ভোটের হাওয়া গাজীপুর-৪

আওয়ামী লীগ ও বিএনপিতে অস্বস্তি

প্রকাশ: ১৫ নভেম্বর ২০১৭      

ইজাজ আহমেদ মিলন, গাজীপুর ও সঞ্জীব কুমার দাস, কাপাসিয়া

গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনে দলের মনোনয়ন নিয়ে এক ধরনের বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তবে অস্বস্তি বিরাজ করলেও থেমে নেই নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম।

আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এই আসন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের জন্মভূমি। তার মেয়ে সিমিন হোসেন রিমি এমপি। স্বচ্ছ ইমেজের কারণে আগামী নির্বাচনেও এ আসনে তার যোগ্য বিকল্প নেই বলে বেশির ভাগ ভোটারের ধারণা।

তবে দলের একটি শক্তিশালী অংশ চাইছে সিমিন হোসেন রিমির ভাই, এই আসনের সাবেক এমপি ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী তানজীম আহমদ সোহেল তাজকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হোক। যদিও সোহেল তাজ নিজে এখনও রাজনীতিবিমুখ। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাপাসিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান প্রধান বলেন, আগামী নির্বাচনে তানজীম আহমদ সোহেল তাজের মনোনয়ন চাওয়ার প্রশ্নই আসে না। একটি মহল এ নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মী জানান, প্রতিমন্ত্রী ও এমপির পদ থেকে সোহেল তাজের পদত্যাগের পর এ আসনে জয়ী হয়েছিলেন সিমিন হোসেন রিমি। এখন তিনি 'আওয়ামী লীগের উন্নয়ন বাংলাদেশের নতুন জীবন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন বাংলাদেশের নতুন জীবন' স্লোগান নিয়ে নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। নারীর ক্ষমতায়ন, বিদ্যুতায়ন, শিক্ষার উন্নয়ন, ডিজিটালাইজেশন, দারিদ্র্য বিমোচনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন তিনি। আগামী নির্বাচনে তিনি আবারও দলের মনোনয়ন চাইবেন বলে তার ঘনিষ্ঠ নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন।

সিমিন হোসেন রিমি অবশ্য বলছেন, এখনও তিনি নির্বাচন নিয়ে কিছুই ভাবেননি। দলের মনোনয়ন চাইবেন কি-না সে বিষয়েও তিনি এখন কিছু বলতে চাইছেন না। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির এই সভাপতি বলেছেন, তার কাছে উন্নয়ন মানেই মানবিক ও নৈতিক উন্নয়ন। তিনি প্রচলিত উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের মানবিক উন্নয়ন নিয়ে কাজ করছেন। নিয়মিত সভা-সমাবেশের পাশাপাশি গণসংযোগে অংশ নিচ্ছেন।

এ আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় আরও রয়েছেন কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোতাহার হোসেন মোল্লা ও কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির উপদেষ্টা আলম আহাম্মেদ। এ আসনে দলটির সম্ভাব্য প্রার্থীর সংখ্যা কম হলেও দলের ভেতরে বিরাজ করছে এক ধরনের অস্বস্তি। সম্ভাব্য প্রার্থীরা কেউ দলের মনোনয়ন নিয়ে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য না করলেও নেতায় নেতায় এক ধরনের দূরত্ব তৈরি হয়েছে বলে মনে করছেন কর্মীরা।

এ প্রসঙ্গে মোতাহার হোসেন মোল্লা জানান, এবারও তিনি দলের মনোনয়ন চাইবেন। এর আগে তিনি তিনবার দলের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। দলের হাইকমান্ড তাকে অপেক্ষা করতে বলেছেন। তাজউদ্দীন আহমদের ভাগিনা আলম আহাম্মেদ জানিয়েছেন, তিনি দুঃখী ও অসহায় মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তার প্রত্যাশা, তিনি মনোনয়ন পাবেন।

এ আসনে বিএনপির ভেতরেও কোন্দল রয়েছে। দলের কেন্দ্রীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহের মৃত্যুর পর থেকে গৃহদাহ প্রকট রূপ নিয়েছে। এতে নেতৃত্ব সংকট তৈরি হয়েছে স্থানীয় বিএনপিতে। মনোনয়নকে কেন্দ্র করে সম্ভাব্য দুই প্রার্থী শাহ রিয়াজুল হান্নান ও জামাল উদ্দিন আহমেদ পরস্পরের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন।

এ অবস্থায় ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহের ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান দলের মনোনয়নের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছেন। দলের সভা-সমাবেশে যোগ দিচ্ছেন। তিনি বলেছেন, তার বাবার মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে এসে তাকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার কথা প্রকাশ্যেই ঘোষণা করেছেন দলের কেন্দ্রীয় মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তবে এ ঘোষণার ব্যাপারে কিছুতেই নিশ্চিত হতে পারছেন না উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জামাল উদ্দিন আহমেদ। নির্বাচনী মাঠে তার অবস্থান ভালো দাবি করে তিনি জানান, তাকে মনোনয়ন দিলে এ আসনে বিএনপির জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে নেতাকর্মীরা মনে করছেন।

এ আসন থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন গণতন্ত্রী পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক ডা. শহীদুল্লাহ সিকদার। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক দল গণতন্ত্রী পার্টি। তাই ১৪ দলের পক্ষে মনোনয়ন পেলে তিনি নির্বাচনে লড়বেন। শহীদুল্লাহ সিকদার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন, জোট থেকে সৎ, যোগ্য, নিবেদিতপ্রাণ ও ত্যাগী কাউকে বিবেচনায় নিলে মনোনয়ন তিনিই পাবেন।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) ব্যানারে এখান থেকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন দলের জেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুল্লাহ বাদল এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মানবেন্দ্র দেব।

পোশাক শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশনের উপদেষ্টা আসাদুল্লাহ বাদল জানান, সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী নির্বাচনে তিনি দলের মনোনয়ন চাইবেন। কৃষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মানবেন্দ্র দেব জানান, এ আসনে দল তাকে মনোনয়ন দেবে বলে তিনি আশাবাদী।



আগামীকাল : নাটোর-৪ (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম)

আরও পড়ুন

শিশুদের মনুষ্যত্ববোধ জাগরণে জোর দিতে হবে: সেলিনা হোসেন

শিশুদের মনুষ্যত্ববোধ জাগরণে জোর দিতে হবে: সেলিনা হোসেন

কথাসাহিত্যিক ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান সেলিনা হোসেন বলেছেন, শিশুদের ...

মাশরাফি যদি রাজী হয়: পাপন

মাশরাফি যদি রাজী হয়: পাপন

টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফির ফেরার ফিরবেন কিনা তা নির্ভর করছে তার ওপরই।টিম ...

ঋণ কেলেঙ্কারিতে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: বাণিজ্যমন্ত্রী

ঋণ কেলেঙ্কারিতে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারিতে দায়ী এবং অর্থপাচার প্রতিবেদনের তালিকায় যাদের নাম ...

শূন্যরেখায় থাকা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে মিয়ানমার

শূন্যরেখায় থাকা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে মিয়ানমার

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু সীমান্তের শূন্যরেখায় আশ্রয় নেওয়া প্রায় সাত হাজার ...

খালেদা জিয়া নির্বাচনের যোগ্যতা হারালে কিছু করার নেই: ওবায়দুল কাদের

খালেদা জিয়া নির্বাচনের যোগ্যতা হারালে কিছু করার নেই: ওবায়দুল কাদের

আদালতের রায়ে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার ভাগ্য নির্ধারিত হবে। রায়ে ...

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে ঐক্যের ডাক ফখরুলের

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে ঐক্যের ডাক ফখরুলের

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত এবং নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন ...

পিএসএলে যাচ্ছেন রিয়াদ-মুস্তাফিজ

পিএসএলে যাচ্ছেন রিয়াদ-মুস্তাফিজ

কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটরসের হয়ে পাকিস্তান সুপার লীগের (পিএসএল) খেলতে দুবাই যাচ্ছেন ...

'একটা সময় আমিও হারিয়ে যাব'

'একটা সময় আমিও হারিয়ে যাব'

'জীবন থেকে আনন্দময় সময়গুলো হারিয়ে যাচ্ছে। একটা সময় আমিও হারিয়ে ...