মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যু

চট্টগ্রামে পাল্টে যাচ্ছে নির্বাচনী সমীকরণ

প্রকাশ: ১৩ জানুয়ারি ২০১৮      

সারোয়ার সুমন, চট্টগ্রাম

সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে ওলটপালট হয়ে গেছে চট্টগ্রামের নির্বাচনী সমীকরণ। মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে থাকায় প্রতিটি সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী নির্বাচনের ক্ষেত্রে তার প্রভাব থাকত। এবারও নগরীর চারটি আসনে তার অনুসারী নেতারা নির্বাচন করার প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন। কিন্তু মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে তারা মাথার ওপর থেকে ছায়া হারিয়েছেন। নির্বাচনী দৌড়ে থাকলেও তার অনুসারী সম্ভাব্য প্রার্থীরা পড়বেন নতুন চ্যালেঞ্জে। নতুন করে ছক সাজাতে হচ্ছে তাদের। অন্যদিকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর কারণে বেকায়দায় থাকা নগরের তিন মন্ত্রী-এমপি আছেন ফুরফুরে মেজাজে। দীর্ঘ দিন ধরে রেষারেষির কারণে মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে তারা টেনশনে ছিলেন। মহিউদ্দিনের মৃত্যু তাদের নির্বাচনী সমীকরণ সহজ করে দিয়েছে।

চট্টগ্রামের বন্দর-পতেঙ্গা আসনের এমপি এমএ লতিফের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ছিল মহিউদ্দিন চৌধুরীর। চট্টগ্রাম বন্দর, ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল, বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতি ইস্যুতে মহিউদ্দিন ও লতিফ একাধিকবার মুখোমুখি হন। এমনকি লতিফের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও করেন মহিউদ্দিনের অনুসারীরা। আগামী নির্বাচনে লতিফের মনোনয়ন ঠেকানোরও ঘোষণা দিয়েছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। এ জন্য তার অনুসারী মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজনকেও বিকল্প প্রার্থী হিসেবে প্রস্তুত করছিলেন তিনি। বন্দর-পতেঙ্গা আসনে আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়েছিলেন সুজন। লতিফকে আলাদা রেখে তিনি স্বতন্ত্রভাবে দলীয় কর্মসূচিও পালন করছিলেন। আগামী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে এলাকায় ব্যানার-পোস্টারও টানিয়েছেন সুজন। কিন্তু মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে কিছুটা বেকায়দায় পড়বেন মহানগর আওয়ামী লীগের এ নেতা। বর্তমান এমপি এমএ লতিফ আছেন সুবিধাজনক অবস্থানে।

এমএ লতিফ এমপি বলেন, মহিউদ্দিন ভাইয়ের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে দ্বিমত তৈরি হলেও আমরা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই আমাদের নেতা। আগামী নির্বাচনেও প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত তিনি নেবেন। মহিউদ্দিন চৌধুরী বেঁচে থাকতেও দু'বার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছি। এলাকায় কার কী অবস্থান, তা জেনেই প্রার্থী মনোনয়ন দেন দলীয় সভানেত্রী। অন্যদিকে খোরশেদ আলম সুজন বলেন, আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে রাজনীতি করছি। মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী হলেও মনোনয়নের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন দলীয় সভানেত্রী। কোন নেতা কোথায় কী অবস্থানে আছেন, তার খবর রাখেন তিনি। মহিউদ্দিন চৌধুরী না থাকলেও আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার ক্ষেত্রে তা বিরূপ প্রভাব ফেলবে বলে মনে করি না। কারণ এ নগরে মহিউদ্দিন চৌধুরী কতটা জনপ্রিয় ছিলেন- তার প্রমাণ দেখিয়েছে চট্টলার মানুষ।

চট্টগ্রামের হালিশহর-ডবলমুরিং আসনের বর্তমান এমপি ডা. আফছারুল আমীনের সঙ্গে তিক্ত সম্পর্ক ছিল মহিউদ্দিন চৌধুরীর। এক সময় তারা দু'জন ঘনিষ্ঠ থাকলেও সংসদ নির্বাচনকে ঘিরেই তাদের মধ্যে তৈরি হয়েছিল দূরত্ব। আগামী নির্বাচনে এ আসন থেকে প্রার্থী হবেন ডা. আফছারুল আমীন। তবে তাকে চ্যালেঞ্জ জানাতে এ আসনে মহিউদ্দিন চৌধুরীর বিকল্প পছন্দ ছিলেন সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। বিএনপিতে যোগদান করে মেয়র নির্বাচন করলেও মনজুর আলমকে আবার আওয়ামী লীগে ফেরাতে একক উদ্যোগ নিয়েছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। মনজুর আলমের পারিবারিক অনুষ্ঠানেও অতিথি থাকতেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমেই বিএনপির মনজুর আলমকে আওয়ামী লীগে ফেরানোর টার্গেট করেছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। বন্দর-পতেঙ্গা কিংবা হালিশহর-ডবলমুরিং আসন থেকে আওয়ামী লীগের ব্যানারে নির্বাচন করতে হোমওয়ার্কও শুরু করেছেন মনজুর আলম। কিন্তু মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে তিনিও কিছুটা হোঁচট খেয়েছেন। বিপরীতে অনেকটা ফুরফুরে মেজাজে আছেন ডা. আফছারুল আমীন।

সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন এমপি বলেন, মহিউদ্দিন চৌধুরীর বিরোধিতার পরও এ আসন থেকে একাধিকবার আমাকে এমপি মনোনয়ন দিয়েছিলেন দলীয় সভানেত্রী। আগামী নির্বাচনেও দলীয় সভানেত্রীর ইচ্ছাতে ঠিক হবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী। অন্যদিকে সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম বলেন, মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যু চট্টগ্রামের জন্য বিশাল এক ক্ষতি। কিন্তু তার মৃত্যুতেই নিঃস্ব হয়ে যাব- এমনটি ভাবা ঠিক নয়। মহিউদ্দিন চৌধুরীকে হারিয়েই মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলাম। চট্টগ্রামের মানুষের সঙ্গে আমাদের আত্মার সম্পর্ক দীর্ঘ দিনের। নির্বাচন করব কি-না, তা এখনও ঠিক করিনি। চট্টগ্রামে মানবসেবা করে যাচ্ছি মনের তাগিদ থেকেই।

চট্টগ্রাম মহানগরীর একাংশ নিয়ে গঠিত সীতাকুণ্ড আসনেও কিছুটা হিসাব-নিকাশ পাল্টে যাবে। বর্তমান এমপি দিদারুল আলমের সঙ্গেও মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছিল দূরত্ব। এ সুযোগে উপজেলা চেয়ারম্যান ও আগামী নির্বাচনের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী এসএম আল মামুন সম্পর্ক গড়ে তোলেন মহিউদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে। তার মনোনয়ন দৌড়ে আশীর্বাদ থাকত মহিউদ্দিন চৌধুরীর। কিন্তু তার মৃত্যুতে বড় ছায়া হারিয়েছেন এসএম আল মামুন। একইভাবে নগরীর কোতোয়ালি আসনে কিছুটা চিন্তামুক্ত হয়েছেন বর্তমান এমপি জাতীয় পার্টির জিয়াউদ্দিন বাবলু। এ আসনে এমপি পদে নির্বাচন করতে তৎপরতা বাড়িয়েছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। টেকনোক্র্যাট কোটায় মন্ত্রী হওয়া নুরুল ইসলাম বিএসসিও আছেন এমপি মনোনয়নের দৌড়ে। মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে ছেলে নওফেল কিছুটা হোঁচট খেলেও নুরুল ইসলাম বিএসসি ও জিয়াউদ্দিন বাবলুর সমীকরণ কিছুটা সহজ হয়েছে।

জিয়াউদ্দিন বাবলু বলেন, চট্টগ্রামে মহিউদ্দিন চৌধুরীর আলাদা ইমেজ রয়েছে। কিন্তু প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে আগেও তার ইচ্ছাই চূড়ান্ত ছিল না। জোট-মহাজোটের সমীকরণ ও ব্যক্তি ইমেজ বিবেচনায় নিয়েই কোতোয়ালিতে অতীতে প্রার্থিতা নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামীতেও প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে হবে অনেক হিসাব-নিকাশ। অন্যদিকে কোতোয়ালিতে নির্বাচন করার ব্যাপারে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, চট্টগ্রামের মানুষ বাবাকে কতটা ভালোবাসেন- তার প্রমাণ দিয়েছেন জানাজায়। দলীয় সভানেত্রী সবকিছুর খবর রাখেন। প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে তার সিদ্ধান্তকেই মাথা পেতে নেব।##

এক মাসের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন

এক মাসের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন

রাষ্ট্রপতির দায়িত্বে মো. আবদুল হামিদের ৫ বছর মেয়াদ পূর্ণ হচ্ছে ...

পরিবেশের সর্বনাশ

পরিবেশের সর্বনাশ

'ত্রিশ বছর আগেও চার-পাঁচটি জেলেপল্লী ছিল সাভারের সাধাপুর থেকে ধামরাই ...

একই সুতোয় দুই বাংলা

একই সুতোয় দুই বাংলা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চল আর বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গ- এ দুই এলাকায় যেসব ...

আওয়ামী লীগে একক প্রার্থী বিএনপিতে অস্থিরতা

আওয়ামী লীগে একক প্রার্থী বিএনপিতে অস্থিরতা

একক প্রার্থী নিশ্চিত থাকায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ...

মেয়ে হয়ে জন্মানোই ছিল অপরাধ!

মেয়ে হয়ে জন্মানোই ছিল অপরাধ!

প্রথম সন্তান মেয়ে হওয়ায় বাবার চাওয়া ছিল পরেরটি ছেলে হোক। ...

ভালো হওয়ার সুযোগ পাবে 'বিপথগামীরা'

ভালো হওয়ার সুযোগ পাবে 'বিপথগামীরা'

জঙ্গিবাদে জড়িত থাকার সুনির্দিষ্ট অভিযোগে সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ থেকে এক তরুণকে ...

রিয়ালের স্বস্তির জয়

রিয়ালের স্বস্তির জয়

সবশেষ গত বছরের ডিসেম্বরে সেভিয়াকে বিধ্বস্ত করে লা লীগায় জয়ের ...

পদবঞ্চিতদের বিক্ষোভের মুখে ওবায়দুল কাদের

পদবঞ্চিতদের বিক্ষোভের মুখে ওবায়দুল কাদের

গঠন প্রক্রিয়ায় থাকা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহসম্পাদক পদ নিয়ে ...