সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় ২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস

প্রকাশ: ০৮ জানুয়ারি ২০১৮     আপডেট: ০৮ জানুয়ারি ২০১৮      

পঞ্চগড় ও দিনাজপুর প্রতিনিধি

প্রচণ্ড শীতে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন— সমকাল

তীব্র শৈত্যপ্রবাহের দাপটে তাপমাত্রা কমা অব্যাহত হয়েছে। রোববার দিনাজপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার তা আরও কমে ৩ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। তবে এদিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়, যা গত ৫০ বছরের মধ্যেই সবচেয়ে কম।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, সোমবার তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়ায়। এছাড়া সৈয়দপুরে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৯, ডিমলায় সর্বনিম্ন ৩, রাজারহাটে সর্বনিম্ন ৩ দশমিক ১ ও দিনাজপুরে সর্বনিম্ন ৩ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

এর আগে ১৯৬৮ সালে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, এতোদিন পর্যন্ত সেটাই ছিল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড।

প্রচণ্ড শীতের কারণে এসব অঞ্চলে হতদরিদ্র ও ছিন্নমুল মানুষের দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় কাজ করতে পারছেন না শ্রমজীবী মানুষ। বিশেষ করে নির্মাণ ও কৃষি শ্রমিকরা পড়েছেন চরম বিপাকে।

গত বুধবার থেকে শৈত্যপ্রবাহ শুরুর পর তাপমাত্রাও কমতে শুরু করে। রোববার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসে, যা সেদিন ছিল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। সোমবার তাপমাত্রা আরও কমে এসেছে। দিনাপুরেরও কমেছে। তবে সবচেয়ে বেশি কমেছে তেুঁতুলিয়ায়। আর হাড় কাঁপানো কনকনে এই শীতে ব্যাহত হচ্ছে এই অঞ্চলের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।

প্রচণ্ড ঠাণ্ডা থেকে বাঁচতে আগুন জ্বালিয়ে বসেছেন কয়েকজন—সমকাল

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের উচ্চ আবহাওয়া পর্যবেক্ষক মো. তৌহিদুল ইসলাম বলেন, সোমবার সকালে তেঁতুলিয়া সর্বনিম্ন ২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

পঞ্চগড় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. সামছুল হক জানান, এখানে আবাদী ফসলের তেমন ক্ষতি হয়নি। তবে এমন তাপমাত্রা চলতে থাকলে বোরো বীজতলার ক্ষতি হতে পারে।

এদিকে তীব্র শীতে বয়স্ক ও শিশুরা শীতজনিত নানান রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। সর্বশেষ সোমবার সকাল পর্যন্ত জেলা আধুনিক সদর হাসপাতালে ৪০ শিশু শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি রয়েছে। এছাড়া জেলার পাঁচ উপজেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে শাতাধিক শিশু ও শীতজনিত রোগী ভর্তি রয়েছে। এছাড়া প্রতিদিন বহির্বিভাগে শীতজনিত শতশত রোগী চিকিৎসা নিচ্ছে।

আরও পড়ুন

ব্যাংকের শীর্ষ ১০ খেলাপির তথ্য নিচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়

ব্যাংকের শীর্ষ ১০ খেলাপির তথ্য নিচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়

সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংকের শীর্ষ ১০ জন ঋণ খেলাপির তথ্যসহ ব্যাংকগুলোর ...

কামরানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

কামরানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

শান্তি, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির শহর হিসেবে হযরত শাহজালাল (রহ.), হযরত ...

বোমা হামলার অডিও ফাঁস জড়িত দুই 'ভাই'

বোমা হামলার অডিও ফাঁস জড়িত দুই 'ভাই'

বিএনপির নির্বাচনী প্রচারে বোমা হামলা নিয়ে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের পর ...

এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

নানা প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতা আছে, তারপরও ইন্টারনেট ব্যবহারে প্রতিদিনই এগিয়ে ...

চলন্তিকা হাতিয়ে নিয়েছে একশ' কোটি টাকা

চলন্তিকা হাতিয়ে নিয়েছে একশ' কোটি টাকা

খুলনার রূপসা উপজেলার ডোবা মায়েরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ...

মঙ্গলের 'জোছনা'

মঙ্গলের 'জোছনা'

জোছনার সৌন্দর্য নিয়ে যুগে যুগে কত যে কবি-সাহিত্যিক সাহিত্যকর্ম রচনা ...

জার্মানিকে বিদায় বলে দিলেন ওজিল

জার্মানিকে বিদায় বলে দিলেন ওজিল

ধকলটা আর নিতে পারলেন না ওজিল। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ ...

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর আবারও হামলা

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর আবারও হামলা

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা-মামলা এবং বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্র-শিক্ষক নিপীড়নের ...