কাজী নজরুল ইসলাম

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

নজরুল তার কবিতায় ব্যতিক্রমী এমন সব বিষয় ও শব্দ ব্যবহার করেন, যা আগে কখনও ব্যবহূত হয়নি। কবিতায় তিনি সমকালীন রাজনৈতিক ও সামাজিক যন্ত্রণাকে ধারণ করায় অভূতপূর্ব জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তবে মানবসভ্যতার কয়েকটি মৌলিক সমস্যাও ছিল তার কবিতার উপজীব্য।

কাজী নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের জাতীয় কবি এবং অবিভক্ত বাংলার সাহিত্য, সমাজ ও সংস্কৃতিক্ষেত্রের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব। বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে তিনি 'বিদ্রোহী কবি' এবং আধুনিক বাংলা গানের জগতে 'বুলবুল' নামে খ্যাত। রবীন্দ্রনাথের অনুকরণমুক্ত কবিতা রচনায় তার অবদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তার ব্যতিক্রমধর্মী কবিতার জন্যই বাংলা 'ত্রিশোত্তর আধুনিক কবিতা'র সৃষ্টি সহজতর হয়েছিল বলে মনে করা হয়। নজরুল সাহিত্যকর্ম এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অবিভক্ত বাংলায় পরাধীনতা, সাম্প্রদায়িকতা, সাম্রাজ্যবাদ, উপনিবেশবাদ, মৌলবাদ এবং দেশি-বিদেশি শোষণের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেন। এ কারণে ইংরেজ সরকার তার কয়েকটি গ্রন্থ ও পত্রিকা নিষিদ্ধ করে এবং তাকে কারাদণ্ডে দণ্ডিত করে। নজরুলও আদালতে লিখিত 'রাজবন্দীর জবানবন্দী' দিয়ে এবং প্রায় চল্লিশ দিন একটানা অনশন করে ইংরেজ সরকারের জেল-জুলুমের প্রতিবাদ জানিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেন এবং সে সময় এর সমর্থনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাকে গ্রন্থ উৎসর্গ করে শ্রদ্ধা জানান।

বিংশ শতাব্দীর বাংলা মননে কাজী নজরুল ইসলামের মর্যাদা ও গুরুত্ব অপরিসীম। একাধারে কবি, সাহিত্যিক, সঙ্গীতজ্ঞ, সাংবাদিক, সম্পাদক, রাজনীতিবিদ এবং সৈনিক হিসেবে অন্যায় ও অবিচারের বিরুদ্ধে নজরুল সর্বদাই ছিলেন সোচ্চার। নজরুল তার কবিতায় ব্যতিক্রমী এমন সব বিষয় ও শব্দ ব্যবহার করেন, যা আগে কখনও ব্যবহূত হয়নি। কবিতায় তিনি সমকালীন রাজনৈতিক ও সামাজিক যন্ত্রণাকে ধারণ করায় অভূতপূর্ব জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তবে মানবসভ্যতার কয়েকটি মৌলিক সমস্যাও ছিল তার কবিতার উপজীব্য।

বাংলা সঙ্গীতের প্রায় সবক'টি ধারার পরিচর্যা ও পরিপুষ্টি, বাংলা গানকে উত্তর ভারতীয় রাগসঙ্গীতের দৃঢ় ভিত্তির ওপর স্থাপন এবং লোকসঙ্গীতাশ্রয়ী বাংলা গানকে উপমহাদেশের বৃহত্তর মার্গসঙ্গীতের ঐতিহ্যের সঙ্গে সংযুক্তি নজরুলের মৌলিক সঙ্গীতপ্রতিভার পরিচায়ক। নজরুলসঙ্গীত বাংলা সঙ্গীতের অণুবিশ্ব, তদুপরি উত্তর ভারতীয় রাগসঙ্গীতের বঙ্গীয় সংস্করণ। বাণী ও সুরের বৈচিত্র্যে নজরুল বাংলা গানকে যথার্থ আধুনিক সঙ্গীতে রূপান্তরিত করেন।

বাঙালি জাতির এ মহান কবি নজরুল জন্মগ্রহণ করেন এক দরিদ্র মুসলিম পরিবারে। তার প্রাথমিক শিক্ষা ছিল ধর্মীয়। স্থানীয় এক মসজিদে সম্মানিত মুয়াজ্জিন হিসেবেও কাজ করেছিলেন। মক্তব, মসজিদ ও মাজারের কাজে নজরুল বেশি দিন ছিলেন না। বাল্যবয়সেই লোকশিল্পের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে একটি লেটো (বাংলার রাঢ় অঞ্চলের কবিতা, গান ও নৃত্যের মিশ্র আঙ্গিক চর্চার ভ্রাম্যমাণ নাট্যদল) দলে যোগ দেন। তার চাচা কাজী বজলে করিম চুরুলিয়া অঞ্চলের লেটো দলের বিশিষ্ট ওস্তাদ ছিলেন এবং আরবি, ফার্সি ও উর্দু ভাষায় তার দখল ছিল। এ ছাড়া বজলে করিম মিশ্র ভাষায় গান রচনা করতেন। ধারণা করা হয়, বজলে করিমের প্রভাবেই নজরুল লেটো দলে যোগ দিয়েছিলেন। এ ছাড়া ওই অঞ্চলের জনপ্রিয় লেটো কবি শেখ চকোর (গোদা কবি) এবং কবিয়া বাসুদেবের লেটো ও কবিগানের আসরে নজরুল নিয়মিত অংশ নিতেন। লেটো দলেই সাহিত্য চর্চা শুরু হয়। এই দলের সঙ্গে তিনি বিভিন্ন স্থানে যেতেন, তাদের সঙ্গে অভিনয় শিখতেন এবং তাদের নাটকের জন্য গান ও কবিতা লিখতেন। নিজ কর্ম ও অভিজ্ঞতার আলোকে তিনি বাংলা ও সংস্কৃত সাহিত্য অধ্যয়ন শুরু করেন। একই সঙ্গে হিন্দু ধর্মগ্রন্থ, অর্থাৎ পুরাণগুলো অধ্যয়ন করতে থাকেন। সেই অল্প বয়সেই তার নাট্যদলের জন্য বেশ কিছু লোকসঙ্গীত রচনা করেন। একদিকে মসজিদ, মাজার ও মক্তব জীবন; অন্যদিকে লেটো দলের বিচিত্র অভিজ্ঞতা নজরুলের সাহিত্যিক জীবনের অনেক উপাদান সরবরাহ করেছে। নজরুল কালীদেবীকে নিয়ে প্রচুর শ্যামাসঙ্গীতও রচনা করেন।

তখন দেশজুড়ে অসহযোগ আন্দোলন বিপুল উদ্দীপনার সৃষ্টি করে। নজরুল কুমিল্লা থেকে কিছুদিনের জন্য দৌলতপুরে আলী আকবর খানের বাড়িতে থেকে আবার কুমিল্লা ফিরে যান ১৯ জুনে- এখানে যত দিন ছিলেন, তত দিনে তিনি পরিণত হন একজন সক্রিয় রাজনৈতিক কর্মীতে। তার মূল কাজ ছিল শোভাযাত্রা ও সভায় যোগ দিয়ে গান গাওয়া। তখনকার সময় তার রচিত ও সুরারোপিত গানগুলোর মধ্যে রয়েছে এ কোন পাগল পথিক ছুটে এলো বন্দিনী মার আঙ্গিনায়, আজি রক্ত-নিশি ভোরে/ একি এ শুনি ওরে/ মুক্তি-কোলাহল বন্দী-শৃঙ্খলেচ্ প্রভৃতি। এখানে ১৭ দিন থেকে তিনি স্থান পরিবর্তন করেছিলেন। ১৯২১ খ্রিষ্টাব্দের নভেম্বরে আবার কুমিল্লায় ফিরে যান। ২১ নভেম্বর ছিল সমগ্র ভারতব্যাপী হরতাল উপলক্ষে নজরুল আবার পথে নেমে আসেন; অসহযোগ মিছিলের সঙ্গে শহর প্রদক্ষিণ করেন আর গান করেনচ্ ভিক্ষা দাও! ভিক্ষা দাও! ফিরে চাও ওগো পুরবাসী। নজরুলের এ সময়কার কবিতা, গান ও প্রবন্ধের মধ্যে বিদ্রোহের ভাব প্রকাশিত হয়েছে। এর সর্বোৎকৃষ্ট উদাহরণ হচ্ছে 'বিদ্রোহী' নামক কবিতাটি। 'বিদ্রোহী' কবিতাটি ১৯২২ খ্রিষ্টাব্দে প্রকাশিত হয় এবং সারাভারতের সাহিত্য সমাজে খ্যাতি লাভ করে। ১৯২২ খ্রিষ্টাব্দের ১২ আগস্ট নজরুল 'ধূমকেতু' পত্রিকা প্রকাশ করেন। এটি সপ্তাহে দুবার প্রকাশিত হতো। ১৯২০-এর দশকে অসহযোগ ও খিলাফত আন্দোলন একসময় ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। এর পরপর স্বরাজ গঠনে যে সশস্ত্র বিপ্লববাদের আবির্ভাব ঘটে, তাতে ধূমকেতু পত্রিকার বিশেষ অবদান ছিল। এই পত্রিকাকে আশীর্বাদ করে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন, 'কাজী নজরুল ইসলাম কল্যাণীয়েষু, আয় চলে আয়রে ধূমকেতু।/ আঁধারে বাঁধ অগ্নিসেতু, দুর্দিনের এই দুর্গশিরে উড়িয়ে দে তোর বিজয় কেতন।'

পত্রিকার প্রথম পাতার শীর্ষে এই বাণী লেখা থাকত। পত্রিকার ২৬ সেপ্টেম্বর, ১৯২২ সংখ্যায় নজরুলের কবিতা আনন্দময়ীর আগমনে প্রকাশিত হয়। এই রাজনৈতিক কবিতা প্রকাশিত হওয়ায় ৮ নভেম্বর পত্রিকার উক্ত সংখ্যাটি নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়। একই বছরের ২৩ নভেম্বর তার যুগবাণী প্রবন্ধগ্রন্থ বাজেয়াপ্ত করা হয় এবং একই দিনে তাকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর তাকে কুমিল্লা থেকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়। ১৯২৩ খ্রিষ্টাব্দের ৭ জানুয়ারি নজরুল বিচারাধীন বন্দি হিসেবে আত্মপক্ষ সমর্থন করে এক জবানবন্দি প্রদান করেন। চিফ প্রেসিডেন্সি ম্যাজিস্ট্রেট সুইনহোর আদালতে এই জবানবন্দি দিয়েছিলেন। তার এই জবানবন্দি বাংলা সাহিত্যে 'রাজবন্দীর জবানবন্দী' নামে বিশেষ সাহিত্যিক মর্যাদা লাভ করেছে।

১৬ জানুয়ারি বিচারের পর নজরুলকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। নজরুলকে আলিপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। এখানে যখন বন্দি জীবন কাটাচ্ছিলেন, তখন (১৯২৩ খ্রিষ্টাব্দের জানুয়ারি ২২) বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ তার 'বসন্ত' গীতিনাট্য গ্রন্থটি নজরুলকে উৎসর্গ করেন। এতে নজরুল বিশেষ উল্লসিত হন। এই আনন্দে জেলে বসে 'আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে' কবিতাটি রচনা করেন।

কবি নজরুল দীর্ঘ কাব্যজীবন পাননি। ১৯৪২ সালে তাঁর মস্তিস্ক নিষ্ফ্ক্রিয় হয়ে যায়। পরবর্তী ৩৪ বছর নির্বাক জীবনে বাধ্য হন তিনি। ১৯৭৬ সালে প্রয়াত হন। া
মিরপুরের কালশি বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযান

মিরপুরের কালশি বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযান

রাজধানীর মিরপুরের কালশী বস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযান শুরু করেছে যৌথবাহিনী। রোববার ...

ছোট ভাইকে হাতুড়িপেটা করে মারল বড় ভাই!

ছোট ভাইকে হাতুড়িপেটা করে মারল বড় ভাই!

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ছোট ভাইকে হাতুড়ি-বাটাল ...

২৬ বছরের অভিনেত্রীর সঙ্গে ৭০ বছরের মহেশ ভাটের প্রেম!

২৬ বছরের অভিনেত্রীর সঙ্গে ৭০ বছরের মহেশ ভাটের প্রেম!

এক তরুণ অভিনেত্রীর কাঁধে মাথা রেখেছেন খ্যাতিমান পরিচালক মহেশ ভাট। ...

ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলা: ৩ রাষ্ট্রদূতকে তলব

ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলা: ৩ রাষ্ট্রদূতকে তলব

ইরাক সীমান্তের কাছে ইরানের সামরিক কুচকাওয়াজে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে শিশু ...

ফেঁসে যেতে পারেন যুক্তরাষ্ট্রে গ্রিন কার্ড আবেদনকারীরা

ফেঁসে যেতে পারেন যুক্তরাষ্ট্রে গ্রিন কার্ড আবেদনকারীরা

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন একটি প্রস্তাবনা দিয়েছে যার ফলে ...

বগুড়ায় রেলসেতুর মেরামত কাজ সন্ধ্যা নাগাদ শেষ হতে পারে

বগুড়ায় রেলসেতুর মেরামত কাজ সন্ধ্যা নাগাদ শেষ হতে পারে

বগুড়ায় দেবে যাওয়া রেলসেতুর মেরামত কাজ শেষ না হওয়ায় রোববার ...

সাতক্ষীরায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটক ৬৩, ইয়াবা-ফেনসিডিল উদ্ধার

সাতক্ষীরায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটক ৬৩, ইয়াবা-ফেনসিডিল উদ্ধার

সাতক্ষীরা জেলাব্যাপী পুলিশের বিশেষ অভিযানে জামায়াত-শিবিরের ছয় নেতাকর্মীসহ ৬৩ জনকে ...

জলাতঙ্ক থেকে বাঁচার উপায়

জলাতঙ্ক থেকে বাঁচার উপায়

র‌্যাবিসকে বাংলায় জলাতঙ্ক বলা হয়। অর্থাৎ জলে যার আতঙ্ক। এই ...