ভূমধ্যসাগরে ভাসমান ৬৪ বাংলাদেশি ফিরতে রাজি

প্রকাশ: ১৭ জুন ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

দেশে ফিরতে রাজি হয়েছেন ভূমধ্যসাগরে নৌকায় ভাসমান ৬৪ বাংলাদেশি। দেশে ফিরিয়ে আনার শর্তে তাদের তিউনিসিয়ার স্থলভাগে প্রবেশের সুযোগ দিতে রাজি হয়েছে দেশটি। সেখান থেকে তাদের আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) সহযোগিতায় বাংলাদেশে পাঠানো হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং লিবিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছে। সাগরে আটকেপড়া ৬৪ বাংলাদেশি সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দালালের সহায়তায় অবৈধ পথে লিবিয়া যান। সেখান থেকে নৌকায় ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে ঢোকার চেষ্টায় ছিলেন তারা। গত ৩১ মে তিউনিসিয়ার জলসীমা থেকে তাদের উদ্ধার করে মিসরীয় বাহিনী। গত মাসে ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টায় ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে নৌকা ডুবে ৩৯ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়। দেশে ফিরছেন আরও ১৬ জন।

লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর এ এস এম আশরাফুল ইসলাম জানিয়েছেন, ভূমধ্যসাগরে ভাসমান বাংলাদেশিরা দেশে ফিরতে রাজি ছিলেন না। তাদের বোঝাতে গত বৃহস্পতিবার তিনি তিউনিসিয়ায় যান। সেখানকার কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশিদের তিউনিসিয়ায় প্রবেশের সুযোগ দিতে রাজি ছিল না। তাদের দাবি, শরণার্থীদের রাখার কেন্দ্রে উপচেপড়া ভিড়। নতুন করে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের আশ্রয় দেওয়ার মতো জায়গা নেই।

আশরাফুল ইসলাম জানিয়েছেন, তিউনিসিয়ান কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশিদের খাদ্য ও চিকিৎসা সহায়তা দিচ্ছে। তারা তিউনিসিয়া থেকে ধাপে ধাপে বাংলাদেশ ফিরবেন।

জনশক্তি খাত-সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশি তরুণরা ইউরোপের মোহে দালাল ধরে লাখ লাখ টাকায় মিসর হয়ে লিবিয়া যাচ্ছে। সেখান থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা করছে। 

ইউরোপীয় ইউনিয়নের হিসাবে, গত কয়েক বছরে সোয়া এক লাখের বেশি বাংলাদেশি অবৈধভাবে ইউরোপের দেশগুলোতে প্রবেশ করেছে। ইউরোপীয় দেশগুলো অভিবাসীদের জায়গা দিতে রাজি নয়। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ইউরোপে মানব পাচারকারীদের চিহ্নিত করেছে।

বিষয় : ভূমধ্যসাগর বাংলাদেশি