সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল বলেছেন, দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। তবে মানুষ মানুষের বাড়িতে আগুন দিচ্ছে, পুড়িয়ে মারছে। এসব ঘটনায় রাষ্ট্র মানুষের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের বড়করিমপুর কসবা গ্রামে জেলেপল্লি পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। তার নেতৃত্বে মানবাধিকার কর্মীদের একটি দল জেলেপল্লিতে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

সুলতানা কামাল বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে বেঁচে থাকবে। তিনি আরও বলেন, আমরা এসেছি আপনাদের সহমর্মিতা জানাতে এবং এটা বলতে যে, আমরা ভীষণভাবে উদ্বিগ্ন, আমরা লজ্জিত। আপনাদের মতো আমরাও নিজেদের মনে ভয় নিয়ে ঘুরছি- কখন আবার কোথায় কারও ঘরে আঘাত হানা হয়, আক্রান্ত হয়। আমরা অতি সাধারণ মানুষ, সাধারণভাবে শান্তিপূর্ণভাবে জীবন-জীবিকা চালাতে চাই; তবে সেটুকুও রাষ্ট্র মানুষকে নিশ্চিত করতে পারে না। আপনাদের মনে সাহস রাখতে হবে, প্রত্যয় রাখতে হবে। দেশে এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয়, সেজন্য ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, কেন্দ্রীয় খেলাঘরের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জহির, জিন্নাত আরা, অধ্যাপক আব্দুস সোবহান, সামাজিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক সালেহ আহম্মেদ, পীরগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী লুমুম্বা লুমু, অ্যাডভোকেট আবু সুফিয়ান হিরু, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা 'সমকালে'র নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হামিদ রাজা উপস্থিত ছিলেন।