শূন্যরেখায় ভালো নেই রোহিঙ্গারা

প্রকাশ: ১৭ এপ্রিল ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

মুহাম্মদ হানিফ আজাদ, তুমব্রু সীমান্ত থেকে

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু সীমান্তের নো-ম্যান্স ল্যান্ড। গত আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর হত্যা, নির্যাতন শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ছয় হাজার রোহিঙ্গা এখন পর্যন্ত এই নো-ম্যান্স ল্যান্ডে আশ্রয় নিয়েছে। সেখানেই দুই দেশের মধ্যকার এই নিরপেক্ষ সীমানায় এখন বেড়ে উঠছে রোহিঙ্গা শিশুরা। গতকাল সোমবার তুমব্রু সীমান্তে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নো-ম্যান্স ল্যান্ডে রাতারাতি গড়ে ওঠা কুঁড়েঘর ও পানির পাম্পের কাছাকাছি ফাঁকা জায়গায় খেলছে রোহিঙ্গা শিশুরা। কেউ দড়ি  নিয়ে লাফাচ্ছে, কেউ পাম্প থেকে পানি নিয়ে যাচ্ছে পরিবারের জন্য। অস্থায়ী এই বাড়িগুলোর একটু পেছনেই কাঁটাতারের বেড়া। তার পেছনে অস্ত্র হাতে সতর্ক মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশ। সেদিকেই অপলক চোখে তাকিয়ে থাকেন দিল মোহাম্মদ নামে এক রোহিঙ্গা। কাঁটাতারের ফাঁক গলে তার চোখ খুঁজে ফেরে নিজের বসতভিটা। 


দুই দেশের মধ্যকার ওই নিরপেক্ষ অঞ্চলেই বাঁশের খুঁটি দিয়ে ঘর বানিয়েছে রোহিঙ্গারা। ঘরে প্লাস্টিকের দেয়াল আর পলিথিনের ছাদ। এমন ঘরেই করতে হচ্ছে রাত্রিযাপন। খাবার পানির পাম্পের পাশ দিয়েই গেছে পয়ঃনিস্কাশনের পাইপ। কাঁটাতারের বেড়া পেরোলেই চোখে পড়বে ছোট একটি পাহাড়। সেখানেই মিয়ানমারের সীমান্ত পুলিশের (বিজিপি) চেকপোস্ট। বেড়ার ওপাশে কাদামাটির রাস্তায় এমন অসংখ্য চেকপোস্ট রয়েছে। 


দিল মোহাম্মদ ও তার সঙ্গে থাকা আরেক রোহিঙ্গা সৈয়দুল আমিন বলেন, আমরা অন্যপাশে অনেক ?পুলিশ দেখি। মাঝে মাঝে পুলিশ বেড়ার ওপরে উঠে মাইকে ঘোষণা করে বলে, যেন আমরা বাংলাদেশে চলে যাই। চলতি মাসের প্রথমেই ওই অঞ্চলে উত্তেজনা তৈরি হয়েছিল। নিরাপত্তার অজুহাতে নতুন করে সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেয় মিয়ানমার। কোথাও কোথাও কংক্রিটের দেয়াল নির্মাণের মধ্য দিয়ে সুরক্ষা জোরদারের চেষ্টা করা হয়। কোথাও খোঁড়া হয় বাঙ্কার, কোথাও আবার স্থাপন করা হয় সীমান্ত চৌকি। ওই পাড়ে তাকালেই দেখা যায়, ট্রাকে করে আসছে সশস্ত্র সীমান্ত রক্ষীরা। 


ছমুদা খাতুন নামে এক রোহিঙ্গা নারী বলেন, মিয়ানমারে সেনাবাহিনী তার ও পরিবারের ওপর গুলি চালালে তিনি গ্রাম থেকে পালিয়ে আসেন। কিন্তু এখানেও খুব ভালো নেই তারা। তিনি বলেন, 'এই আশ্রয় শিবিরে জীবন খুবই কঠিন। খুব গরম, রান্নার জন্য জ্বালানিও পাওয়া যায় না। ইউনিসেফের ডাক্তাররা মাঝে মাঝে আসেন। এছাড়া কোনো চিকিৎসা সুবিধাও পাওয়া যায় না।'


সীমান্তে বিজিপির এই অতিরিক্ত তৎপরতা নিয়ে এর আগে মিয়ানমার সরকারের এক মুখপাত্র দাবি করেছিলেন, তাদের কাছে তথ্য আছে যে, আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির সন্ত্রাসীরা সেখানে অবস্থান নিয়েছে। তাই তারা অতিরিক্ত সতর্কতা ব্যবস্থা নিয়েছে। এ বিষয়ে বিজিবি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল মনজুরুল হাসান খান বলেন, 'গত সাত মাসে আমি কোনো সন্ত্রাসী কার্যক্রম দেখিনি। আমি শুধু নিষ্পাপ শিশু ও নারীদেরই দেখেছি।' 


তবে নাইক্ষ্যংছড়ির ইউএনও এসএম সরওয়ার কামাল বলেন, শূন্যরেখায় অবস্থানকারী রোহিঙ্গাদের কোনো সমস্যা নেই। তাদের সরকারি-বেসরকারিভাবে ত্রাণ ও স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হচ্ছে। 

আরও পড়ুন

ফিফার ‘দ্য বেস্ট’ মডরিচ

ফিফার ‘দ্য বেস্ট’ মডরিচ

রোনালদো ফিফার বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে যান নি। তাতেই ...

ঐক্যের চাপে বিএনপি

ঐক্যের চাপে বিএনপি

সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে 'বৃহত্তর জাতীয় ...

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

ধানমণ্ডিতে সুপরিসর একটি ফ্ল্যাট কেনার উদ্যোগ নিয়েছিলেন ব্যবসায়ী আহাদুল ইসলাম। ...

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির বৃহস্পতিবারের সম্ভাব্য জনসভায় ২০ দলের শরিক জামায়াতে ইসলামীকে কৌশলগত ...

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফ্লাইটের এক কেবিন ক্রুর মাদক সেবন ও ...

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) একটি অথর্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে অপতৎপরতা ...

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

মিয়ানমার থেকে নানা কৌশলে ভিন্ন ভিন্ন রুট ব্যবহার করে সারা ...

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

হুট করেই ইমরুল কায়েস এশিয়া কাপের দলে ডাক পান। এরপর ...