খাগড়াছড়িতে ২ জনকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশ: ১৬ এপ্রিল ২০১৮      

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

ফাইল ছবি

খাগড়াছড়িতে পৃথক ঘটনায় দু'জনকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার দুপুরে জেলা সদরের আপার পেরাছড়া এলাকায় সূর্য বিকাশ চাকমা নামে বিএনপির সাবেক এক নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। 

এছাড়া রোববার রাতে দীঘিনালা উপজেলায় জুরন চাকমা নামে এক যুবক গুলিতে নিহত হন। তিনি ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) সাবেক কর্মী। এই দীঘিনালা থেকে জেনার চাকমা নামে আরেকজনকে অপহরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সোমবার দুপুরে জেলা সদরের আপার পেরাছড়া এলাকার দয়ামোহন কার্বারী পাড়ায় একটি বাড়ির উঠানে বিজু উৎসবের দাওয়াতে ভাত খাচ্ছিলেন সূর্য বিকাশ চাকমা। এ সময় একদল দুর্বৃত্ত এসে তাকে বাইরে ডেকে নিয়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে সূর্য বিকাশ চাকমা ঘটনাস্থলেই মারা যান।

সূর্য বিকাশ ২০০১-০৬ সালে বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। একবার কমলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে হেরে যান। এরপর রাঙামাটিতেই অবস্থান করতেন তিনি।

খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাহউদ্দিন জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে রোববার রাতে দীঘিনালা উপজেলার প্রত্যন্ত উন্দুয্যামা ছড়া এলাকায় জুরন চাকমাকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, জুরন ও তার বড় ভাই লক্ষ্মণ চাকমাসহ চারজন একসঙ্গে ছিলেন। হঠাৎ একদল সন্ত্রাসী এসে জুরনকে গুলি করে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তিনি ১নং মেরুং ইউনিয়নের উন্দুয্যামা ছড়া এলাকার অনিন্দ কার্বারী পাড়ার বর্ণ চাকমার ছেলে।

এ ছাড়া একই দিন বিকেলে খাগড়াছড়ি থেকে বাড়ি ফেরার পথে দীঘিনালা স্টেশন থেকে জেনার চাকমাকে অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা। কবাখালী ইউনিয়নের কৃপাপুর গ্রামের সুমতি রঞ্জন চাকমার ছেলে জেনার খাগড়াছড়িতে কম্পিউটার প্রশিক্ষণরত ছিলেন। এক সময় পিসিপির সঙ্গে কাজ করতেন তিনি।

এ দুটি ঘটনার জন্য ইউপিডিএফের পক্ষ থেকে জনসংহতি সমিতিকে (সংস্কারপন্থি) দায়ী করা হয়েছে। তবে জনসংহতি সমিতি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, বিভক্ত ইউপিডিএফের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

দীঘিনালা থানার ওসি শামসুদ্দিন ভূঁইয়া জানান, তারা এ দুটি ঘটনা সম্পর্কে কোনো অভিযোগ পাননি।


আরও পড়ুন

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

ধানমণ্ডিতে সুপরিসর একটি ফ্ল্যাট কেনার উদ্যোগ নিয়েছিলেন ব্যবসায়ী আহাদুল ইসলাম। ...

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির বৃহস্পতিবারের সম্ভাব্য জনসভায় ২০ দলের শরিক জামায়াতে ইসলামীকে কৌশলগত ...

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফ্লাইটের এক কেবিন ক্রুর মাদক সেবন ও ...

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) একটি অথর্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে অপতৎপরতা ...

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

স্বাধীন সাংবাদিকতায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে- এমন সব ধারা-উপধারা বহাল ...

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

মিয়ানমার থেকে নানা কৌশলে ভিন্ন ভিন্ন রুট ব্যবহার করে সারা ...

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

হুট করেই ইমরুল কায়েস এশিয়া কাপের দলে ডাক পান। এরপর ...

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

বরিশালে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার অভিযোগ ...