সিদ্ধিরগঞ্জে জোড়া খুন

নানিকে হত্যা দেখে ফেলায় খুন হয় নাতিও

প্রকাশ: ১৪ জানুয়ারি ২০১৮      

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে নানি-নাতি খুনের রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। নানি পারভীন আক্তারকে হত্যার দৃশ্য দেখে ফেলায় নাতি ১৩ বছরের মেহেদী হাসানকেও একই কায়দায় হত্যা করে ঘাতকরা। পুলিশের অভিযানে তিন ঘাতকই গ্রেফতার হয়েছে। তাদের মধ্যে আক্তার হোসেন গত ৭ জানুয়ারি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্য দু'জন হলো সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি পাইনাদী এলাকার ইছামুদ্দিনের ছেলে মাসুম ও একই এলাকার মৃত ঈমান আলীর ছেলে মুক্তার। তারা সবাই এলাকায় মাদকাসক্ত হিসেবে পরিচিত।

গত ৪ জুনয়ারি সিদ্ধিরগঞ্জের পাইনাদী মধ্যপাড়া এলাকার ইতালিপ্রবাসী তোফাজ্জল হোসেনের বাড়ির একটি কক্ষ থেকে পারভীন আক্তার ও তার নাতি মেহেদী হাসানের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পারভীন ওই বাড়ির কেয়ারটেকার ছিলেন। গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর থেকে এ দু'জন নিখোঁজ ছিলেন। এ ব্যাপারে নিহত পারভীনের মেয়ের জামাই সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছিলেন। জিডির সাত দিন পর দু'জনের গলিত লাশ উদ্ধার হলে পুলিশ হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পারভীনের মেয়ে জামাতা নবী আউয়ালকে আটক করে। মেয়ে শিল্পী আক্তার আরব আমিরাতে থাকায় নাতি মেহেদী হাসান ও নাতনি ফাহিমা আক্তারকে নিয়ে পারভীন ইতালিপ্রবাসী তোফাজ্জল হোসেনের বাড়িতে বসবাস করতেন। তবে ঘটনার সময় ৯ বছরের ফাহিমা ঘরে টিভি দেখতে থাকায় সে কিছু টের পায়নি। যে কারণে সেদিন ঘাতকদের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিল ফাহিমা।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার 'ক' অঞ্চল শরফুদ্দিন বলেন, নানি-নাতি হত্যাকাণ্ডের মাস্টারমাইন্ড ছিল মাসুম। এর মধ্যে মাসুম ও মুক্তার সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়। আর আক্তার ছিল পাহারায়। মাসুম ও মুক্তার স্থানীয় এবং আক্তার এলাকার ভাড়াটে। তারা তিনজনই মাদকাসক্ত।

আক্তার তার জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছে, ঘটনার দুই মাস আগে মাসুমের পরামর্শে নিরাপদে ইয়াবা খাওয়ার জন্য আক্তার ওই বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নেয়। তিন রুমের বাড়িটির প্রথম কক্ষে পারভীন তার নাতি-নাতনি নিয়ে বসবাস করতেন। মাঝের কক্ষ মাসুম, মুক্তার ও আক্তারের কাছে ভাড়া দেওয়া হয়। আর শেষের কক্ষটিতে পারভীনের জামাতা নবী আউয়াল বসবাস করতেন।

কক্ষটি ভাড়া নেওয়ার পর মাসুম, মুক্তার ও আক্তার নিরাপদে মাদক সেবন করে আসছিল। এর মধ্যে মাসুম এলাকার নিরীহ মানুষকে ওই বাড়িতে ধরে নিয়ে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় করত। একদিন এক লোককে ধরে এনে দুই লাখ টাকা দাবি করে মাসুম। পরে ওই লোকের পরিবার বিকাশের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। বিষয়টি পারভীন দেখে ফেলে এবং মাসুমকে বাসা ছেড়ে দিতে বলে। এর পরও মাসুম ওই বাড়িতে বাইরের লোকজন নিয়ে এসে আড্ডা দিলে তাতে বাদ সাধেন পারভীন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পারভীনকে চড় মারে মাসুম।

এ ঘটনার পর গত ২৯ ডিসেম্বর মাঝের ওই কক্ষটি অন্যজনের কাছে ভাড়া দিয়ে দেন পারভীন। এ কথা জানতে পেরে তিনজনই ওই বাড়িতে যায়। সেখানে গিয়ে মাসুম পারভীনের চুলের মুঠি ধরে মারধর করতে থাকে। এ দৃশ্য দেখে মেহেদী চিৎকার করলে মাসুম পারভীনকে তাদের কক্ষে নিয়ে যায়। মেহেদীকেও সেখানে নিয়ে যেতে বলে। এরপর প্রায় এক ঘণ্টা পর মাসুম ও মুক্তার কক্ষ থেকে বের হলে আক্তার দেখতে পায় পারভীনের মুখের ওপর বালিশ চাপা দেওয়া এবং মেহেদীর গলায় রশি দিয়ে পেঁচানো। কক্ষ তালা দিয়ে যাওয়ার সময় মাসুম জানায়, দু'জনকেই মেরে ফেলা হয়েছে।

ব্যাংকের শীর্ষ ১০ খেলাপির তথ্য নিচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়

ব্যাংকের শীর্ষ ১০ খেলাপির তথ্য নিচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়

সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংকের শীর্ষ ১০ জন ঋণ খেলাপির তথ্যসহ ব্যাংকগুলোর ...

কামরানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

কামরানের নির্বাচনী ক্যাম্পে আগুন

শান্তি, সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতির শহর হিসেবে হযরত শাহজালাল (রহ.), হযরত ...

বোমা হামলার অডিও ফাঁস জড়িত দুই 'ভাই'

বোমা হামলার অডিও ফাঁস জড়িত দুই 'ভাই'

বিএনপির নির্বাচনী প্রচারে বোমা হামলা নিয়ে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের পর ...

এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

এগিয়ে যাচ্ছে দেশ

নানা প্রতিকূলতা ও সীমাবদ্ধতা আছে, তারপরও ইন্টারনেট ব্যবহারে প্রতিদিনই এগিয়ে ...

চলন্তিকা হাতিয়ে নিয়েছে একশ' কোটি টাকা

চলন্তিকা হাতিয়ে নিয়েছে একশ' কোটি টাকা

খুলনার রূপসা উপজেলার ডোবা মায়েরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ...

মঙ্গলের 'জোছনা'

মঙ্গলের 'জোছনা'

জোছনার সৌন্দর্য নিয়ে যুগে যুগে কত যে কবি-সাহিত্যিক সাহিত্যকর্ম রচনা ...

জার্মানিকে বিদায় বলে দিলেন ওজিল

জার্মানিকে বিদায় বলে দিলেন ওজিল

ধকলটা আর নিতে পারলেন না ওজিল। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ ...

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর আবারও হামলা

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর আবারও হামলা

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা-মামলা এবং বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্র-শিক্ষক নিপীড়নের ...