১৯৭১ চট্টগ্রাম :যুদ্ধমুখর সময়

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

স্বাধীনতা যুদ্ধ, বাঙালির অস্তিত্বের সোপান। পাকিস্তানি হায়েনাদের সুসজ্জিত সেনাবাহিনীর সামনে দেশমাতৃকার প্রশ্নে বুকভরা সাহস নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে বীর বাঙালি। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে অর্জিত হয় লাল-সবুজের বাংলাদেশ। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সংঘটিত যুদ্ধের ঘটনাবলি নিয়ে আয়োজন 'বিজয়লগ্ন'...

১৫ আগস্ট চট্টগ্রাম বন্দরে 'অপারেশন জ্যাকপট' নামে চালানো মুক্তিযোদ্ধাদের অপারেশনটি ছিল পাকিস্তানি বাহিনীর ওপর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রথম সফল ও মনে ভয় ধরিয়ে দেওয়া বৃহৎ অপারেশন। এরপরই চট্টগ্রাম শহর এবং জেলায় পাকিস্তানি বাহিনী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে শুরু হয় তুমুল সম্মুখযুদ্ধ গেরিলা যুদ্ধ। আগস্টে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল সড়কের গুরুত্বপূর্ণ সেতুগুলো ধ্বংস করে চট্টগ্রামের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে পাকিস্তানি সেনাদের কিছুদিন বিচ্ছিন্ন করে রেখেছিল গেরিলা মুক্তিযোদ্ধারা।

চট্টগ্রাম বন্দরে অপারেশন জ্যাকপট পরিচালিত হয় ১৫ আগস্ট মধ্য রাতে অর্থাৎ ১৬ আগস্ট প্রথম প্রহরে। হরিণা ক্যাম্প থেকে আসা ৬০ মুক্তিযোদ্ধার দলকে ২০ জন করে তিন ভাগে বিভক্ত করে এ অপারেশন চালানো হয়। মূল অপারেশনের ৩১ জন নৌ-কমান্ডো মুক্তিযোদ্ধা অংশ নেয়। বাছাইকৃত ১০টি টার্গেট জাহাজগুলোর গায়ে সাঁতার কেটে গিয়ে মাইন লাগানো হয়। অপারেশনে তিনটি বড় অস্ত্রবাহী জাহাজসহ ছোট-বড় ২৬টি জাহাজ ধ্বংস হয়। এ অপারেশনের ৫০ হাজার ৮০০ টন জাহাজ ধ্বংস ও পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যায়। ক্ষতির পরিমাণ এত ব্যাপক ছিল যে, স্বয়ং টিক্কা খান রাত পোহাতে না পোহাতেই ঢাকা থেকে বিমানে ছুটে আসেন চট্টগ্রামে।

এ অপারেশনের পর চট্টগ্রামে শুরু হয় মুক্তিযোদ্ধা ও পাকিস্তানি বাহিনীর মধ্যে ভয়াবহ যুদ্ধ। ২৩ আগস্ট প্রথম প্রহরে কয়েকজন নৌ-কমান্ডো চট্টগ্রাম বন্দর ও পতেঙ্গার পাকিস্তানি নেভাল জাহাজগুলোয় মাইন লাগাতে যায়। গ্রেনেড হামলা চালিয়ে তারা চারটি বাঙ্কার ধ্বংস করে দেয়। এতে পাকিস্তানি সেনাদের বেশ কয়েকজন নিহত ও ১২ জন আহত হয়। একজন মুক্তিযোদ্ধা নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হন। ২৮ আগস্ট মিরসরাইয়ে মুক্তিযোদ্ধারা ট্রেন লাইনে মাইন পেতে রাখে। পাকিস্তানি সেনাদের একটি ট্রেন যাওয়ার সময় মাইন বিস্ম্ফোরিত হয়ে বেশ কিছু পাকিস্তানি সৈন্য মারা যায়। এটি ছিল অন্যতম সফল অপারেশন।

সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধ আরও মারাত্মক আকারে রূপ নেয়। ৫ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম শহরের উপকণ্ঠে এক রাজাকার ক্যাম্পের ওপর মুক্তিযোদ্ধাদের হামলায় ছয় রাজাকার নিহত ও অনেকে হতাহত হন। ১ অক্টোবর মিরসরাইয়ের দুর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে অবস্থিত রাজাকার ক্যাম্পে আক্রমণ করে মুক্তিযোদ্ধারা। মিরসরাইয়ে এটি ছিল পাকিস্তানি সেনাদের ওপর সবচেয়ে বড় হামলা।

ভারত থেকে মুক্তিযোদ্ধারা মিরসাইয়ে প্রবেশের পর শক্তি বৃদ্ধি করে ১ অক্টোবর রাতে সংঘবদ্ধ আক্রমণ করা হয়। এ আক্রমণে বেশ কয়েকজন পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকার মারা যায়। রাতভর যুদ্ধে ভোরে পাকিস্তানি সেনারা স্কুল ছেড়ে পালিয়ে যায়। ৩ অক্টোবর চট্টগ্রাম শহরের উপকণ্ঠ চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কের মদুনাঘাট বিদ্যুৎকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ট্রান্সফরমার উড়িয়ে দেওয়া হয় এবং বেশ কয়েকটি পাইপলাইনও ধ্বংস করে দেন মুক্তিযোদ্ধারা।

৩ নভেম্বর চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়কের রাঙ্গুনিয়ায় অবস্থিত রানীরহাট সেতুটি ধ্বংস করে দেন মুক্তিযোদ্ধারা। এ সেতু ধ্বংসে পার্বত্যাঞ্চলের পাকিস্তানি বাহিনীর অস্ত্র ও রসদ সরবরাহ বিঘ্ন ঘটে।

চট্টগ্রাম শহরে ৩০ নভেম্বর ভোর ৫টায় একযোগে চট্টগ্রাম শহরের ৫০০ পেট্রোল পাম্প, বিদ্যুৎ ট্রান্সফরমার, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় বোমা বিস্ম্ফোরণ ও গ্রেনেড হামলা চালিয়ে পাকিস্তানি বাহিনীর মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে দেন মুক্তিযোদ্ধারা। ৩০ নভেম্বরের অপারেশনে রাশিয়ান তেল ও গ্যাস কোম্পানিতে বিস্ম্ফোরণ, আমেরিকান এক্সপ্রেস ব্যাংক লুট, কৈবল্যধাম পেট্রোল ট্রেন অপারেশন, কাট্টলী ট্রেন অপারেশন, ফয়'স লেক ইলেকট্রিক টাওয়ার ধ্বংস, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হোস্টেলের সামনে দুটি পাইলন ধ্বংস, হোটেল আগ্রাবাদের ট্রান্সফরমার ধ্বংস, নেভি হেডকোয়ার্টার ট্রান্সফরমার ধ্বংস, হালিশহর বাজার পাকিস্তানি সেনা ক্যাম্পে গ্রেনেড চার্জ, চন্দপুরায় ট্রান্সফরমার ধ্বংস, পশ্চিম মাদারবাড়ী ট্রান্সফরমার ধ্বংস, জাম্বুরি মাঠের মোড়ে ট্রান্সফরমার ধ্বংস, সিঅ্যান্ডবি কলোনি ট্রান্সফরমার ধ্বংস, হেমসেন লেনে দু'বার ট্রান্সফরমার ধ্বংস, কোরবানীগঞ্জ ট্রান্সফরমার ধ্বংস, লালদীঘির ট্রান্সফরমার ধ্বংস, চট্টগ্রাম বন্দরের ৩ নম্বর গেটের সামনে শান্তি কমিটির সভা পণ্ড, পানওয়ালাপাড়ায় রাজাকার হত্যা করে পুরো শহরে নভেম্বর মাসে পাকিস্তানি সেনাদের কোণঠাসা করে ফেলেন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধারা। া

পরবর্তী খবর পড়ুন : অন্ধকার নয়; আলোর পথে

গোপালগঞ্জে বাসচাপায় শিশু নিহত

গোপালগঞ্জে বাসচাপায় শিশু নিহত

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে বাসচাপায় পাপ্পী দাস (৭) নামে এক শিশু নিহত ...

সরকারকে আলোচনার আলটিমেটাম

সরকারকে আলোচনার আলটিমেটাম

নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সব দলের ...

এবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় টাইগারদের

এবার ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় টাইগারদের

গল্পে পড়া উঠের পিঠে চড়া সেই বেদুইনরা নাকি এখন শুধুই ...

বালুখেকোরা খুবলে খাচ্ছে সুরমা

বালুখেকোরা খুবলে খাচ্ছে সুরমা

সিলেটের প্রাণ সুরমা নদীকে খুবলে খাচ্ছে বালুখেকোরা। অথচ এই নদী ...

বরিশালেও প্রকাশ্যে অবৈধ বালু উত্তোলন

বরিশালেও প্রকাশ্যে অবৈধ বালু উত্তোলন

হিজলা ও মুলাদী উপজেলার মধ্যবর্তী নয়াভাঙ্গুলী নদীর ৮-১০টি পয়েন্টে এবং ...

জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘে রোহিঙ্গা নিয়ে বিশ্বের সমর্থন চাইবেন প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে সহযোগিতার জন্য ফের আহ্বান জানাবেন ...

সালাহ ফিরেছেন, জিতেছে লিভারপুল

সালাহ ফিরেছেন, জিতেছে লিভারপুল

'ফর্মে নেই সালাহ।' কথাটা উঠে গিয়েছিল। কারণ মিসর তারকা মোহামেদ ...

২০ হাজার টাকা ঘুষের জন্য ওসির রাতভর নাটক

২০ হাজার টাকা ঘুষের জন্য ওসির রাতভর নাটক

একটি প্রতারণার মামলায় দুর্গাপুরের ঝালুকা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোজাহার ...