রুপার অভাব পূরণে প্রাণপণ চেষ্টা করছেন পপি

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০১৮      

এম আতিকুল ইসলাম বুলবুল, তাড়াশ

পপির দেওয়া ঈদ উপহারের সামনে পরিবারের সদস্যরা

টাঙ্গাইলের মধুপুরে চলন্ত বাসে আলোচিত গণধর্ষণের পর হত্যার শিকার সিরাগঞ্জের তাড়াশের আসানবাড়ি গ্রামের জাকিয়া সুলতানা রুপা খাতুনের  বাড়িতে শোককে বুকে চেপে আসন্ন  ঈদ উদযাপনে আয়োজন চলছে। 

মেধাবী তরুণী রুপা তার জীবদ্দশায় অভাব অনাটনের সংসারে পড়ালেখার পাশাপাশি খণ্ডকালীন চাকরি করে যা উপার্জন করতেন, তার সবই ভাইবোনদের জন্য ব্যয় করতেন অকাতরে। বিশেষ করে ঈদে দুই ভাই হাফিজুর ও উজ্জল প্রামাণিক, হাফিজুরের একমাত্র মেয়ে হুমাইরা, মা হাসনা হেনা, ছোট বোন পপি আর দুই ভাবি সম্পা ও টুম্পার জন্য অবশ্যই ঈদের নতুন পোশাক কিনে দিতেন।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে পপি বলেন, অনেক সময় রুপা আপু ঈদে আমাদেরকে খুশি রাখতে তার উপার্জিত সব টাকা খরচ করে নিজের জন্য কিছুই কিনত না। তারপরও মুখ ভরা প্রাণবন্ত হাসিতে সব সময়ই বাড়িটা ভরিয়ে রাখত।  

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে রুপাদের বাড়িতে গিয়ে দেখা মেলে পরিবারের সবাই একত্রে বাড়ির বারান্দায় বসে আছেন। সামনে রাখা ঈদ উপলক্ষে পরিবারের সবার জন্য পপির আনা জামা, জুতা, শাড়িসহ বিভিন্ন ঈদ সামগ্রী। রুপার অকাল মৃত্যুর পরে থেকেই তার অভাব পূরণে প্রাণপণ চেষ্টা করছেন  পপি।

রুপার মৃত্যুর পর স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম পপিকে বগুড়ায় অবস্থিত  রাষ্ট্রায়াত্ত্ব ওষুধ কোম্পানি এসেনশিয়াল ড্রাগে অফিসার পদে চাকরি দেন। পপি জানান, সেই চাকরির বেতন ও ঈদ বোনাসের টাকা দিয়ে বগুড়া থেকে মায়ের জন্য শাড়ি, ভাতিজির জন্য জামা-জুতা, দুই ভাবির জন্য শাড়ি এবং ঈদের দিন খরচের জন্য বড় ভাই হাফিজুর রহমান প্রামাণিক ও উজ্জল প্রামাণিকের হাতে নগদ টাকা তুলে দিয়েছেন। 

পপি বলেন, প্রায় ১০ মাস হতে চললো, তারপরও আদরের বোনের মর্মান্তিক মৃত্যুর শোক এখনও প্রতিনিয়ত আমাদের তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। তারপরও আমরা স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের প্রতি  কৃতজ্ঞ। আজ তার দেয়া চাকরির বেতন পেয়েই পরিবারের সবাইকে নিয়ে ভালোভাবে ঈদ উদযাপনের  চেষ্টা করছি। সেই সাথে রুপার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করছি। 

এদিকে বাড়ির বারান্দায় বসে থাকা মা হাসনা হেনা রুপার জন্য অঝরে কাঁদতে থাকেন। তার কাঁন্না দেখে পরিবারের অন্য সদস্যরাও চোখে পানি আটকাতে পারছিলেন না। হাসনা হেনা জানান, দেশের  বিচার বিভাগের প্রতি তাদের আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে। তিনি তার জীবদ্দশায়  মেয়ের ধর্ষক হত্যকারীদের ফাঁসি কার্যকর দেখে যেতে চান।   

নিহত রুপা

এর আগে ২০১৭ সালের ২৭ আগস্ট  টাঙ্গাইলে মধুপুরের পঁচিশ মাইল এলাকায় চলন্ত বাসে গণধর্ষণের পর হত্যা করা হয় মোছা. জাকিয়া সুলতানা রুপাকে। ওই দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে মধুপুর থানা পুলিশ পঁচিশ মাইল এলাকার সুমী নার্সারির নিকট রাস্তার পাশ থেকে অজ্ঞাত হিসেবে তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় মধুপুর থানায় একটি হত্যামামলা দায়ের করে পুলিশ। পরে ময়নাতদন্ত শেষে বেওয়ারিশ হিসেবে টাঙ্গাইলের কেন্দ্রীয় কবরস্থানে রুপার লাশ দাফন করা হয়। ঘটনার তিনদিন পর ছবি দেখে রুপার লাশ শনাক্ত করেন বড় ভাই মো. হাফিজুর রহমান।

পরে চলতি বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি রপা হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়। এতে ৪ আসামির ফাঁসি ও ১ জনের ৭ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়। 

রুপার বড় ভাই হাফিজুর রহমান প্রামাণিক জানান, বর্তমানে ফাঁসির দণ্ড পাওয়া চার আসামিসহ অন্যরা রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেছেন। এখনও আপিলের শুনানি শুরু হয়নি। তার দাবি, বিচারটি প্রক্রিয়াটি দ্রুত নিষ্পত্তি করে ঘাতকদের ফাঁসিতে ঝোলানো হোক।  

আরও পড়ুন

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-ফিরমিনোয় হার নেইমার-এমবাপ্পেদের

সালাহ-সাদিও মানে-ফিরমিনো বনাম নেইমার-এমবাপ্পে-কাভানি! কিংবা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের সাবেক দুই কোচ ...

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের বিপক্ষে কষ্টের জয় ভারতের

হংকংয়ের ইনিংসের তখন ২৯ ওভার চলছে। কোন উইকেট না হারিয়ে ...

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

মুশফিক বিশ্রামে খেলবেন মুমিনুল

রুটি সেঁকতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত না আবার হাতটাই পুড়ে যায়- ...

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

শিক্ষার্থীরা আশাবাদী, সন্দেহ যাচ্ছে না ছাত্রনেতাদের

সাধারণ শিক্ষার্থীরা আশাবাদী। তবে কিছুটা সন্দেহ আর সংশয়ে আছে ক্যাম্পাসে ...

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে বাড়ছে গড় আয়ু

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ক্রমশই বাড়ছে। ১০ বছর আগে ২০০৮ ...

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

চলমান রাজনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ করেছে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য। আওয়ামী ...

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

'থাহনের জাগা নাই, পড়ালেহা করব ক্যামনে'

ভিটেমাটির সঙ্গে শিশু নাসরিন আক্তারের স্কুলটিও গেছে পদ্মার গর্ভে। তীরে ...

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

রোগশোক ভুলে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে ওরা

হাটহাজারীর কাটিরহাট থেকে ছয় কিলোমিটার ইটবিছানো রাস্তার পর প্রায় এক ...