বিলিভ ইট, সুপার হিট

প্রকাশ: ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

সত্যজিৎ বিশ্বাস

হাবুল জনপ্রিয় হইতে চায়। অনেক অনুসন্ধান, অনেক ঘুঁটাঘুঁটি করিয়া অবশেষে সন্ধান পাওয়া গেল একজন সুপার প্রতিভাধর পরামর্শদাতা। অতি গোপন সূত্রে হাবুল শুনিয়াছে, ইলেকশনে নিশ্চিত বিজয়ী প্রার্থী ফেল মারিতে পারে, এসএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়া ছাত্র এইচএসসিতে ফেল মারিতে পারে; কিন্তু সেই পরামর্শদাতার পরামর্শ নাকি ফেল মারে না। কোনো প্রবলেমই তাহার কাছে সমস্যা নয়। অতঃপর অনেক আশায় বুক বাঁধিয়া হাবুল হাজির হইল পরামর্শদাতার দ্বারে।

পরামর্শদাতা :কী বিষয়?

হাবুল :জি, আমার নাম হাবুল।

পরামর্শদাতা :তা তো আপনার নাম শুনিয়াই বুঝিতে পারিলাম।

হাবুল :জি, আমাকে কিছু বলিলেন?

পরামর্শদাতা : জি জনাব, আপনাকেই বলিয়াছি। আপনার নাম জানিতে চাই নাই। আমার কাছে আপনার নাম বাইট্টা সোলেমান হইলেও যা, সালমান খান হইলেও তা। বলিলাম, রাখঢাক না রাখিয়া পুরো বিষয়খানা খুলিয়া বলুন। নচেৎ আম-ছালা দুই-ই যাইবে। টাকা আর সময় দুই-ই খরচ হইবে অথচ উদ্দেশ্য সফল হইবে না।

হাবুল : ভাই, আমি আর আমার পরিবার ফেমাস হইতে চাই। পত্রিকার পাতায় যেন আমাদের নাম বড় বড় হরফে ছবিসমেত ছাপা হয়। বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল যেন আমাদের দেখিয়া হুমড়ি খাইয়া পড়িয়া সাক্ষাৎকার লইবার তাগিদে পশ্চাতে ছোটে। ফেসবুকে যেন আমাদের লইয়া সুনামি শুরু হয়। বিভিন্ন সভা-সমিতি, ক্লাবের লোকজন যেন আমাদের প্রধান অতিথি করিবার তাগিদে অস্থির হইয়া পড়ে। রাস্তায় মানুষজন আমাদের দেখিলে সেলফি তুলিবার বাসনায় ভিড় জমায়।

পরামর্শদাতা :বুঝিতে পারিয়াছি, আর বলিতে হইবে না। আপনার এ চাওয়াটা অত্যন্ত ন্যায্য। দুই দিনের দুনিয়ায় যদি মানুষ না-ই চিনিল, নাই সমীহ করিল তাহা হইলে কিসের নিমিত্তে এই মানব জীবন?

হাবুল :জি জনাব, আপনি ঠিকই ধরিয়াছেন। সেই হেতুই আপনাকে ধরিলাম। আছে এমন কোনো উপায়?

পরামর্শদাতা :আলবৎ আছে। যদি আমার বুদ্ধিমতো কাজ করিতে পারেন, তবে আর পশ্চাতে ফিরিয়া তাকাইতে হইবে না। দুই দিনেই আপনারা জনপ্রিয়তার তুঙ্গে অবস্থান করিবেন। পত্রিকায় আপনাদের নাম-ধামসমেত ছবি জ্বলজ্বল করিতে থাকিবে। কোনো টেলিভিশন চ্যানেলের দ্বারে দ্বারে সশরীরে ধরনা দিয়া বকের মতো এক ঠ্যাংয়ে দাঁড়াইয়া থাকিতে হইবে না। সব টিভি চ্যানেলই বরং নিজ উদ্যোগে আপনাদের খবর প্রচার করিতে থাকিবে। বুঝিতেই পারিতেছেন, এই বিষয়ে অ্যাডভাইজারি ফি কিন্তু কিঞ্চিৎ বেশি পড়িবে।

হাবুল :এইটা কোনো বিষয়ই নয়। তবে পূর্ব হইতেই বলিয়া রাখা ভালো, আমি কিন্তু কোনো গান-বাজনা পারি না আর আমার বউও কোনো নুডলস-টুডলস বানাইতে পারে না।

পরামর্শদাতা :ও আচ্ছা। আর কিছু?

হাবুল :শিক্ষা-দীক্ষার অবস্থা বিশেষ মানের না হওয়ায় কোথাও কোনো প্রতিভার স্বাক্ষর এখনও রাখিতে পারি নাই।

পরামর্শদাতা :কোনো অসুবিধা নাই। প্রতিভার স্বাক্ষর লাগিবে না। নিজের নাম স্বাক্ষর করিতে পারেন তো? নাকি টিপ সইয়ে কাজ চালাইতে হয়?

হাবলু :কী যে লজ্জা দেন, নাম স্বাক্ষর করিতে পারিব না কেন?

পরামর্শদাতা :তাহা হইলে কান খাড়া করিয়া শুনুন- আপনি একেবারে সঠিক জায়গায়, সঠিক সময়ে অবতরণ করিয়াছেন। ভাবনার শুধু একটা জায়গাই আছে। তাহা হইল, এই বিষয়ে খরচ করার মতো ক্যাশ কীরূপ আছে?

হাবুল :ভাই রে, পূর্বেই তো বলিলাম, ক্যাশ কোনো বিষয়ই নয়।

পরামর্শদাতা :তাহা হইলে তো হইয়াই গেল।

হাবলু :কী হইয়া গেল ভাই?

পরামর্শদাতা :পুরা বিষয়টা সেট হইয়া গেল।

হাবলু :বলেন কী ভাই! কোনো যোগ্যতা ছাড়াই পুরা ব্যাপারটা সেট হইয়া গেল কী করিয়া? আপনি কি ম্যাজিশিয়ান?

পরামর্শদাতা :ম্যাজিক না দেখাইতে পারিলে কি আর এই পেশায় টিকিয়া থাকা যায়? শুনুন তবে, গাবতলীর গরুর হাট চেনেন?

হাবুল :এই জায়গা না চিনিবার কী আছে?

পরামর্শদাতা :আপনি কোরবানি ঈদের দুই-তিন দিন আগে হাটে যাইবেন। পুরা বাজার ঘুরিয়া সবচেয়ে দামি গরুটা কিনিবেন। ব্যস, আপনার আর কিছু করিতে হইবে না। তারপর যা করার পত্রিকাওয়ালা আর টিভি চ্যানেলওয়ালারাই করিবে।

হাবুল :কী করিবে ভাই?

পরামর্শদাতা :পরদিন পেপার খুলিলেই আপনার আর গরুর ছবি দেখিতে পারিবেন প্রথম পাতায়। টিভির সুইচ অন করিলে দেখিবেন প্রত্যেক চ্যানেলে খবর প্রচারের সময় আপনাকে গরুসমেত কতবার প্রচার করে। ফেসবুকে আপনাদের মানে আপনার আর গরুর ছবি সুপার হ্যাশ ট্যাগ হইবে। সবাই আপনার দিকে জেলাসির চোখে তাকাইয়া দেখিবে। কেউ হিংসায় জ্বলিয়া-পুড়িয়া অঙ্গার হইয়া যাইবে, কেউ বা ছুটিয়া আসিবে আপনার ইন্টারভিউ লইতে। আপনি তো তখন সুপার হিট।

হাবুল :ভাই তো জব্বর বুদ্ধি দিলেন। তা আমার পরিবারের ব্যাপারটা? ওকেও কি গরুর হাটে লইয়া যাইব?

পরামর্শদাতা :ইহা কী বলিলেন ভাই? ভাবিকে গরুর হাটে পাঠাইবেন কেন?

হাবুল :তাহা হইলে?

পরামর্শদাতা :ভাবি যাইবে বসুন্ধরা শপিংমলে। সবচেয়ে দামি শাড়িটা কিনিয়া দিবেন ভাবিকে। ওইখানেও টিভি চ্যানেলের ক্যামেরা ঘোরাঘুরি করিতে থাকে সবসময়। সবচেয়ে দামি শাড়িখানা কিনিলে ভাবি তো সুপার হিট হইবেই, কে জানে ভাবির পাশে দাঁড়াইবার সুবাদে আপনাকেও দুই-চারবার দেখাইতে পারে। মেয়েরা শাড়ি কাপড়ের পেজে যে পরিমাণ ব্রাউজ করে, ফেসবুকে ছবি আপ দিলে ভাবি তো সুপার সেলিব্রিটি হইয়া যাইবে। সবশেষে কিন্তু আসল রেশ হইলো বাজারের সবচেয়ে দামি শাড়িটা কিনিয়া দিবার জন্য ভাবি আপনার ওপর কী পরিমান ফিদা হইবে কল্পনা করিতে পারেন?

পরবর্তী খবর পড়ুন : তারও একটা প্রেস্টিজ আছে

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে যেতে চায় বিএনএ

বিএনপির সাবেক মন্ত্রী ও তৃণমূল বিএনপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার ...

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

কালাইয়ে বেড়েছে কিডনি বিক্রি

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় অভাবী মানুষের কিডনি বেচাকেনা আবারও বেড়েছে। অভাবের ...

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রামে মহড়া, অস্ত্রধারী ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার দু'পক্ষের ...

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

জেএমবিকে অর্থ জোগাচ্ছে জঙ্গি শায়খের পরিবার

নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামা'আতুল মুজাহিদীন অব বাংলাদেশকে (জেএমবি) চাঙ্গা ...

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

রাত ১১টার পর ফেসবুক বন্ধ করে দেয়া উচিত: রওশন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক রাত ১১টার পর বন্ধ করে দেয়া ...

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানদের কাছে বড় হার বাংলাদেশের

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা বাংলাদেশ প্রস্তুতি হিসেবে নিচ্ছে। এমন একটা কথা ...

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশুর মৃত্যু: জাতিসংঘ

ইউনিসেফ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও), জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিভাগ ও বিশ্ব ...

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে ৬ বছরের শিশুর মৃত্যু

লিজা আক্তার। বয়স মাত্র ৬ বছর। চোখের সামনে বাবা ট্রেনে ...