চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায়  উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা রমজান আলী (৩৫) হত্যা মামলার প্রধান আসামি শহিদুল ইসলাম হৃদয়কে (১৯) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার বিকেলে ঢাকার উত্তরা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ সমকালকে তার গ্রেপ্তারের বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন। গ্রেপ্তার হৃদয় কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা ইউনিয়নের ইছানগর গ্রামের শফিউল আলমের ছেলে। হত্যাকাণ্ডের পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন।

গত ১৫ জুন চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে শেষ ধাপের ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মাঝে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে ভোটগ্রহণের পরদিন ১৬ জুন সন্ধ্যা ৭টায় এজহারনামীয় প্রধান আসামি শহিদুলসহ কয়েকজন মিলে রমজান আলীকে ধাওয়া দিয়ে মারধর ও ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় গত শুক্রবার নিহতের বড় ভাই মোহাম্মদ আলমগীর বাদী হয়ে ৩ ভাইসহ মোট ৭ জনকে আসামি করে কর্ণফুলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের পর থেকে আসামিরা পলাতক ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ঢাকা থেকে প্রধান আসামি শহিদুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’