ভাগের দুই ভাগ। জগদীশচন্দ্র অস্থায়ীভাবে চাকরি করছিলেন বলে তার বেতন আরও এক ভাগ কেটে নেওয়া হয়। এর প্রতিবাদে তিনি দীর্ঘ তিন বছর বেতন না নিয়ে কর্তব্য পালন করেন। শেষ পর্যন্ত ইংরেজ সরকার তাকে স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়। সব বকেয়া পরিশোধ করে চাকরিতে স্থায়ী করে তাকে। তখন থেকেই তিনি বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসু হয়ে ওঠেন।

১. প্রদত্ত শব্দগুলোর অর্থ লেখো।

(৭টির মধ্যে ৫টি) ১ু৫=৫

ক) জগৎ, খ) খ্যাতি, গ) ভাবুক, ঘ) হাতেখড়ি

ঙ) প্রবেশিকা, চ) পরাধীন, ছ) কর্তব্য

২. নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও : ২+৪+৪=১০

ক) জগদীশচন্দ্র বসুর জন্মস্থান কোথায়? তিনি বড় হয়ে কী হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন?২

খ) জগদীশচন্দ্র বসুর স্কুলজীবন থেকে শুরু করে বিলেত যাত্রা পর্যন্ত লেখাপড়ার কাহিনী

চারটি বাক্যে লেখ। ৪

গ) জগদীশচন্দ্র বসুর জীবনী থেকে আমরা কী শিখতে পারি? চারটি বাক্যে লেখো। ৪

প্রদত্ত অনুচ্ছেদটি পড়ে (পাঠ্যবই-বহির্ভূত) ৩ ও ৪ নম্বর ক্রমিকের উত্তর লেখ।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে একটি উজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম বীরশ্রেষ্ঠ ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মতিউর রহমান। দেশের এই মহান সন্তান ১৯৪১ সালের ২৯ নভেম্বর ঢাকার আগা সাদেক রোডের পৈতৃক বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন।

তার আদি বাড়ি বর্তমান নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার রামনগর (বর্তমান মতিউর নগর) গ্রামে। মতিউর রহমানের প্রাথমিক লেখাপড়া শুরু হয় ঢাকার কলেজিয়েট স্কুলে। এরপর তিনি ভর্তি হন সারগোদার বিমানবাহিনী পাবলিক স্কুলে। সেখান থেকেই তিনি ডিস্টিংকশনসহ প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন।

[ বাকি অংশ প্রকাশিত হবে আগামীকাল ]

ফেনসিডিল আত্মসাতের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

ফেনসিডিল আত্মসাতের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

মাদকবিরোধী অভিযানে উদ্ধার করা ফেনসিডিল আত্মসাতের অভিযোগে শিবগঞ্জ থানার দুই ...

৭ থেকে ২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

৭ থেকে ২৮ অক্টোবর ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে প্রধান প্রজনন মৌসুমের ২২ দিন ইলিশ ...

অনলাইনের আওতায় ৮৭ শতাংশ ব্যাংক শাখা

অনলাইনের আওতায় ৮৭ শতাংশ ব্যাংক শাখা

গ্রাহকদের চাহিদা বিবেচনায় দ্রুত প্রসার হচ্ছে অনলাইন ব্যাংকিং সেবার। বেসরকারি ...

নির্বাচনের কারণে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না: অর্থমন্ত্রী

নির্বাচনের কারণে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না: অর্থমন্ত্রী

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক অঙ্গনে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির ...

উজিরপুরে সাংসদের পিএসের বিরুদ্ধে মামলা

উজিরপুরে সাংসদের পিএসের বিরুদ্ধে মামলা

বরিশালের উজিরপুরের জল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালদার নান্টু হত্যায় ...

রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধে ধস, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

রাজশাহী শহর রক্ষা বাঁধে ধস, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুর পুলিশ লাইনের সামনে পদ্মা নদীতে শহর রক্ষা ...

ইন্টারপোলের মাধ্যমে ফেরানো হলো মোনালিসার অভিযুক্ত খুনিকে

ইন্টারপোলের মাধ্যমে ফেরানো হলো মোনালিসার অভিযুক্ত খুনিকে

নারায়ণগঞ্জে ১২ বছর বয়সী স্কুলছাত্রী মোনালিসাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে ...

নির্দিষ্ট সময়েই নির্বাচন হবে: আইনমন্ত্রী

নির্দিষ্ট সময়েই নির্বাচন হবে: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, নির্বাচন নিয়ে এখনও অনেকে সংশয়ের মধ্যে ...