মেধাবী মুখ

শিক্ষকতা করতে চাই

প্রকাশ: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

শারমিন আক্তার সেজ্যোতি

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পরই নিজেকে নিয়ে নতুনভাবে ভাবতে শুরু করেন প্রদীপ। প্রতিটি ক্লাস-পরীক্ষা ও অ্যাসাইনমেন্টকে নিতেন অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে। সব সময় ভাবতেন, জীবনে বড় হতে হলে পড়াশোনার বিকল্প নেই। তাই পড়াশোনাকেই বেছে নিয়েছিলেন লক্ষ্য পূরণের হাতিয়ার হিসেবে। নিজের অধ্যবসায় ও পরিশ্রমের মাধ্যমে স্নাতকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের চারটি বিভাগের মধ্যে সিজিপিএ ৩.৯০ পেয়ে অর্জন করেন প্রথম স্থান এবং তারই পুরস্কার হিসেবে গত ২৫ জুলাই পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক -২০১৭।

বলছিলাম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগে স্নাতকোত্তরে অধ্যয়নরত প্রদীপ চন্দ্র বিশ্বাসের কথা। প্রদীপের বাড়ি নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার পাইকান গ্রামে। বড় হয়েছেন গ্রাম্য পরিবেশেই। ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনায় বেশ মনোযোগী। ২০১০ সালে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে বড়চাপা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর ২০১২ সালে বড়চাপা মহাবিদ্যালয় থেকে ব্যবসায় শিক্ষা থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায়। বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায়ও পান আশানুরূপ ফল। ভর্তি হন স্বপ্নের ক্যাম্পাস জাবিতে। শপথ নিয়েছিলেন পদচ্যুত না হওয়ার। তাই বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম দিন থেকেই ক্লাসে ছিলেন নিয়মিত ও মনোযোগী। চেষ্টা করতেন প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিন শেষ করতে। পাশাপাশি অংশগ্রহণ করতেন বিভিন্ন শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রমে। অবসরে বন্ধুদের সঙ্গে মেতে উঠতেন আড্ডায়। প্রদীপ বলেন, পরিবারে শত বাধা-বিপত্তি সত্ত্বেও বাবা আমাকে সর্বদা পড়াশোনায় উৎসাহ দিতেন, আমাকে পড়ার সুযোগ করে দিতেন। আর ব্যক্তিজীবনে মায়ের অবদান অনস্বীকার্য। তার অবদান কোনো মানদণ্ড দিয়ে মাপা সম্ভব নয়। বাবা-মা সর্বদা আমাকে ভালো ফলের চেয়ে একজন ভালো মানুষ হতে শিক্ষা দিতেন। তবে আমি খুব ভাগ্যবান যে, জীবনে অসংখ্য শিক্ষকের স্নেহ ও গাইডলাইন পেয়েছি। কীভাবে পড়লে আরও ভালো করা যায় সে বিষয়ে বিভাগের প্রত্যেক শিক্ষক আমাকে সর্বদা দিকনির্দেশনা দিতেন। পড়াশোনার পাশাপাশি ব্যক্তিজীবনেও তারা আমাকে সাহায্য-সহযোগিতা করতেন। শিক্ষকরাই প্রকৃত মেন্টর। আর তাই পেশা হিসেবে শিক্ষকতাই পছন্দ প্রদীপের। ফিন্যান্স বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি লাভ করার পাশাপাশি এ বিষয়ে গবেষণা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করারও ইচ্ছা আছে  তার।
সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-সাদিও মানে-ফিরমিনো বনাম নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানি! কিংবা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের সাবেক দুই কোচ ...

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের ইনিংসের তখন ২৯ ওভার চলছে। কোন উইকেট না হারিয়ে ...

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

রুটি সেঁকতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত না আবার হাতটাই পুড়ে যায়- ...

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

সাধারণ শিক্ষার্থীরা আশাবাদী। তবে কিছুটা সন্দেহ আর সংশয়ে আছে ক্যাম্পাসে ...

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ক্রমশই বাড়ছে। ১০ বছর আগে ২০০৮ ...

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

চলমান রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য। আওয়ামী ...

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

ভিটেমাটির সঙ্গে শিশু নাসরিন আক্তারের স্কুলটিও গেছে পদ্মার গর্ভে। তীরে ...

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

হাটহাজারীর কাটিরহাট থেকে ছয় কিলোমিটার ইটবিছানো রাস্তার পর প্রায় এক ...