২০ উপজেলায় আজ ভোট

প্রকাশ: ১৮ জুন ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

সমকাল প্রতিবেদক

দেশজুড়ে চলমান উপজেলা পরিষদের পঞ্চম বা শেষ ধাপের ২০ উপজেলায় আজ মঙ্গলবার ভোট নেওয়া হচ্ছে। এবারই প্রথম ইসির নির্ধারিত নতুন সময় সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হবে। দীর্ঘদিন ধরেই দেশে সব ধরনের ভোটের সময় ছিল সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা।

ইসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নির্বাচনে নানা অনিয়ম ঠেকাতে নতুন সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। সকাল ৮টায় ভোট শুরু হলে দূরের ভোটকেন্দ্রগুলোতে আগের রাতে ব্যালট ও বাক্স পাঠানো হতো। এতে আগের রাতে দুস্কৃতকারীরা সিল মেরে  বাক্স ভরে রাখত। এসব ঠেকাতে সকালে কেন্দ্রে বাক্স পাঠানোর সুযোগ করতেই ভোটের সময় এক ঘণ্টা পেছানো হয়েছে।

২০টি উপজেলার মধ্যে চারটিতে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। গাজীপুর সদর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, নোয়াখালী সদর ও নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলায় ইভিএমে ভোট হবে। চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ ছয়টি উপজেলায় এবং ২৪ মার্চ তৃতীয় ধাপে চারটি উপজেলায় ইভিএমে ভোট হয়েছে। এরই মধ্যে চার ধাপে ১০, ১৮, ২৪ ও ৩১ মার্চ দেশের প্রায় ৪৫০ উপজেলায় ভোট হয়।

নির্বাচন কমিশন সচিব মো. আলমগীর বলেন, নির্বাচনের সহিংসতা নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে ইসি সব প্রস্তুতি নিয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

আজ যেসব উপজেলায় ভোট হবে তার মধ্যে রয়েছে- শেরপুরের নকলা, নাটোরের নলডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, বরগুনার তালতলী, গাজীপুর সদর, নারায়ণগঞ্জের বন্দর, মাদারীপুর সদর, রাজবাড়ীর কালুখালী, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, নোয়াখালী সদর, রাজশাহীর পবা, নেত্রকোনার পূর্বধলা, সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া, ফেনীর ছাগলনাইয়া ও খুলনার ডুমুরিয়া।

প্রথমবারের মতো দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত এ ভোট জাতীয় নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো বর্জন করেছে। ফলে বিভিন্ন উপজেলায় মূলত আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থীই। বিভিন্ন উপজেলা থেকে সমকালের ব্যুরো, নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো আরও খবর-

খুলনা: ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচন নির্বিঘ্ন করতে নজিরবিহীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়। উপজেলায় টহল শুরু করেছে সাত প্লাটুন বিজিবি। চেয়ারম্যান পদে পাঁচ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে আট এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মোস্তফা সারোয়ার (নৌকা), স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) গাজী এজাজ আহমেদ, শাহনেওয়াজ হোসাইন জোয়ার্দার, ওয়ার্কার্স পার্টির শেখ সেলিম আকতার এবং বিএনপি নেতা মাহবুবুর রহমান (স্বতন্ত্র)।

নারায়ণগঞ্জ : বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী জানান, নির্বাচনে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে এক হাজার ৮৯ জন পুলিশ ও আনসার ভোটকেন্দ্রে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচ এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এমএ রশিদ।

সুনামগঞ্জ :  জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে লড়ছেন দুই প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা। একজন মুক্তিযোদ্ধা ইউসুফ আল আজাদ। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী। আরেকজন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম লড়ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে। স্থানীয়ভাবে বলা হয়, একজন সহজ-সরল 'ভালো মানুষ'; আরেকজন 'পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ'। এই দুই প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতার হয়ে মাঠে নেমেছে বিএনপিও। বিএনপি নিজেরা প্রার্থী না দিলেও দুই প্রার্থীর পক্ষে বিভক্ত হয়ে সক্রিয় প্রচারে ছিল।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : বিজয়নগরে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পাঁচ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে দু'জন। চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান তানবীর ভূঁইয়া (নৌকা), স্বতন্ত্র নাছিমা মুকাই আলী (ঘোড়া), সৈয়দ মাঈনুদ্দিন আহাম্মদ (আনারস), ফজলুল হক (মোটরসাইকেল) ও মোসাহেদ হোসেন (দোয়াত-কলম)।

মাদারীপুর : সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে। এ আসনে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) প্রার্থী হয়েছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট ওবায়দুর রহমান খান। কাজল কৃষ্ণ দে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমের অনুসারী বলে পরিচিত। অন্যদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ওবায়দুর রহমান খান সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের ছোট ভাই।

রাজবাড়ী : কালুখালী উপজেলা নির্বাচন ঘিরে এরই মধ্যেই যথেষ্ট উত্তাপ ছড়িয়েছে। বেশ কয়েকটি হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। গত রোববার নৌকার সমর্থক ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখম করায় সে উত্তাপ আরও ছড়িয়েছে। এসব ঘটনায় ভোটাররা সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কিত। এ উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নুরে আলম সিদ্দিকী হক ও আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো।

বরগুনা : তালতলী উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী রেজবী-উল-কবির জোমাদ্দার নির্বাচনের মাত্র একদিন আগে গতকাল উচ্চ আদালত থেকে তার প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে গত শনিবার তার প্রার্থিতা বাতিল করেছিল ইসি।

সিরাজগঞ্জ :  কামারখন্দ উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল মতিন চৌধুরী। অন্য স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন এসএম শহিদুল্লাহ সবুজ (ঘোড়া), কালাম আজাদ (দোয়াত-কলম) আবুল ওয়াদুদ (মোটরসাইকেল), খেজের আলম শফি (হেলিকপ্টার), রেজাউল করিম (কাপ-পিরিচ) ও শামসুল আলম (আনারস)।

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) : তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে দাঙ্গা-হাঙ্গামায় জড়িয়ে পড়লে এ উপজেলায় শান্তি-শৃঙ্খলা বিঘ্ন হয়। চতুর্থ ধাপের এ উপজেলায় ভোট হওয়ার কথা থাকলেও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় নির্বাচন স্থগিত করেছিল ইসি। গতকাল জেলা পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান মঠবাড়িয়া কেএম লতিফ ইনিস্টিটিউশন মাঠে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্রিফিং প্যারেডে বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

নেত্রকোনা : চতুর্থ ধাপে পূর্বধলা উপজেলা নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিন ব্যাপক সহিংসতার কারণে নির্বাচন স্থগিত করেছিল ইসি। এবার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে কঠোর অবস্থান নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শিহাব উদ্দিন। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের জাহিদুল ইসলাম সুজন (নৌকা) ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মাছুদ আলম তালুকদার টিপু (আনারস)।