ভয়াবহ বন্যায় আফ্রিকার পশ্চিমাঞ্চলীয় দেশ নাইজারে ৫১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ব্যাপক বৃষ্টিপাতে নদীর দুই কূল উপচানো বন্যায় নষ্ট হয়েছে হাজার হাজার ঘরবাড়ি ও ফসলি মাঠ।

দেশটিতে বর্ষা মৌসুমে বন্যা একটি সাধারণ ঘটনা। এ সময় বন্যায় ঘরবাড়ি তলিয়ে গিয়ে হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ে। সোমবার কর্মকর্তারা এখবর দিয়েছেন। খবর রয়টার্সের

দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আগস্টের প্রথমদিক থেকে দেখা দেওয়া বন্যায় এ পর্যন্ত ২৬ হাজারেরও বেশি ঘরবাড়ি ধসে পড়ে ৩৭ জন নিহত হয়েছেন, ডুবে মারা গেছেন ১৪ জন। নাইজার নদীর তীরবর্তী রাজধানী নিয়ামের বহু এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে।

বিশ্বের সবচেয়ে অনুন্নত দেশগুলোর অন্যতম নাইজারের অধিকাংশ এলাকাই মরুভূমি। দেশটি বিশ্বের বৃহত্তম উষ্ণ মরুভূমি সাহারার অংশ। জাতিসংঘের শিশু সংস্থা ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালের প্রথমদিক পর্যন্ত দেশটির ২৯ লাখ লোক বছর বছর বন্যা, খরা, মহামারীজনিত বিভিন্ন রোগ, নিরাপত্তাহীনতা ও বাস্তুচ্যুত হয়ে মানবিক ত্রাণ সহায়তার ওপর নির্ভরশীল ছিল।

সোমবার প্রেসিডেন্ট মাহমাদু ইসউফু এক বিবৃতিতে প্রেসিডেন্ট ইসউফু জানান, বন্যায় দেশজুড়ে ২ লাখ ৮১ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাদের সহায়তার জন্য জরুরিভিত্তিতে সাহায্য দরকার।