শাড়ির ঢং এবং গহনা

প্রকাশ: ১৬ মে ২০১৮      

সারাহ্‌ দীনা

আঁচল যখন লুটায় মাটিতে

আঁচল খুলে রেখে শাড়ি পরার আবেদন সব সময়ের ট্রেন্ডি। আগের দিনেও দেখা যেত এমন ঢঙে শাড়ি পরার চল, এখনও দেখা যাচ্ছে আগের মতো রয়েছে এর জনপ্রিয়তা। বেশ মানিয়ে যাবে এমনভাবে শাড়ি ঈদের দাওয়াতে।

গুছিয়ে রাখি আঁচল

কাঁধের ওপরে আঁচল একটু চিকন করে গুছিয়ে রাখার চল বেশ নজরকাড়া এবং আরামদায়ক। এমন ঢঙে শাড়ি পরে সহজে কাজ করা যায়, চলাফেরাতেও হয় বেশ সুবিধা। ঈদের দিনের অতিথি আপ্যায়নে এমনভাবে শাড়ি পরে নিলে বেশ লাগবে দেখতে। সঙ্গে আপনি কাজ করতে পারবেন স্বাচ্ছন্দ্যে।

আঁচলের ভাঁজে

আঁচল ভাঁজ করে রাখা যেতে পারে কাঁধের পাশে। এভাবে শাড়ি পরে নিলে ভারি গড়নের মেয়েদের পাতলা গড়নের দেখায় বলে জানালেন দীপা দাস। এমনভাবে ভাঁজ করে শাড়ি পরলে শাড়ির পাড় সুন্দরভাবে দৃশ্যমান হয়, যা নিয়ে আসে বেশ জমকালো ভাব।

আঁচলের নতুন রূপে

শাড়ির আঁচল পেছন থেকে ঘুরিয়ে এনে সামনে সুন্দর করে সেট করে নেওয়া যেতে পারে এক পাশে। এর সঙ্গে পরতে হবে একটু বাহারি ধরনের ব্লাউজ, যা সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেবে অনেকাংশে। এ ধরনের শাড়ি পরে চলে যেতে পারেন ঈদের দিনে সন্ধ্যার দাওয়াতে। কিংবা রাতের জমকালো আড্ডাতে।

এক প্যাঁচে পরি শাড়ি

শাড়ি পরে নিতে পারেন এক প্যাঁচে। এতে বেশ আনকোরা লাগবে আপনার সাজ। অন্যদের মাঝে হয়ে থাকবেন আলাদা। এমন ঢঙে পরা শাড়ির সঙ্গে কোমরে জড়াতে পারেন ধাতু দিয়ে তৈরি বিছা। এ ধরনের সাজে নজর কাড়বেন আপনি।

গলার পাশে বাহারি আঁচল

আঁচল নিয়ে করা যেতে পারে একটু নিরীক্ষাধর্মী সাজ এবারের ঈদের আয়োজনে। আঁচল নিয়ে আসতে পারেন গলার দু'পাশ দিয়ে সামনে। এভাবে শাড়ি পরার চল তেমন একটা দেখা যায় না, তবে যদি এমন শাড়ি বহন করতে পারেন আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে, তাহলে অন্য রকম দেখতে লাগবে আপনাকে। এমনভাবে শাড়ি পরার জন্য, একটু ভারী পাড়ের শাড়ি বেছে নেওয়াই ভালো। তাতে সৌন্দর্যটা বোঝা যাবে ঠিকভাবে। শাড়ি ভাঁজ করে নেওয়া যাবে পাড়কে ওপরে রেখে। এক্ষেত্রে খেয়াল রাখবেন দু'পাশের আঁচলের মাপ যেন সমান হয়।

ঈদ এমন একটি উৎসব, যার জন্য তোলা থাকে অনেক ধরনের সাজগোজ। নানা রঙ-বেরঙ শাড়ির সঙ্গে গহনা পরে নিলে তবেই সাজে আসে পূর্ণতা। এই সময়ের নারীরা বেশ পছন্দ করছেন সাজ। আগের থেকে বেড়েছে গহনা পরে ঘুরে বেড়ানোর চল। তাই এবারের ঈদে কেমন ধরনের গহনা থাকবে, ক্রেতাদের পছন্দের তালিকার প্রথম দিকে তা জানাতে আজকের আয়োজন-

বর্তমানে গহনার বাজারে আছে দেশের সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যবাহী গহনার চাহিদা। ঈদের এমন ধরনের চাহিদা থাকবে এমনটাই জানা গেল বাজার ঘুরে। এ ধরনের চাহিদা তৈরির পেছনে আছে গহনার নকশার অভিনবত্ব আর আভিজাত্য। স্বর্ণ ছাড়া অন্য কোনো ধাতুর গহনা ব্যবহার করা অথবা তৈরি করার চল মাঝখানে তেমন একটা ছিল না, তবে ইতিহাস ঘাঁটতে গেলে রুপা এবং তামার গহনার জয়জয়কার আমরা খুঁজে পাব পাতায় পাতায়। এখন আবারও এসেছে সেই চল। অনেকেই এখন বেছে নিচ্ছেন রুপা, তামা এবং পিতলের গহনা। এসব গহনার প্রতি আকর্ষণ দিন দিন বাড়ছে ক্রেতাদের- এমনটাই জানা গেল বাজার ঘুরে। এ ধরনের গহনা যেমন নান্দনিক, তেমন দামেও রয়েছে বেশ সস্তা। তাই মন চাইলেই কিনে নেওয়া যায় এ ধরনের ধাতুর গহনা। বিভিন্ন নকশার এসব গহনা তাই নজর কাড়ছে ক্রেতাদের। ঈদের আয়োজনে এমন ধরনের গহনার চাহিদা বেশ বাড়বে, তা বোঝাই যাচ্ছে বাজার ঘুরে।

কেমন চাইছেন ক্রেতারা আর কেমন কাজ করছেন নকশাকার, তাদের চাওয়ার মেলবন্ধন কী হচ্ছে জানতে আমরা আগেই ঘুরে নিয়েছি বাজার। জেনেছি, ক্রেতারা চাইছেন একটু ভারী নকশা। ক্রেতার চাহিদা আর নকশাকারের ভাবনা মিলেই সাধারণত তৈরি হয় গহনা। বর্তমানে একটু জমকালো নকশা যেমন চাইছেন ক্রেতারা, তেমনি নকশা করা হলেও কিছু নকশায় থাকছে বেশ সারল্য। যাতে তারা শুধু উৎসব অথবা দাওয়াত নয়, গহনা বেছে নিতে পারেন যে কোনো আয়োজনে। দুই ধরনের নকশা করা হচ্ছে সমানতালে।

ক্রেতারা এখন গহনার নকশার ক্ষেত্রে চান অভিনবত্ব। যত সুন্দর নকশাই হোক না কেন, একই ধরনের গহনা পরার ইচ্ছা এখন আর তেমন নেই ক্রেতার। বরং বেশিরভাগ সময়েই নিজেকে সাজাতে চান আনকোরাভাবে। যে কোনো উৎসব আয়োজনে হয়ে থাকতে চান অপরূপা।

নকশার ক্ষেত্রে এখন গঠনগত পরিবর্তন বেশ আকর্ষণীয় মনে করছেন ফ্যাশন সচেতনরা। সঙ্গে সজ্জামূলক নকশার দিকেও রাখতে হচ্ছে নজর, কেননা একই সঙ্গে আছে তারও চাহিদা। এ ক্ষেত্রে মিনা বেশ নজর কাড়ছে সবার। ব্রাশের ওপরে রুপালি এবং সোনালি রঙের সঙ্গে তাই ব্যবহার হচ্ছে মিনা। রঙ-বেরঙের পাথরের ব্যবহারেও গহনার নকশাতে নিয়ে এসেছে আভিজাত্য। আংটির দিকে বেশ আগ্রহ দেখা যাচ্ছে ইদানীং। একটু বড় আকারের নকশার আংটি চলছে এখন। নকশা করা ভারী আংটি বেশ মানিয়ে যাবে ঈদের দাওয়াত কিংবা অতিথি আপ্যায়নে।

চুড়ির ক্ষেত্রে- বেশ কয়েকটি চুড়ি একসঙ্গে পরে নেওয়ার ফ্যাশন চলছে এখন। নানা আকারের কয়েকটি চুড়ি একসঙ্গে পরে নেওয়া যেতে পারে শাড়ির সঙ্গে। এতে বাড়বে সৌন্দর্য। চুড়ির রিনিঝিনি যাদের খুব পছন্দের তারা একসঙ্গে পরে নিতে পারেন বেশ কয়েকটি চিকন চুড়ি। এর সঙ্গে মোটা দেখে একটি কিংবা দুটি চুড়ি পরে নিলে আর তেমন কোনো গহনা হাতে না পরলেও চলবে।

গলাতে মালা পরে নেওয়া যেতে পারে ঈদের সাজে। গলার সঙ্গে লেগে থাকা গহনা যেমন মন মাতাবে এবার, তেমনি একটু লম্বা ধরনের মালাও বেশ ভালো লাগবে ঈদের সাজে।

কানে পরে নিতে পারেন একটু বড় আকারের ভারী নকশার গহনা। কানে একটু বড় দুল পরে নিলে গলাতে আর ভারী কিছু না পরাই ভালো। তাহলে বেশ ছিমছাম দেখাবে সাজ।

দেশি শাড়ির সঙ্গে ঐতিহ্যবাহী গহনায় আসে এক অন্যরকম সৌন্দর্য, যা হাজারো মানুষের ভিড়েও পরিধানকারীকে করে তুলবে অনন্য। তাঁতের বোনা, হাফসিল্ক্ক এবং সিল্ক্ক মানিয়ে যাবে শাড়ির ক্ষেত্রে। রঙের ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন হালকা এবং গাঢ় দুই ধরনেরই রঙ। যেহেতু সময় এখন উৎসবের, তাই একটু গাঢ় রঙ বেছে নেওয়া যেতেই পারে।



মডেল : জারা, আরশি ও জেরিন

মেকআপ ও স্টাইলিং :দিপা দাস

পোশাক :জলছাপ।। গহনা :পৃ

ছবি :জাহিদ সৌরভ

পরবর্তী খবর পড়ুন : শাড়িতে সুন্দর

কর্মেই বেঁচে থাকবেন গোলাম সারওয়ার

কর্মেই বেঁচে থাকবেন গোলাম সারওয়ার

কর্মের মধ্যে বেঁচে থাকবেন বরেণ্য সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার। জীবনের শেষ ...

সড়কে ধীরগতি ট্রেনেও বিলম্ব

সড়কে ধীরগতি ট্রেনেও বিলম্ব

ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে, বাড়িফেরা মানুষের দুর্ভোগ ততই বাড়ছে। এবারের ...

নেপথ্যে ইউপিডিএফের ভাঙন

নেপথ্যে ইউপিডিএফের ভাঙন

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগ পর্যন্ত পাহাড়ে সংস্কারপন্থি জনসংহতির সঙ্গে ...

হাটভরা কোরবানির পশু, ক্রেতার অপেক্ষা

হাটভরা কোরবানির পশু, ক্রেতার অপেক্ষা

কোরবানি উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজধানীর অস্থায়ী পশুহাটগুলো ভরে উঠতে শুরু করেছে। ...

বহিস্কৃত নেতাদের ফেরাতে উদ্যোগ বিএনপির

বহিস্কৃত নেতাদের ফেরাতে উদ্যোগ বিএনপির

দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারামুক্তি ও নির্দলীয় ...

শেষের রোমাঞ্চে জয়ে অভিষেক রোনালদোর

শেষের রোমাঞ্চে জয়ে অভিষেক রোনালদোর

দলটা এখন রোনালদোর। তাই বলতে হচ্ছে রোনালদোর জুভেন্টাস ৩-২ গোলের ...

গুজব ছড়ানোর কথা ফারিয়া স্বীকার করেছেন: পুলিশ

গুজব ছড়ানোর কথা ফারিয়া স্বীকার করেছেন: পুলিশ

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সময় গুজব ছড়ানোর কথা স্বীকার ...

ফেসবুকে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট

ফেসবুকে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশেষ করে ফেসবুক ও টুইটারে প্রধানমন্ত্রী শেখ ...