সাগরপাড়ের শঙ্খচিল

পায়ের তলায় শর্ষে

প্রকাশ: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

মারিয়া নূর

পাহাড়ের ঢালে আছড়ে পড়ছে সাগরের ঢেউ- এ দৃশ্য দেখার জন্য যোজন যোজন মাইল পথ পাড়ি দিতেও রাজি আছি। সাগরের নীল জলরাশি ভুবন ভুলিয়ে দেয়। যখনই নীল জলরাশির দিকে তাকাই, কোথায় যেন নিজেকে হারিয়ে ফেলি! ডানা নেই, তবুও উড়তে ইচ্ছা করে। মনে হয়, আমি সাগরপাড়ের শঙ্খচিল- উড়ে বেড়াতে মানা নেই কোনো। জানি না, সমুদ্রের কোনো সম্মোহনী শক্তি আছে কি-না। হয়তো আছে, নইলে একাই কেন ছুটে গিয়েছিলাম গিলি আইল্যান্ডে- এ প্রশ্ন নিজেই নিজেকে করি। ২০১৩ সালে একটি ট্রাভেল শোর জন্য প্রথম পা রেখেছিলাম ইন্দোনেশিয়ার গিলি আইল্যান্ডে। নারিকেল বীথির এই দ্বীপ এতটাই মুগ্ধ করেছিল, তখনই ঠিক করে রেখেছিলাম, দেশের বাইরে যদি কোথাও ভ্রমণে যাই, পছন্দের তালিকার শুরুতেই রাখব গিলি আইল্যান্ডের নাম। মাঝে চার বছর কেটে গেলেও গিলি আইল্যান্ডের হাতছানি এড়াতে পারিনি। তাই ২০১৭ সালে একাই বেরিয়ে পড়েছিলাম গিলি আইল্যান্ড ভ্রমণে।

খেয়াল করে দেখেছি, ইন্দোনেশিয়া ভ্রমণের জন্য গেলে অনেকেই বালি দ্বীপকে বেছে নেয়। কিন্তু আমার কেন জানি, বালির চেয়ে গিলি বেশি প্রিয়। বালির পূর্বদিকেই লম্বক দ্বীপপুঞ্জ। আর লম্বকের সবচেয়ে জনপ্রিয় জায়গা হলো গিলি। সাসাক ভাষায় গিলি মানে ছোট। নামের মতোই ছোট তিনটি দ্বীপ গিলি ত্রাওয়ানগান, গিলি এয়ার ও গিলি মেনো নিয়ে এই দ্বীপ। এ দ্বীপের প্রকৃতিক সৌন্দর্য বলে বোঝানো যাবে না। নীল কত রকমের হতে পারে, তা গিলি গিয়ে নতুন করে জেনেছি। পানির অদ্ভুত নীল রঙ ক্ষণে ক্ষণে বদলে যায়। কিন্তু এই জলরাশি এতটা স্বচ্ছ যে সমুদ্রের তলানি পর্যন্ত দেখা যায়। তাই তো যখন তখন সমুদ্রস্নানে মেতে উঠতেও ভয় নেই। আমিও নির্ভয়ে সামুদ্রস্নানের উল্লাসে মেতে উঠেছিলাম।

চার বছর আগে গিলিতে যখন প্রথম যাই, তখন যতটা সুন্দর ছিল, চার বছর পরও তা এতটুকু ম্লান হয়নি। পর্যটকদের জন্য সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে কয়েক গুণ। কিন্তু কিছু জিনিস যেন ঐতিহ্য ধরে রাখতেই বদল করা হয়নি। যেমন এই দ্বীপে আজও কোনো মোটরযান ঢুকতে দেওয়া হয় না। ডাঙায় ঘোড়ার গাড়ি নয়তো সাইকেল চালিয়ে নয়তো হেঁটে পর্যটকদের ঘুরে বেড়াতে হয়। যান্ত্রিক জীবন যেন নতুন করে হানা না দেয়- সে কথা ভেবেই হয়তো এ ব্যবস্থা। শুনলে অবাক হবেন, পুরো দ্বীপ ঘোড়ার গাড়ি বা সাইকেলে চক্কর দিতে সময় লাগে মাত্র এক ঘণ্টা। কিন্তু এই এক ঘণ্টায় যা কিছু চোখে পড়বে সবই মনে হয় ছবির মতো সুন্দর। আমি নিশ্চিত, পুরো দ্বীপ ঘুরে দেখার পর আপনারাও সে কথা স্বীকার করবেন।

সমুর্দের নীল দু'চোখ যেমন ভরিয়ে রাখে, তেমই এই নীল জলের গভীরেও ডুব দেওয়ার বাসনা জাগে। তাই তো গিলি গিয়ে স্কুভা ডাইভিং, জলের নিচে হাঁটা থেকে শুরু করে গ্লাস বোটে ভ্রমণ- কোনো কিছুই বাদ রাখতে চাইনি। যে জন্য পুরো সফরে মুক্ত বিহঙ্গের মতোই স্বাধীনভাবে উড়ে বেড়িয়েছি। যদিও বিদেশ ভ্রমণে গিয়ে খাবার-দাবার নিয়ে ভাবনায় পড়ে যাই, কিন্তু গিলিতে সেসব নিয়ে দুশ্চিন্তা করতে হয় না। আমরা যারা দক্ষিণ এশিয়ার বাসিন্দা, তাদের তো একদম ভাবতে হয় না। ইন্দোনেশিয়া মুসলিম দেশ বলেই এখানকার সব খাবারই হালাল। স্থায়ী বিভিন্ন পদের খাবার ছাড়াও কন্টিনেন্টাল খাবারও পাওয়া যায়। থাকার জন্যও আছে বিশেষ ব্যস্ততা। সব মিলিয়ে গিলি ভ্রমণ দারুণ আনন্দদায়ক।

সমুদ্র কতটা ভালো লাগে, তা হয়তো আমার কথায় এতক্ষণে অনেকেই বুঝে গেছেন। কিন্তু শুনলে অবাক হবেন, সমুদ্র যার এত প্রিয় সেই আমি দেশে থাকলে ভ্রমণের জন্য সমুদ্রসৈকতের বদলে বান্দরবানকে বেছে নিই। এর কারণ একটাই, পাহাড়ে উঠে মেঘ ছুঁয়ে দেখা। বান্দরবানে গেলে পাহাড়চূড়ায় উঠে মেঘ ছুঁয়ে দেখার চেষ্টা করি। সে মুহূর্তে মনে হয়, নিজেই যেন মেঘের কোলে চড়ে ভেসে বেড়াচ্ছি। এ এক অদ্ভুত অনুভূতি, যা বান্দরবানে গিয়ে পেয়েছি। মেঘ আমার অসম্ভব প্রিয়। উড়োজাহাজে চড়েও তাই একনাগাড়ে মেঘের দিকে তাকিয়ে থাকি। মনে হয়, তাদের সঙ্গে ডানা মেলে আমিও উড়ে যাচ্ছি। নানা রূপের মেঘের ছবি ক্যামেরাবন্দি করতেও ভুল করি না কখনও।

পরবর্তী খবর পড়ুন : মেঘবতী মেঘকুমারী

রাজশাহী খুলনা বরিশাল ও রংপুরের ৮১ আসনে আ'লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত

রাজশাহী খুলনা বরিশাল ও রংপুরের ৮১ আসনে আ'লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত

রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও রংপুর বিভাগের কমপক্ষে ৮১ আসনে দলীয় ...

এমপি হতে চান ১২ হাজার!

এমপি হতে চান ১২ হাজার!

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে এমপি হতে চান ১২ হাজারের বেশি নেতা। ...

শিক্ষকদের ভোটের 'ভেট'

শিক্ষকদের ভোটের 'ভেট'

নির্বাচনের আগেই সারাদেশের সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকরা পেলেন বেশ কিছু ...

শেকড়ের টান উপেক্ষা করা যায় না

শেকড়ের টান উপেক্ষা করা যায় না

ইউরোপে যখন রক আর টেকনো নিয়ে মাতামাতি চলছে, ঠিক সেই ...

নতুন মুখ আসতে পারে বগুড়ার তিন আসনে

নতুন মুখ আসতে পারে বগুড়ার তিন আসনে

বগুড়ায় এবার অন্তত তিনটি আসনে ধানের শীষ প্রতীকে নতুন প্রার্থী ...

জয়পুরহাটে লেভেল ক্রসিংয়ে অল্পের জন্য বাঁচলো ৪৮ বাস যাত্রী

জয়পুরহাটে লেভেল ক্রসিংয়ে অল্পের জন্য বাঁচলো ৪৮ বাস যাত্রী

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর পৌর এলাকার পশ্চিম আমুট্ট (মহিলা কলেজ সংলগ্ন) এলাকায় ...

সিডরে নিখোঁজের ১১ বছর পর প্রত্যাবর্তন

সিডরে নিখোঁজের ১১ বছর পর প্রত্যাবর্তন

প্রলংয়করী ঘূর্ণিঝড় সিডরে নিখোঁজের ১১ বছর পর বাড়ি ফিরেছেন শরণখোলা ...

সরকারি কাজে বাধা দেয়ায় রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির জেল

সরকারি কাজে বাধা দেয়ায় রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির জেল

সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক ...