মিত্রদের নিরাপত্তায় অটল থাকবে পেন্টাগন

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০১৮      

সমকাল ডেস্ক

দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ মহড়া বাতিল হবে, ট্রাম্পের এমন ঘোষণা বিচলিত করে তুলেছে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের। এশিয়ায় দেশটির সবচেয়ে বড় মিত্র দক্ষিণ কোরিয়া ট্রাম্পের ঘোষণার 'সত্যিকারের অর্থ ও উদ্দেশ্য' খতিয়ে দেখছে বলে জানিয়েছে। পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, এটা উত্তর কোরিয়ার জন্য খুব বড় ধরনের একটা ছাড়। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কোরিয়ায় সামরিক মহড়া বাতিলের ঘোষণা দিলেও মিত্রদের 'লৌহবর্ম' নিরাপত্তা প্রতিশ্রুতিতে অবিচল থাকার ব্যাপারে আশ্বস্ত করেছে পেন্টাগন। খবর বিবিসি, এএফপির।

সিঙ্গাপুরে উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক বৈঠকের পর মঙ্গলবার ট্রাম্প কোরীয় অঞ্চলে 'যুদ্ধ মহড়া' বাতিলের ঘোষণা দেন। মিত্রদের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই যে তিনি এ ঘোষণা দিয়েছেন, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রাথমিক প্রতিক্রিয়াতেই সে বিষয়ে ইঙ্গিত মেলে।

তার এ ঘোষণা এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদেরও তাক লাগিয়ে দিয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের দপ্তর ব্লু হাউস থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, 'ট্রাম্পের ঘোষণার সত্যিকারের অর্থ কি? কিংবা কী উদ্দেশ্য? এটা খুঁজে দেখা প্রয়োজন।'

সোমবারও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জেমস ম্যাটিস ট্রাম্প-কিম বৈঠকে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি আলোচ্যসূচিতে নেই বলে সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছিলেন।

তবে মঙ্গলবারের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্পের ঘোষণা ম্যাটিসকে বিস্মিত করেছে, এমনটা স্বীকার করতে রাজি হয়নি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে আগেই প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে বলেও জানান পেন্টাগনের মুখপাত্র ডানা হোয়াইট। তিনি বলেন, 'শান্তি নিশ্চিতকরণ এবং ওই অঞ্চলের স্থ্থিতিশীলতায় মিত্রদের সঙ্গে আমাদের জোট আগের মতোই লৌহবর্ম নিরাপত্তায় ঘেরা থাকবে।'

মঙ্গলবার বৈঠকের পর বেশ কয়েকটি টুইটে ট্রাম্প বলেছেন, 'উত্তর কোরিয়া যদি পারমাণবিক অস্ত্র ছেড়ে দেয়, তাহলে তাদের অর্জনের 'সীমা-পরিসীমা থাকবে না।'

উত্তর কোরিয়ার জনগণের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য 'প্রথম সাহসী পদক্ষেপ নেওয়ায়' কিমকে ধন্যবাদও জানান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, 'এর মাধ্যমে বিশ্বকে সম্ভাব্য পারমাণবিক ধ্বংসযজ্ঞ থেকে অনেকটা সরিয়ে আনা গেছে।'

মঙ্গলবার দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে টেলিফোনে মিনিট বিশেকের মতো কথা বলেন। আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে কোরিয়ায় সামরিক মহড়ার বিষয়ে কোনো কথা হয়েছে কি না, তা জানা যায়নি।

বৈঠকের পর প্রথম মন্তব্যে কিম 'একে অপরের বিরুদ্ধে উত্তেজক ও বিরক্তিকর সামরিক পদক্ষেপ' বন্ধ করাকে 'জরুরি' হিসেবে অ্যাখ্যায়িত করেন।

উত্তর কেরিয়াররাষ্ট্রীয় গণ মাধ্যম কেসিএনএ বলেছে, দুই দেশেরই উচিত একে অপরের বিরোধিতা থেকে নিজেদের বিরত থাকার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া এবং এ বিষয়ে আইনি ও প্রাতিষ্ঠানিক পদক্ষেপ গ্রহণের নিশ্চয়তা দেওয়া।'

দক্ষিণ কোরিয়ায় স্থানীয় বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য ও দেশটিতে থাকা মার্কিন ঘাঁটির সদস্যরা 'যুদ্ধ মহড়া' নামে পরিচিত এই সামরিক প্রশিক্ষণে অংশ নিয়ে থাকেন। এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম শক্তিশালী এ সামরিক ঘাঁটিতে সার্বক্ষণিকভাবে প্রায় ৩০ হাজার সৈন্য থাকে বলে ধারণা করা হয়।

পিয়ংইয়ং শুরু থেকেই এ ধরনের সামরিক আয়োজনকে 'আগ্রাসনের প্রস্তুতি' হিসেবে অভিহিত করে বার্ষিক এ মহড়া বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছিল।

অন্যদিকে এতদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া এ সামরিক মহড়াকে 'প্রতিরক্ষামূলক' অ্যাখ্যা দিলেও মঙ্গলবারের সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প সেখান থেকে সরে আসেন। তিনি যুদ্ধ মহড়াটিকে উত্তর কোরিয়ার জন্য 'উস্কানিমূলক' হিসেবে অভিহিত করেন।

এটি বাতিল হলে দু'দেশেরই বিশাল পরিমাণ অর্থ বাঁচবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তবে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক ঘাঁটি থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের কথাও বললেও কোনো সময়সীমা বেধে দেননি ট্রাম্প।

উত্তর কোরিয়া সহযোগিতা না করলে যুদ্ধ মহড়াটি ফের বহাল করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।
সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-সাদিও মানে-ফিরমিনো বনাম নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানি! কিংবা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের সাবেক দুই কোচ ...

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের ইনিংসের তখন ২৯ ওভার চলছে। কোন উইকেট না হারিয়ে ...

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

রুটি সেঁকতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত না আবার হাতটাই পুড়ে যায়- ...

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

সাধারণ শিক্ষার্থীরা আশাবাদী। তবে কিছুটা সন্দেহ আর সংশয়ে আছে ক্যাম্পাসে ...

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ক্রমশই বাড়ছে। ১০ বছর আগে ২০০৮ ...

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

চলমান রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য। আওয়ামী ...

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

ভিটেমাটির সঙ্গে শিশু নাসরিন আক্তারের স্কুলটিও গেছে পদ্মার গর্ভে। তীরে ...

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

হাটহাজারীর কাটিরহাট থেকে ছয় কিলোমিটার ইটবিছানো রাস্তার পর প্রায় এক ...