জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার 'বীরনিবাস' যথাযথ মান বজায় রেখে নির্মাণ করতে নির্দেশ দিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। 

রোববার রাজধানীর অস্বচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন (বীরনিবাস) নির্মাণ প্রকল্প কার্যালয়ে এক কর্মশালা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এই নির্দেশ দেন। মাঠ পর্যায়ের প্রকল্প বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন করা হয়।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী তথা মুজিববর্ষ এবং মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার 'বীরনিবাস' নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রথমে ১৪ হাজার বীর নিবাস অনুমোদন হলেও প্রধানমন্ত্রী পরে প্রতিটিতে ১৩ লাখ ৪৩ হাজার টাকা নির্মাণ ব্যয়ে ৩০ হাজার বীরনিবাস অনুমোদন দেন। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শেখ হাসিনার আন্তরিক ভালোবাসার প্রতিফলন হচ্ছে বীরনিবাস।

মন্ত্রী আরও বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন সহজীকরণের জন্য উপজেলাভিত্তিক বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে বীরনিবাস নির্মাণ করা হচ্ছে। এ কমিটিতে কর্মকর্তাদের পাশাপাশি বাড়ি বরাদ্দপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধাকেও রাখা হয়েছে। যাতে তিনি তার বাড়ির কাজ বুঝে নিতে পারেন।

মন্ত্রী বাড়ি নির্মাণের সময় ছবি এবং ভিডিও ধারণ করতে এবং বাড়ি বরাদ্দপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধার উপস্থিতি নিশ্চিত করতে সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন। এ ছাড়া মন্ত্রী প্রকৃত অস্বচ্ছল এবং সঠিক তালিকাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধারা যাতে বীরনিবাস বরাদ্দ পান, তা নিশ্চিত করতেও নির্দেশনা দিয়েছেন।

এ সময় জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের মহাপরিচালক জহুরুল ইসলাম রোহেল, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক অতিরিক্ত সচিব কামরুন নাহার, বীরনিবাস নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক এম ইদ্রিস সিদ্দিকী, মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম মাহবুবুর রহমানসহ মন্ত্রালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা প্রশিক্ষণার্থী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপসহকারী প্রকৌশলীরা উপস্থিত ছিলেন।