চীনে গত ৬ মাসের মধ্যে স্থানীয়ভাবে সর্বোচ্চ করোনা সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়েছে। গণপরীক্ষা এবং সংক্রমণের ধরন যাচাই করে করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের এই সংক্রমণ চিহ্নিত করা গেছে। বুধবার দেশটির স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ৭১টি সংক্রমণের কথা জানিয়েছে, যা গত জানুয়ারির পর থেকে সর্বোচ্চ।

গত ৬ মাস ধরে দেশটি সবগুলো বড় বড় শহরে গণপরীক্ষা চালিয়ে এবং লাখ লাখ লোককে লকডাউনের আওতায় এনে এই মহামারির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ লড়াই চালিয়ে আসছে। এই পরীক্ষার আনুষ্ঠানিক ফল কয়েক ডজন বড় শহরে প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়া সত্ত্বেও সংক্রমণের ক্রমহ্রাসমানতা প্রকাশ করেছে। খবর এনডিটিভির।

চীনের উহান থেকে ২০২০ সালের শুরুর দিকে প্রাদুর্ভাব হওয়া এই ভাইরাসের সংক্রমণ মহামারি আকারে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ার পর বেইজিং দ্রুতই সংক্রমণ মোকাবিলায় সাফল্যলাভ, অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার ও জীবনযাত্রা স্বাভাবিক হয়ে ওঠার কথা জানায়।

কিন্তু করোনার সাম্প্রতিক প্রাদুর্ভাব তাদের সে দাবির পক্ষে হুমকি হয়ে উঠেছে। গত মাসের মাঝামাঝি থেকে এ পর্যন্ত ৫০০টি স্থানীয় সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। জিয়াংসু প্রদেশের নানজিং বিমান বন্দরে  নয়জনের শরীরে সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর নতুন করে তা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

২০১৯ সালে যে উহান থেকে করোনা ভাইরাসের প্রথম উৎপত্তি ও সংক্রমণ, এক বছরেরও বেশি সময় পরে সেখানে ১ কোটি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে দ্রুত পরীক্ষা শুরু হয়েছে। নানজিংয়ে জিমনেসিয়াম, সিনেমা হল ও আবাসিক যোগাযোগ বন্ধ  করে দিয়ে সংক্রমণ পরীক্ষা শুরু করা হয়েছে।

মধ্য হুনান প্রদেশের পর্যটন শহর ঝাংজিয়াজি মঙ্গলবার ঘোষণা করেছে, এটি সংক্রমণের ভরকেন্দ্র হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার পর কাউকে শহর থেকে বের হওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে না।