রাজীবের পর এবার বিচ্ছিন্ন হৃদয়ের হাত

প্রকাশ: ১৭ এপ্রিল ২০১৮     আপডেট: ১৭ এপ্রিল ২০১৮      

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

হাসপাতালে আহত হৃদয়- সমকাল

রাজধানীতে দুই বাসের চাপে এক হাত বিচ্ছিন্ন হওয়া যুবক রাজীব হোসেনের মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এবার হাত বিচ্ছিন্ন হলো হৃদয় মিনার নামের এক বাস শ্রমিকের।

গোপালগঞ্জে বাসের সঙ্গে ট্রাকের সংঘর্ষে শরীর থেকে হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া হৃদয়কে (৩০) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার বেদগ্রাম নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে সমকালকে নিশ্চিত করেছেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম।

দুর্ঘটনার পর বিকেলে বাগেরহাটের কাটাখালী থেকে গোপালগঞ্জ থানা পুলিশ ওই ট্রাকের চালক মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার পশ্চিম কাকৈড় গ্রামের নুরু শরীফের ছেলে জাকির হোসেনকে (৩২) গ্রেফতার করেছে।

আহত হৃদয় টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের চালকের সহকারী (হেলপার)। উপজেলার কাড়ারগাতী গ্রামের রবিউল মিনার ছেলে তিনি।

টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের যাত্রী প্রত্যক্ষদর্শী ঢাকা ইডেন কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী রাহিমা মনি জানান, পিরোজপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের বাসের একেবারে পিছনের ডান পাশের ছিটে বসে ছিলেন হৃদয়।

তিনি জানান, বাসটি বেদগ্রাম পৌঁছালে অপরদিক থেকে আসা একটি ট্রাক পাশ কাটিয়ে যাওয়ার সময় বাস ও ট্রাকের পেছনের অংশে সংঘর্ষ হয়। ঘটনাস্থলেই হৃদয়ের ডান হাতটি বিচ্ছিন্ন হয়ে ,মাটিতে পড়ে যায়।

পরে তাকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে হৃদয়ের অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা পাঠানো হয়।

হৃদয়ের বাবা রবিউল মিনা বলেন, রবিউল টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের চালকের সহকারী। সে টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেসের অন্য একটি গাড়িতে ডিউটি করে। দুর্ঘটনা কবলিত বাসে করে হৃদয় ঢাকা যাচ্ছিল।

ওসি মনিরুল জানান, ট্রাক চালককে আটক করে থানা আনা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

হৃদয় যখন গোপালগঞ্জে দুর্ঘটনায় পড়ে একটি হাত হারিয়েছেন; তার ঠিক কয়েক ঘণ্টা আগেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন প্রায় একই ঘটনার শিকার তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী রাজীব।

গত ৩ এপ্রিল বিআরটিসি ও স্বজন পরিবহনের দুই বাসের প্রতিযোগিতার মাঝে পড়ে রাজধানীতে ডান হাতটি ছিঁড়ে যায় রাজীবের। তাৎক্ষণিকভাবে পান্থপথের একটি বেসরকারি হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয় তাকে।

রাজীব তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় মা এবং অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় তার বাবাকে হারান। যাত্রাবাড়ীতে খালার বাসায় থেকে কম্পিউটার দোকানে কাজ করে দুই ভাইয়ের লেখা পড়া করাচ্ছিলেন তিনি।

সোমবার গভীর রাতে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রাজীব। তার মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শোকের ছায়া নেমেছে; দেশজুড়ে নাড়া দিয়েছে এ খবর।


আরও পড়ুন

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

কোটি টাকায় কেনা দীর্ঘশ্বাস

ধানমণ্ডিতে সুপরিসর একটি ফ্ল্যাট কেনার উদ্যোগ নিয়েছিলেন ব্যবসায়ী আহাদুল ইসলাম। ...

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির জনসভায় আমন্ত্রণ পাচ্ছে না জামায়াত

বিএনপির বৃহস্পতিবারের সম্ভাব্য জনসভায় ২০ দলের শরিক জামায়াতে ইসলামীকে কৌশলগত ...

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফ্লাইটের এক কেবিন ক্রুর মাদক সেবন ও ...

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুদককে পঙ্গু করতে চায় একটি মহল

দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) একটি অথর্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে অপতৎপরতা ...

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

নিবর্তনমূলক ধারা বাতিল দাবি সাংবাদিক নেতাদের

স্বাধীন সাংবাদিকতায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে- এমন সব ধারা-উপধারা বহাল ...

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

ইয়াবা কারবারিরা তবু বেপরোয়া

মিয়ানমার থেকে নানা কৌশলে ভিন্ন ভিন্ন রুট ব্যবহার করে সারা ...

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

বিপিএলের কারণে রশিদকে চেনা ইমরুলের

হুট করেই ইমরুল কায়েস এশিয়া কাপের দলে ডাক পান। এরপর ...

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক ঋণ!

বরিশালে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার অভিযোগ ...