সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ভাতার ৭৫ শতাংশ টাকা বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’-এর মাধ্যমে প্রদান করা হবে। এ লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সরাসরি উপকারভোগীদের কাছে পাঠানোর কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব ড. আহমেদ কায়কাউস। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ জয়নুল বারী।

বাংলাদেশ সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় প্রতি বছর দুস্থদের মাঝে হাজার হাজার কোটি টাকার ভাতা বিতরণ করে থাকে। সরকার থেকে ব্যক্তিকে (জি-টু-পি) পাঠানো এই সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় ইতোমধ্যে ২১টি জেলার ৭৭টি উপজেলায় ১২ লাখ ৩৭ হাজার উপকারভোগীর কাছে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ভাতার অর্থ বিতরণ করেছে সরকার।

মোট ৮৮ লাখ ৫০ হাজার উপকারভোগীর বাকি ৭৬ লাখ ১৩ হাজার উপকারভোগীকে টাকা পৌঁছে দেবে ‘নগদ’ ও অপর একটি এমএফএস। এই পদ্ধতিতে ভাতা বিতরণের জন্যে গত বছরের শেষের দিকে সরকার আট বিভাগের আটটি ইউনিয়নে ডেমো করে, যার ভিত্তিতে সরকার ‘নগদ’-এর মাধ্যমে ভাতার ৭৫ শতাংশ বিতরণের সিদ্ধান্ত নেয়। ‘নগদ’ এর বিতরণ করা এই ৭৫ শতাংশ উপকারভোগী দেশের ৪০টি জেলার বাসিন্দা।

সরকারি এই ভাতা ক্যাশ আউট করতে উপকারভোগীকে অতিরিক্ত কোনো অর্থ খরচ করতে হবে না। সরকার মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস অপারেটর ‘নগদ’-কে প্রতি হাজারে ৭ টাকা ক্যাশ আউট চার্জ দেবে, বাকি টাকা ‘নগদ’ বহন করবে। যার ফলে সরকারি ভাতা ক্যাশ-আউট করতে ভাতাভোগীকে কোনো অতিরিক্ত টাকা খরচ করতে হবে না।

এর আগে করোনা মহামারির সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৫০ লাখ অসহায় পরিবারকে এমএফএস-এর মাধ্যমে ঈদ উপহার বিতরণ করেন, যার মধ্যে ১৭ লাখ পরিবার ‘নগদ’-এর মাধ্যমে উপহার পায়।

মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস বিশেষ করে ‘নগদ’-এর মাধ্যমে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ভাতা বিতরণকে আর্থিক খাতের ডিজিটালাইজেশনের বড় নজির বলে মন্তব্য করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেন, “সরকারি সেবা যে কতটা বিশ্বাস ও আস্থার জায়গা তৈরি করেছে, তার প্রমাণ হচ্ছে ‘নগদ’। প্রযুক্তিগতভাবে ‘নগদ’ এতটাই দক্ষ যে জনগণের সঙ্গে সরকারি সমস্ত আর্থিক লেনদেনই ডাক বিভাগের এই সেবা করে দিতে পারে। অন্তত একটি ক্ষেত্রে সরকারকে স্বয়ংসম্পূর্ণতা দান করার জন্য আমি ‘নগদ’-কে ধন্যবাদ জানাই।”

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ বলেন, “সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি ভাতা বিতরণের যে ডেমো আমরা করেছি সেখানে আমরা খেয়াল করেছি ‘নগদ’-এর প্রযুক্তি খুবই আধুনিক এবং তাদের সেবার কলেবরও অত্যন্ত বিস্তৃত। আশা করছি এই প্রক্রিয়ায় সবচেয়ে কম সময়ে, সঠিক মানুষটির হাতে সরকারের কাঙ্ক্ষিত ভাতা পৌঁছে যাবে।”

সমাজকল্যাণ সচিব মোহাম্মদ জয়নুল বারী বলেন, “সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির ভাতা বিতরণের ক্ষেত্রে আজ আমরা নতুন একটি অধ্যায়ের শুরু করলাম। আর সেখানে সরকারি একটি সেবা কোম্পানিকে আমরা পাশে পেয়েছি এটি সত্যিই আমাদের কাছে বিস্ময়কর ছিল। ‘নগদ’-কে ধন্যবাদ।”

‘নগদ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, “আমাদের জন্য এ এক ঐতিহাসিক মুহূর্ত। আমরা সব সময়ই দেশ ও দেশের জনগণের কথা মাথায় রেখে আমাদের সেবাগুলোকে সাজিয়েছি। সে কারণেই অল্প সময়েই আমরা সরকার ও জনগণের ভালোবাসা পেয়েছি। আমরা বিশ্বাস করি সেদিন খুব বেশি দূরে নয়, ‘নগদ’ সরকারের পুরো ভাতা বিতরণ ব্যবস্থাকে ডিজিটালাইজ করবে এবং জনগণ ও কোনো রকম ঝক্কি ছাড়াই তাদের প্রাপ্য বুঝে পাবে।”

বিষয় : নগদ সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি

মন্তব্য করুন